Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

গুম-খুনের দায়ে এ সরকারের মানবতাবিরোধী অপরাধে বিচার হবে -মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩০ আগস্ট, ২০১৯, ৮:১৭ পিএম

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, গুম-খুনের জন্য আওয়ামী লীগ সরকারকে একদিন মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত হবে। গুম হওয়া দলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি এম ইলিয়াস আলীর পরিবারের সাথে শুক্রবার বনানীর বাসায় সাক্ষাতের পর বিএনপি মহাসচিব সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
মির্জা ফখরুল বলেন, এনফোর্স ডিজএপিয়ারেন্স- এটা সম্পূর্ণরূপে মানবতা বিরোধী একটা অপরাধ। জাতিসংঘের যে চার্টার্ড আছে সেই চার্টার্ডে পরিষ্কার করা হয়েছে -দিস ইজ এ ক্রাইম এগেনেস্ট হিউমেনেটি। আজকে এই সরকার অভিযুক্ত হবে এই ক্রাইম এগেনেস্ট হিউমিনেটির জন্যে। আমরা একটা জিনিসে বিশ্বাস করি, একদিন না একদিন এই মানবতা বিরোধী অপরাধের জন্যে বিচার হবেই। আজকে বাংলাদেশে গণতন্ত্রহীনতা আছে, জনগণের প্রতিনিধি নেই। সত্যিকার অর্থে যেদিন জনগণের প্রতিনিধির সরকার গঠিত হবে সেইদিন এর বিচার অবশ্যই হবে।
নিখোঁজ ব্যক্তিরা তাদের পরিবারের কাছে ফিরে আসবে এরকম প্রত্যাশা ব্যক্ত করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে ইলিয়াস আলীর বাসায় এসেছি তার ছোট মেয়ে আমাদের সামনে আসেনি। আসেনি এজন্য কারণ সে অত্যন্ত বিব্রতবোধ করে কষ্ট পায়। আমর মনে আছে ৬ বছর আগে যখন এখানে আসি আপনারা সবাই দেখেছেন ফুটফুটে একটা বাচ্চা মেয়ে প্রতিদিন বাবার জন্য অপেক্ষা করত। আজো সে তার বাবার প্রতীক্ষায় আছে। আমরাও তাদের পাশে আছি। আমরা আশা করবো, ভবিষ্যতে এর একটা সুষ্ঠু বিচার হবে।
২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল মধ্য রাতে মহাখালীর সাউথ পয়েন্ট স্কুলের সামনে থেকে সাদা পোশাকের সদস্যরা ইলিয়াস আলী ও তার গাড়ি চালককে তুলে নিয়ে যায়।
বিকালে বিএনপি মহাসচিব ইলিয়াস আলীর বাসায় যান। তিনি তার স্ত্রী তাহসিনা রুশদী লুনা ও তার বড় ছেলে আবরার ইলিয়াসের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের খোঁজ-খবর নেন।

ইলিয়াস আলীর দুই ছেলে এক মেয়ে। বড় ছেলে আবরার ইলিয়াস পশ্চিম ইংল্যান্ড থেকে ব্যারিস্টারি পাস করেছেন, ছোট ছেলে মো. লাবিব শারর ইংল্যান্ডের কভেন্ট্রি বিশ্বাবিদ্যালয়ে এবং ছোট মেয়ে সায়ারা নাওয়াল বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজে অধ্যায়ন করছেন।
মির্জা ফখরুর বলেন, আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান গতকাল পরামর্শ দিয়েছেন, আজকে যে, আমরা এই গুম দিবসে আমাদের দলের যারা গুম হয়েছেন যথা সম্ভব তাদের বাসায় যাওয়ার চেষ্টা যেন করি। আমি ইলিয়াস আলীর বাসাসহ চারটি বাসায় গিয়েছি। আমাদের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ঢাকা শহরে যারা আছেন তাদের বাসায় গিয়েছেন। গুম হওয়া পরিবারের সাথে আমরা সবসময় যোগাযোগ রাখি, চেষ্টা করি তাদের পাশে দাঁড়ানোর। তাদের কষ্ট আমরা ভাগ করে নিতে পারি না কিন্তু তাদের কষ্টটা আমরা অনুভব করি।
গুম হওয়া পরিবারের অসহায় অবস্থার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, কিছুক্ষন আগে আমি দক্ষিনখানে গিয়েছিলাম ছাত্র নেতা তারিকুল ইসলাম ঝুন্টুর বাসায়। তার মা বলছিলেন, আমর এই ছেলেটা ছিলো সবচেয়ে ভালো ছেলে, অনার্সে ফাস্ট ক্লাস পেয়েছিলো। মা বলছিলেন যে, তাকে সালাম না করে কোনোদিন ঘুমোতে যেতো না। সেই ছেলে গুম হয়ে গেছে। কিছুদিন পরে ছেলের বাবা অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন। তাদের তৃতীয় সন্তান দূর্ঘটনায় পা ভেঙে গেছে-এই পরিবারটি অত্যন্ত অসহায় অবস্থায় আছে।
নিজামুদ্দিন মুন্নার বাসায় গিয়েছিলাম। অনেক কষ্ট করে এই ছেলেটি বিএ পাস করেছিলো। তার বাবা এমন কোনো জায়গা নাই যাননি, ভারতেও গেছেন, বহু জায়গায় গিয়ে ছেলেকে না পেয়ে শেষ পর্যন্ত অসুখ হয়ে বাবা মারা গেছেন। এমন অনেক পরিবার আছে যারা অবর্ননীয় কষ্টের মধ্যে আছেন। আমরা যথা সম্ভব চেষ্টা করছি তাদের পাশে দাঁড়ানোর। আজকে গুম দিবসে আমি এই মানবতা বিরোধী অপরাধের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।
ইলিয়াস আলী, নিজামুদ্দিন মুন্না ও তারিকুল ইসলাম ঝন্টুর বাসা ছাড়াও নাখালপাড়ায় সাজেদুল ইসলাম সুমনের বাসায়ও যান মহাসচিব। এ সময়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান, শহিদুল ইসলাম বাবুল, ব্যারিস্টার ফারজানা শারমিন, এসএম জাহাঙ্গীর, শায়রুল কবির খান, সাহাবুদ্দিন সাগর, আলী আকবর আলী, জুলহাস পারভেজ, মুনির হোসেন, আফাজউদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
বিকালে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বংশালে মো. সোহেল, জহিরুল ইসলাম জহির, পারভেজ হোসেন, মো. চঞ্চল, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় সূত্রাপুরের খালিদ হোসেন সোহেল, সেলিম রেজা পিন্টু, স¤্রাট মোল্লা এবং সেলিমা রহমান সবুজবাগে মাহবুব হাসান সুজন ও কাজী ফরহাদ হোসেনের বাসায় গিয়ে তাদের পরিবারের খোঁজ খবর নেন।
গুম হওয়া পরিবারদের জন্য নেতৃবৃন্দ তারেক রহমানের পক্ষ থেকে ফল নিয়ে যান।



 

Show all comments
  • Abul Mia ৩০ আগস্ট, ২০১৯, ১০:২২ পিএম says : 0
    বিচার হবে হবে হবে ..... কবে কবে কবে ???
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মির্জা ফখরুল


আরও
আরও পড়ুন