Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

শিশু সম্বলিত পরিবারগুলোকে বন্দি রাখার এক নিষ্ঠুর চেষ্টা ট্রাম্পের নয়া অভিবাসন আইন

নিউ ইয়র্ক টাইমস | প্রকাশের সময় : ২৪ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০২ এএম

নিউ ইয়র্ক টাইমস এপ্রিলে এক রিপোর্টে বলে যে নয়া আইন প্রক্রিয়া সম্পন্ন না করার কারণে মিলার ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট-এর ভারপ্রাপ্ত পরিচালক রোনাল্ড ডি. ভিটিয়েলোকে তীব্র ভর্ৎসনা করেন। পরে ট্রাম্প ভিটিয়েলোর মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন এ বলে যে তিনি কঠিন দায়িত্ব পালনের উপযুক্ত নন।

ফ্লোরেস সমাধান অভিবাসন বিষয়ে দলীয় বিতর্কের কেন্দ্র ছিল। ডেমোক্র্যাটরা বলেছে, এই আইনে আটক শিশুদের কল্যাণ নিশ্চিত করা একান্ত প্রয়োজন। বিশেষ করে ভিড়ে উপচে পড়া সেলগুলোতে তাদের রাখা এবং কখনো কখনো তাদের গোসল না করা, টুথপেস্ট না দেওয়া বা গরম খাবার না পাওয়ার খবর প্রকাশিত হওয়ার পর।

ম্যাকঅ্যালিনান মে মাসে হাউজ হোমল্যান্ড সিকিউরিটি কমিটিকে বলেন যে ফ্লোরেস সমাধান যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসনে উৎসাহিত করেছে। তিনি বলেন, একজন প্রাপ্ত বয়স্ক লোক যদি একটি শিশুকে নিয়ে আসে তখন তারা যুক্তরাষ্ট্রে বাস করতে চাইবে।
মিসিসিপির ডেমোক্র্যাট প্রতিনিধি এবং কমিটির চেয়ারম্যান বার্নি থম্পসন ম্যাকঅ্যালিনানকে আদালতের আদেশের মূল উদ্দেশ্যের কথা স্মরণ করিয়ে দেন।

থম্পসন বলেন, শিশুদের দীর্ঘকাল আটক রাখা হলে তা তাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর বলে প্রমাণিত হয়েছে। আমি মনে করি আদালত হোমল্যান্ড সিকিউরিটির প্রতি শাস্তিমূলক পদক্ষেপ নেয়ার বদলে উক্ত প্রেক্ষাপটেই বিষয়টি দেখেছে।
কয়েকশ’ পৃষ্ঠা দীর্ঘ ট্রাম্প প্রশাসনের এই আইন একটি প্রয়োজনীয় বিষয় বিলোপ করেছে যে অভিবাসী পরিবারগুলোর জন্য সকল ফেডারেল আটক কেন্দ্রের স্ব স্ব রাজ্য কর্তৃক লাইসেন্স থাকা প্রয়োজন। অথচ অধিকাংশেরই তা নেই।

তার বদলে এই আইনের আওতায় টেক্সাসের ডিলি ও কারনেস সিটি এবং ফিলাডেলফিয়ার লেসপোর্টে শত শত অভিবাসী পরিবারকে আটক রাখতে তিনটি আটক কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে।
প্রশাসন কর্মকর্তারা গত মঙ্গলবার জোর দিয়ে বলেন যে আটক কেন্দ্রগুলো থাকবে। আর সেগুলোতে আটক অভিবাসীদের জন্য উচ্চ মান বজায় রাখা হবে। সেখানে স্বাস্থ্য সেবা, শিক্ষা ও উন্নত মানের খাবার ব্যবস্থা করা হবে।

কিন্তু প্রশাসনের সমালোচকরা দীর্ঘদিন থেকে বলে আসছেন যে আটক কেন্দ্রগুলো শিশুদের দীর্ঘসময় সেখানে আটক রাখার অনুপযোগী। ভিড়ে পূর্ণ সীমান্ত টহল আটক কেন্দ্রগুলোতে সাম্প্রতিক ভয়াবহ অবস্থার খবর আবাসিক ব্যবস্থা বিষয়ে তাদের উদ্বেগকে প্রমাণিত করেছে।
মূল মামলা দায়েরকারী আইনজীবী ও সমাধান শর্ত সমর্থনকারী পিটার শে বলেন, প্রয়োজন বোধে আমরা শিশুদের আটকের বিরোধী নই। বিশেষ করে যদি ভ্রমণ ঝুঁকি থাকে বা তারা যদি নিজেদের বা অন্যের জন্য বিপজ্জনক হয়, সেক্ষেত্রে। কিন্তু সমাধান শর্ত যে সব বিষয়ের সমাধান চায় সেসব ক্ষেত্রে শিশুদের আটক অপ্রয়োজনীয়। সুতরাং এসব আইন প্রকৃতপক্ষে শিশুদের নিরাপত্তা ও তাদের কল্যাণের ব্যাপারে ফেডারেল সরকারের নীতির প্রতি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও তার পক্ষ থেকে অসম্মানজনক পদক্ষেপ।

গত গ্রীষ্মে ট্রাম্প প্রশাসন ফ্লোরেস চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসার লক্ষ্যে অভিবাসী শিশুদের তাদের পিতামাতার কাছ থেকে পৃথক করতে শুরু করে। শিশুদেরকে স্বাস্থ্য ও মানব সেবা দফতরের হেফাজতে পাঠানো হয়। অন্যদিকে বয়স্কদের অভিবাসন আইন লঙ্ঘনের জন্য বিচারের সম্মুখীন করতে আটক করে রাখা হয়।

প্রচন্ড রাজনৈতিক সমালোচনা ট্রাম্পকে শিশুদের পিতামাতার কাছ থেকে পৃথক করার নীতি প্রকাশ্যে পরিত্যাগ করতে বাধ্য করে। যদিও অভিবাসন সমর্থকরা বলেন যে এ ঘোষণার পরও কিছু পিতামাতার কাছ থেকে তাদের শিশুদের পৃথক করা হয়েছে। প্রশাসন কর্মকর্তারা গত মঙ্গলবার বলেন যে অভিবাসী পরিবারগুলোকে অনির্দিষ্টকাল আটক করে রাখার উদ্যোগ হচ্ছে পরিবার থেকে শিশুদের পৃথক করা পরিহার বা তাদের মামলা শুনানির অপেক্ষায় থাকাকালে তাদের মুক্তি দেয়ার চেষ্টা।

গত বুধবার এ আইনের চূড়ান্ত ঘোষণার আগে অভিবাসন প্রবক্তারা বলেন যে এটা সেসব পরিবারগুলোকে বন্দি রাখার এক নিষ্ঠুর চেষ্টা। যাদের একেবারেই শিশু বা কমবয়সী ছেলেমেয়ে রয়েছে। তারা এমনিতেই স্ব স্ব দেশের দুর্নীতি ও সহিংসতা থেকে বাঁচার জন্য পালিয়ে এসেছে।

১৯৯৭ সালের সম্মতি আইনের অধীনে শর্ত মোতাবেক মূল মামলায় এ আইন অবশ্যই বিচারক কর্তৃক অনুমোদিত হতে হবে। এই বিচারক হচ্ছেন ক্যালিফোর্নিয়া কেন্দ্রীয় জেলার জেলা আদালতের বিচারক ডলি এম. গি। এই আইনের ব্যাপারে তার অনুমোদন পাওয়ার জন্য সরকার সাতদিন সময় পাবে।

আইন বিশেষজ্ঞরা বলেন, যদি তিনি তা অনুমোদন না করেন তাহলে প্রশাসন তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে কয়েক মাস, এমনকি এক বছরও লেগে যেতে পারে। (শেষ)



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ