Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬, ২২ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

ভারত আগুন নিয়ে খেলছে - পাক প্রেসিডেন্ট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ আগস্ট, ২০১৯, ৫:২৩ পিএম

ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের বিশেষ স্বায়ত্তশাসন প্রত্যাহার করে ভারত আগুন নিয়ে খেলছে এবং একই আগুন শেষপর্যন্ত ভারতের ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ পুড়ে যাবে বলে মন্তব্য করেন পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি আরিফ আলভী। শনিবার কানাডীয়-মার্কিন গণমাধ্যম ভাইস নিউজে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি একথা বলেন।

সাক্ষাৎকারে পাক রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘সংবিধানের ৩৭০ ও ৩৫-এ বাতিল করে অধিকৃত কাশ্মীরের পরিস্থিতির উন্নতি করতে পারবে বলে যদি ভারত সরকার যদি মনে করে ঠাকে, তাহলে তারা বোকার স্বর্গে বাস করছে। ভারত কাশ্মীরে সাংবিধানিক পরিবর্তনের মাধ্যমে সন্ত্রাসবাদকে উত্সাহিত করেছে, যার জন্য পাকিস্তান দায়বদ্ধ না।’

কয়েক দশক পর কাশ্মীর নিয়ে জাতিসংঘের সুরক্ষা কাউন্সিলের প্রথম বৈঠকের পরে কোনো বিবৃতি জারি করা হয়নি বলে পাকিস্তান হতাশ হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে আলভী বলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ে নেপথ্যে বহু আলোচনা হয়েছে এবং কাশ্মীর ইস্যু দীর্ঘদিন পর আন্তর্জাতিকীকরণ হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘ভারত কাশ্মীর নিয়ে নিরাপত্তা কাউন্সিলের অসংখ্য প্রস্তাব উপেক্ষা করেছে এবং বিরোধ নিষ্পত্তি করতে পাকিস্তানের সঙ্গে আলোচনায় বসার প্রস্তাব অস্বীকার করেছে।’

দ্বিপাক্ষিক আলোচনার এই অচলাবস্থার বিষয়ে তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, ১৯৭২ সালের সিমলা চুক্তি করার পরে পাকিস্তান ও ভারত দীর্ঘ সময় পার করেছে। দুপক্ষকে আলোচনার জন্য চাপ দিয়ে যখন তাদের মধ্যে একপক্ষ আলোচনা প্রত্যাখ্যান করে তখন বিশ্ব কতদিন চুপ করে থাকবে।

পাক প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমি মনে করি কাশ্মীরকে গ্রাস করার এক আধিপত্যবাদী উদ্দেশ্য রয়েছে (তবে) তা হবে না। পাকিস্তান কাশ্মীর ইস্যুটিকে আন্তর্জাতিকীকরণ অব্যাহত রাখবে এবং এই অঞ্চলে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের দ্বারা আরোপিত কারফিউ প্রত্যাহার করা হলে অধিকৃত কাশ্মীরের জনগণ তাদের উদ্দেশ্য পরিষ্কার করবে।’

পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সতর্কবার্তার প্রতিধ্বনি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘পুলওয়ামার মতো’ একটি মিথ্যা-পতাকা অভিযান পরিচালনা করে পাকিস্তানে আক্রমণ চালানোর সম্ভাবনা রয়েছে ভারতের। তবে পাকিস্তান যুদ্ধ শুরু করতে চায় না।

ভারতই পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধের ইচ্ছা পোষণ করে, তবে পাক প্রেসিডেন্ট নয়াদিল্লিকে সেই পথে চলতে ‘দৃঢ়ভাবে’ নিরুৎসাহিত করবেন। তিনি বলেন, ‘ভারত এমন একটি রাস্তায় চলেছে যা অত্যন্ত বিপজ্জনক। পাকিস্তান যখন তার মুসলিম জনসংখ্যা বিচ্ছিন্ন করার বিরুদ্ধে নয়াদিল্লিকে সতর্ক করেছিল, তখন উগ্রপন্থার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের অভিজ্ঞতা থেকেই বলেছিল।’

ভারত যদি সর্বাত্মক বিরোধের অবস্থা তৈরি করে তবে, পাকিস্তান কীভাবে প্রতিক্রিয়া জানাবে, এমন প্রশ্নের জবাবে আলভী বলেন, ‘পাকিস্তান ঘুমিয়ে থাকতে পারে না। ভারত যদি যুদ্ধ শুরু করে তবে নিজেদের রক্ষা করা আমাদের অধিকার।’

পাক প্রেসিডেন্ট আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অধিকৃত কাশ্মীরের পদক্ষেপ প্রত্যাহারের জন্য ভারতকে চাপ দেয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির হিন্দু জাতীয়তাবাদী বিজেপি সরকার ৫ আগস্ট তড়িঘড়ি করে রাষ্ট্রপতি আদেশের মাধ্যমে কাশ্মীরিদের সাত দশকের দীর্ঘ বিশেষ স্বায়ত্তশাসনের অধিকারটি ছিনিয়ে নিয়েছে। এই পদক্ষেপকে মাথায় রেখে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের দ্বারা পরিচালিত যোগাযোগ বিচ্ছিন্নতা এবং ভারী নিষেধাজ্ঞা ২০ দিন পার হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান


আরও
আরও পড়ুন