Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, ০৬ মাঘ ১৪২৭, ০৬ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

২০২৪ সালের মধ্যে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ১০ শতাংশ হবে, যা অব্যাহত থাকবে- অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে আইএফএডি বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের কান্ট্রি ডিরেক্টরের সাক্ষাৎ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৯ আগস্ট, ২০১৯, ৭:৫৬ পিএম | আপডেট : ৯:০৫ পিএম, ২৯ আগস্ট, ২০১৯

ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর এগ্রিকালচারাল ডেভলপমেন্টের (আইএফএডি) বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের কান্ট্রি ডিরেক্টর ওমর জাফর বৃহষ্পতিবার (২৯ আগস্ট) শেরে বাংলানগরে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে মন্ত্রীর দপ্তরে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। সাক্ষাৎকালে অর্থমন্ত্রী আ হ মুস্তফা কামাল বলেন, কৃষি উন্নয়নে সহায়তার জন্য আন্তর্জাতিক সংস্থা হিসেবে অত্যন্ত সহজ শর্তে কৃষি উন্নয়নে আন্তর্জাতিক কৃষি উন্নয়ন তহবিলের (ইফাদ) সদস্য দেশগুলোর মধ্যে ঋণ ও অনুদান প্রদান করার সুনাম রয়েছে। বাংলাদেশের সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) অর্জনে অভূতপূর্ব সাফল্যের পর, ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে ইফাদ কার্যকর সহায়তা প্রদানে কাজ করে যাচ্ছে। ইফাদ বাংলাদেশ সরকারের দীর্ঘ ও মধ্য মেয়াদে বাস্তবায়নের নিমিত্তে প্রণিত কৌশলগত পরিকল্পনার সঙ্গে সাযুজ্যকরণের মাধ্যমে দেশের আর্থ-সামজিক উন্নয়নসহ পল্লী উন্নয়ন, দারিদ্র বিমোচন এবং পরিবেশ রক্ষা ও উন্নয়নে বিভিন্ন ধরনের গুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

ওমর জাফর বাংলাদেশে ইফাদের উদ্বোধনের জন্য অপেক্ষমান স্থায়ী আঞ্চলিক কার্যালয় উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রীকে প্রধান অতিথি করার আগ্রহ প্রকাশ করলে, অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, এটি খুবই ভাল পদক্ষেপ। স্থায়ী আঞ্চলিক কার্যালয়ের মাধ্যমে ইফাদের কার্যক্রম আরো বেগবান হবে এবং নতুন মাত্রা পাবে। কাজের পরিসর বাড়বে। চলতি অর্থবছরেই আমরা ৮ দশমিক ২৫ শতাংশ থেকে ৮ দশমিক ৩০ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনের প্রত্যাশা করছি, যা ২০২৪ সাল নাগাদ দাড়াবে ১০ শতাংশ এবং সেটা অব্যাহত থাকবে। বিশ্বে যে কয়েকটি দেশের রপ্তানি আয় খুব দ্রুত বাড়ছে, তার মধ্যে বাংলাদেশ একটি। বাংলাদেশের মানুষের ঋণ জিডিপি অনুপাতে যে কোন দেশের তুলানায় কম।

ঘন ঘন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জনসংখ্যা বৃদ্ধি স্বত্তেও খাদ্য নিরাপত্তায় বাংলাদেশ একটি প্রশংসনীয় অগ্রগতি অর্জন করেছে। স্বাদু পানির মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ বর্তমানে বিশ্বের চতুর্থ স্থানে রয়েছে। বাংলাদেশ এমডিজি অর্জনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে এবং ইতোমধ্যে ২০২১ সাল নাগাদ মধ্যম আয়ের দেশের স্থিতি অর্জন এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের লক্ষ্য অর্জনের জন্য সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা সম্বলিত এসডিজি মূলধারার দিকে অগ্রসর হয়েছে। বাংলাদেশে ফল ও সব্জী যেমন- আম, আলু, আখ ইত্যাদি প্রক্রিয়াকরণের ক্ষেত্রে ইফাদের জন্য বড় সম্ভাবনা রয়েছে।

ইফাদের বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের কান্ট্রি ডিরেক্টর ওমর জাফর বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে আইএফএডি’র ১ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিয়োগ রয়েছে, যা বিশ্বব্যাপী আইএফএডি’র তৃতয়ি বৃহত্তম বিনিয়োগ। সারা বিশ্বব্যাপী ইফাদের ২৫০ টি প্রকল্পের শীর্ষ ১০টির মধ্যে বাংলাদেশের ৩টি প্রকল্প রয়েছে এবং প্রথম স্থানটিও বাংলাদেশের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ বাস্তবায়িত উপকূলীয় জলবায়ু স্থিতিস্থাপক অবকাঠামো প্রকল্প।

বর্তমানে বাংলাদেশে সাতটি চলমান প্রকল্প রয়েছে যা পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন, কৃষি মন্ত্রণালয়, স্থাণীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর, পানি উন্নয়ন বোর্ড বাস্তবায়ন করবে। আরো দুটি প্রকল্প নকশা বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। ওমর জাফর এই প্রকল্পগুলির বাস্তবায়নের অগ্রগতি সম্পর্কে মন্ত্রীকে অবগত করেন এবং তাদের অংশীদারিত্ব আরও বাড়ানোর বিষয়ে দিকনির্দেশনার আশা ব্যক্ত করেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: অর্থমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ