Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ সফর ১৪৪১ হিজরী

৫ দফা দাবীতে রোহিঙ্গাদের বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত

কুতুপালং ক্যাম্পে মহা-সমাবেশ

বিশেষ সংবাদদাতা, কক্সবাজার | প্রকাশের সময় : ২৫ আগস্ট, ২০১৯, ১০:৩৬ এএম | আপডেট : ১২:৫৫ পিএম, ২৫ আগস্ট, ২০১৯

মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গা বিতাড়ন ও 'গণ হত্যার' দুই বছর পূর্তিতে

কুতুপালং ক্যাম্পে মহা-সমাশ করেছে রোহিঙ্গারা। সমাবেশে তারা তাদের অধিকার আদায়ে ৫ দফা দাবী আদায়েরও ঘোষনা দেয়। 
   
উখিয়া টেকনাফসহ কক্সবাজারের সবর্ত্র কথা উঠেছে এনজিওদের ঠেলায় সাহস বেড়েছে রোহিঙ্গাদের। নানা অজুহাতে তারা দুই দফায় প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া ব্যর্থ করে দেয়ার পর এবার রোহিঙ্গা ক্যাম্পেই ডেকেছ রোহিঙ্গা মহা সমাবেশ।
  
মিয়ানমারের আরাকান থেকে নির্যতনের মুখে রোহিঙ্গা বিতাড়নের দুই বছর পূর্ণ হয়েছে আজ ২৫ আগষ্ট। দিনটিকে ' গণহত্যা দিবস ' ঘোষণা দিয়ে রোহিঙ্গা বিতাড়নের দুই বছর পূর্তিতে রোহিঙ্গারা আজ মহা-সমাবেশের ডাক দিয়েছিল।
 
এজন্য বিশ্বের সবচেয়ে বড় শরণার্থী শিবির খ্যাত উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের একটি মাঠে প্রস্তত করা হয়েছিল মঞ্চ। 
 
রবিবার ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের দুই বছর পূর্তিতে এসে বড় ধরনের শোডাউন করেছ মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত রোহিঙ্গা শরণার্থীরা। পেছনে রয়েছে কতিপয় এনজিওদের উস্কানী ও সহযোগিতা।   
 
২৫ আগস্ট সকাল ৯টা শুরু হয়ে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলে এ সমাবেশ। আয়োজকদের মতে পাঁচ লাখ রোহিঙ্গা যোগ দিয়েছে এই সমাবেশে।  
 
'আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস' নামক সংগঠনের চেয়ারম্যান মুহিব বুল্লাহ, আব্দুর রহিম ও মুহাম্মদ ইলিয়াছসহ অন্যান্য রোহিঙ্গা নেতারা বক্তব্য রাখেন এতে। 
 
তারা বলেন, ‘বিশ্ববাসীর সামনে রোহিঙ্গাদের দাবি তুলে ধরতে চাই। মিয়ানমারে তাদের নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দিতে হবে এবং ভিটেমাটি ফিরিয়ে দিয়ে গনহত্যার বিচার করে তাদের প্রত্যাবাসন করতে হবে। 
 
সমাবেশ ঘিরে আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক অবস্থানে ছিলেন। 
সমাবেশে আগতরা পতাকা, ব্যানার-পোস্টার ও প্ল্যাকার্ড বহন করে।
 
সমাবেশের শেষে নিহত রোহিঙ্গাদের জন্য দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। 


 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রোহিঙ্গা


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ