Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

পাঠক না যন্ত্র?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০২ এএম

মানুষের কণ্ঠ হুবহু নকল করে সংবাদ কিংবা বই পাঠ করবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি। তাহলে কি সংবাদ পাঠক হিসেবে মানুষের প্রয়োজন ফুরিয়ে যাচ্ছে?

সংবাদ পাঠ কিংবা অডিও বই তৈরিতে মানুষের জায়গা নেবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই)। গত সপ্তাহে চীনা অনলাইন সাহিত্য সম্মেলনে দেশটির সার্চ ইঞ্জিন সোগো এআইভিত্তিক পাঠক তৈরির পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে।
এআই ব্যবহার করে এমন এক ধরনের অবয়ব তৈরির কথা জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এতে দেশটির বিখ্যাত দুই লেখকের সঙ্গে মিল থাকবে। অডিও বইয়ের মান আরও বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
এ জন্য প্রথমে পরীক্ষামূলকভাবে দুই জন লেখকের পঠন নিয়ে কাজ করা হবে। যদি সফলতা পাওয়া যায়, তাহলে পর্যায়ক্রমে আরও বেশ কয়েকজন লেখককে নিয়ে কাজ করা হবে বলে সোগো জানিয়েছে।

চীনে অডিও বইয়ের বাজার দিন দিন বেড়েই চলেছে। আইমিডিয়া রিসার্চ গ্রুপের মতে, চীনে ২০২০ সালে এই বাজার ১০০ কোটি ডলার ছাড়িয়ে যাবে। এ জন্যই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রয়োগ যথেষ্ট সম্ভাবনা নিয়ে আসবে।
‘আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স : এমব্রেসিং হিউম্যানিটি টু ম্যাক্সিমাইজ মেশিনস’ বইয়ের লেখক জন সি হেভেনস বলেন, এটি যদি সফল হয়, তাহলে অ্যালেক্সা, সিরির মতো সহকারীর জায়গায় মানুষ যেমন নিজের কণ্ঠ শুনতে চায়, ঠিক একইভাবে অডিও বইয়ের ক্ষেত্রে এই প্রযুক্তি প্রয়োগ করা হবে।

এ ক্ষেত্রে এআই ব্যবহারের মূল সুবিধা হলো টেক্সট-টু-স্পিচ প্রযুক্তি ব্যবহার করলে যে এক ধরনের যান্ত্রিক আবহ আসে সেটি আর থাকবে না। সরাসরি লেখকের হুবহু কণ্ঠেই একজন শ্রোতা তা উপভোগ করতে পারবেন। এ জন্য লেখককে ঘণ্টার পর ঘণ্টা শ্রমও ব্যয় করতে হবে না।
তবে নতুন প্রযুক্তিগুলো সহজপ্রাপ্য হলে মানুষের মনে হয়তো একটাই প্রশ্ন ঘুরপাক খাবে- পাঠক না যন্ত্র? সূত্র : ফরচুন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ