Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

কলাপাড়ায় বালিয়াতলী লঞ্চঘাটে ঢাকাগামী মানুষের উৎসবমুখর পরিবেশ

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ আগস্ট, ২০১৯, ২:১২ পিএম

কলাপাড়ায় দীর্ঘ দশ বছর পর আবার চালু হয়েছে নৌ পথে কলাপাড়া থেকে ঢাকা যাওয়ার লঞ্চ সার্ভিস এমভি রয়েল ক্রুজ। উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষের মাঝে স্বতি ফিরে এসেছে। ঈদের ষষ্ঠ দিন রবিবার বিকেলে বালিতলী লঞ্চঘাটে রাজধানীমূখী যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। সকাল থেকেই যাত্রীদের ভিড়ে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় তিল ধারণের ঠাঁই নেই। লঞ্চ ছাড়ার আগেই লঞ্চের ছাদ, ডেক থেকে শুরু করে প্রথম শ্রেণির কেবিনের বারান্দার জায়গাও খালি ছিল না। আবহাওয়া ভাল থাকার কারণে গত পাঁচ দিনে যে যাত্রী হয়নি তার চেয়ে বেশি যাত্রী হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ছোট একটি টার্মিনাল লঞ্চ বদিং করতে অনেক সময় ও সমস্যা হয়। টার্মিনালটির অনেক অংশ ভেঙ্গে গেছে। যাত্রীদের লঞ্চে ওঠা নামর পুল পানিতে তলিয়ে থাকার কারনে লঞ্চে উঠতে জামা-কাপড় ভিজে যায়। পাশাপাশি কাউন্টারে কেবীন না পেয়ে চড়া দামে স্টাফ কেবীন পওয়া যাচ্ছে বলে জানিয়েছে তারা নিয়েছে।

নুরুজ্জমান খালাসী জানান, আগের কদিনের চেয়ে যাত্রীদের চাপ বেড়েছে। আমরা লঞ্চে ওভারলোড হতে দিচ্ছি না। নির্ধারিত সময় লঞ্চ ছেড়ে দিচ্ছি।

পায়রা বন্দর এস.আই সঞ্জয় জানান,যাত্রীদের চাঁপ বাড়ার সাথে সাথে লঞ্চ ঘাটের ভিতর বাইরে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। যাতে যাত্রীদের যাতায়াতে কোন প্রকার হয়রনীর শিকার না হয়।

ঢাকা থেকে আসা মো.আল-আমিন রবিন বলেন আগে ঢাকা থেকে কলাপাড়া আসতে অনেক কষ্ট,ঝামেলা পোহাতে হয়। এখন আমাদের বাড়ির নদীর পাড়ে লঞ্চঘাটে এসে নামি কোন সমস্যা ছাড়াই। আমার একটাই দাবী কিছুদিন পর এই লঞ্চ সার্ভিস যেন বন্ধ না হয়।

বালিয়াতলীর রহিমা বেগম বলেন আগে ঢাকা থেকে লঞ্চযোগে পটুয়াখালী লঞ্চঘাটে নামতে হত। তারপর গাড়িতে চড়ে কলাপাড়া পড়ে বালিয়াতলী বাড়িতে। একদিকে সময় বেশি লাগতো ও হয়রানির শেষ ছিল না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ