Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

সখিপুরে বংশাই নদীতে ডুবে তামিরুলের মৃত্যু

৬ঘন্টা পর ডুবুরীদল উদ্ধার করলো লাশ

সখিপুর(টাঙ্গাইল)উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ আগস্ট, ২০১৯, ৪:৪০ পিএম | আপডেট : ৭:৩৭ পিএম, ১৯ আগস্ট, ২০১৯

টাঙ্গাইলের সখিপুর উপজেলার দাড়িয়াপুর ইউনিয়নের দাড়িয়াপুর এস.এ. উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র, দাড়িয়াপুর-স্কুলপাড়ার মোঃ হানিফ মিয়ার ছোট ছেলে মোঃ তামিরুল ইসলাম সোমবার বেলা ১২টা ৪৫ মিনিটে এস.এ. উচ্চ বিদ্যালয়ের পশ্চিমে বংশাই নদীতে ডুবে গেছে। ময়মনসিংহ থেকে ডুবুরীদল এসে ডুবে যাওয়া বিশ গজ ভাটিতে বিকাল ৬টা ১৫ মিনিটে তাহেরুলের লাশ উদ্ধার করেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, এস এ উচ্চ বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশে নদীর অপর পাশে বাবা হানিফ এবং বড় ভাই তাহেরুল এর সাথে চরক জাল পেতে সাতরিয়ে তারা নদী পার হচ্ছিল। তাহেরুল আগে নদীর তীরে পৌছায়। তামিরুল পেছনে ছিল। তীরে পৌছার আগ মুহুর্তে সে নদীতে ডুবে যায়। তাকে উদ্ধার করার জন্য তার বড় ভাই যেতে যেতেই সে ডুবে যায়। তার বাবা নদীর অপর পাশ থেকে সাতরিয়ে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজলেও তাকে খোঁজে পায়নি। সখিপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জুলফিকার হায়দার কামাল লেবু, দাড়িয়াপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আনসার আলী আসিফ, সাবেক চেয়ারম্যান এস. এম. শাইফুল ইসলাম শামীম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন । এলাকার লোকজন সখিপুর ফায়ার সার্ভিস তামিরুলকে উদ্ধার করার চেষ্টা চালায়। তবে সখিপুর ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরীদল না থাকায় তারা চলে যায়। পরে ময়মনসিংহ থেকে বিশেষ ডুবরি দল আসার পর বিকাল ৬টা ১৫ মিনিটে তামিরুলের লাশ উদ্ধার করেছে। উল্লেখ্য,২০১৩ সালে একই জায়গায় এস.এ. উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর শিক্ষার্থী স্বর্না পানিতে ডুবে মারা যায়। ২০১৩ সালে তামিরুল ও স্বর্না উভয়ই একই বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর শিক্ষার্থী ছিল।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মৃত্যু


আরও
আরও পড়ুন