Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬, ১৭ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

এনআরসির কারণে বিয়ে বন্ধ, বর-কনের পলায়ন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ আগস্ট, ২০১৯, ২:১৭ পিএম

নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসির কারণে মেয়ের বিয়ে ভেঙে দিলেন পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু তাতে কি! বর-কনের মধ্যে আগে থেকে ছিল প্রেম। কনের পরিবারের এমন সিদ্ধান্তের কারণে, বরের হাত ধরে পালিয়ে গেছেন কনে। আসামের শিলচড়ের কাছে নয়াগ্রামের দিলওয়ার হোসেন লস্কর (৩০) ও রাভিনা (পরিবর্তিত নাম) বেশ কিছুদিন ধরে প্রেমে মজেছিলেন। এক পর্যায়ে তারা বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। এ জন্য পরিবারকে অবহিত করেন। দুই পরিবারের সদস্যরা তাতে সম্মতি জানান। তারা বিয়ের দিন ধার্য্য করেন। কিন্তু অল্প সময়ের মধ্যে রাভিনার পরিবার বেঁকে বসে। তাদের ভয় হয়- দিলওয়ারের নাম এনআরসিতে আছে তো? রাভিনার পিতা কুতুবউদ্দিন বারভুঁইয়া শক্ত হয়ে যান। তিনি বলেন, এমন কোনো ব্যক্তির সঙ্গে আমি আমার মেয়েকে বিয়ে দেবো না, যার নাগরিকত্ব প্রশ্নের মুখে পড়তে পারে। এমন ছেলের হাতে মেয়েকে তুলে দিলে তখন আমার মেয়েও নাগরিকত্বের পরীক্ষার মুখে পড়বে। তিনি দিলওয়ারকে নাগরিকত্ব প্রমাণ দিতে বলেন। কিন্তু ব্যর্থ হন দিলওয়ার। আসামে এনআরসি থেকে যে ৪০ লাখ মানুষকে বাদ দেয়া হয়েছে তার মধ্যে আছে তার নাম। কিন্তু কুতুব কোনো বিকল্প না ভেবেই বিয়ে বাতিল করে দেন। দিলওয়ারের পরিবার কুতুবউদ্দিনকে বোঝানোর অনেক চেষ্টা করে। কিন্তু তিনি গোঁ ধরেছেন- এই ছেলের কাছে কাছে বিয়ে দেবেন না। তার মতো গোঁ ধরেন দিলওয়ার ও রাভিনা। তারাও শনিবার চার হাত এক করে পালিয়ে গেছেন। ফলে ঘটনা গড়িয়েছে শিলচর পুলিশ স্টেশনে। সেখানে দিলওয়ারের বিরুদ্ধে তিনি একটি অপহরণ মামলা করেছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন