Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৪ কার্তিক ১৪২৬, ২০ সফর ১৪৪১ হিজরী

যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ

চাঁদপুরে স্টিমার পিএস টার্ন ও মাহ্সুদ বিকল

স্টাফ রিপোর্টার, চাঁদপুর থেকে : | প্রকাশের সময় : ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

 

বিআইডাবিøউটিসি’র পরিবহন পিএস মাহ্সুদ ও পিএস টার্ণ নামে দু’টি স্টিমার বিকল হয়ে চাঁদপুর রকেট ঘাটে পড়ে আছে। পিএস টার্ণ গত শনিবার রাত ১১টায় এবং পিএস মাহ্সুদ গত ২৪ দিন আগে বিকল হয়।
পিএস টার্ণের যাত্রীরা নির্ধারিত সময়ে গন্তব্য না যেতে পেরে দুর্ভোগের মধ্যে রয়েছেন। প্রায় ২ শতাধিক যাত্রী রোববার মধ্যরাত পর্যন্ত চাঁদপুর রকেট ঘাটে অবস্থান করেন। গতকাল রোববার দুপুর ২টায় চাঁদপুর শহরের স্টিমার ঘাটে দেখা গেছে পিএস মাহ্সুদ ঘাটের জেটির সাথে বাঁধা এবং তার পাশেই ডাকাতিয়া নদীর মাঝ বরাবর বাঁধা রয়েছে পিএস টার্ণ।

স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে ঢাকা সদরঘাট থেকে শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় পিএস টার্ণে বাঘেরহাট যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন মো. শাহজাহান। তিনি বলেন, রকেটটি চাঁদপুর ঘাটে যাত্রী নামিয়ে পুনরায় ছাড়ার জন্য প্রস্তুতি নিলে বিকল হয়ে পড়ে।

বরিশালের আরেক যাত্রী শামছুল হক বলেন, তিনি স্ত্রীকে নিয়ে রকেটে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে উঠেছেন। বিকল হওয়ার পরে খুবই সমস্যার মধ্যে আছি। এখন পর্যন্ত গন্তব্যে যাওয়ার জন্য কোন রকেট কিংবা লঞ্চ পাইনি। রোববার রাতে লঞ্চ পাওয়া গেলে হয়ত যাওয়া যাবে।
রকেট ঘাটের জ¦ালানি ব্যবসায়ী হাজী বিল্লাল মিয়াজী বলেন, প্রায় ১ মাস বিকল হয়ে ঘাটে পড়ে আছে পিএস মাহ্সুদ। পিএস টার্ণ শনিবার রাতে বিকল হওয়ার পর থেকে কিছু যাত্রী নেমে অন্য রুটে গেলেও এখন পর্যন্ত অসংখ্য যাত্রী খুবই দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

বিআইডাবিøউটিসি’র চাঁদপুর স্টিমার ঘাটের সহকারী ম্যানেজার মো. মনির হোসেন বলেন, ২৪ দিন আগে পিএস মাহ্সুদ ইঞ্জিনের সাথে পাখার সংযোগ দেয়া রাবার ডিস্ক লারনার নষ্ট হয়ে যায়। পরে এটি মেরামতের জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। এটি মেরামত খুবই সু² কাজ। তাই আরো ৮ থেকে ১০দিন সময় লাগবে। তিনি আরো বলেন, পিএস টার্ণ শনিবার রাতে চাঁদপুর ঘাটে যাত্রী নামিয়ে পুনরায় ছাড়ার সময় পাখার ৪টি পাতা বাকা হয়ে যাওয়ায় ইঞ্জিনে বিকট শব্দ হতে থাকে। বাকা পাতা উল্টো ঘুরার কারণে ইঞ্জিন চালানো সম্ভব হয়নি। এই বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চাঁদপুর


আরও
আরও পড়ুন