Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

তিন তালাক কুরআনে থাকলে মুসলিম দেশগুলো নিষিদ্ধ করলো কেনো?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ২:৩৭ পিএম

রাজধানী নয়াদিল্লির কনস্টিটিউশন ক্লাবে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে তিন তালাক মামলায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ভাষণে বলেছেন, কয়েকটি বিরোধী দল তিন তালাক বিল নিয়ে তীব্র সমালোচনা করেছেন। আমি তাদেরকে বলবো তিন তালাক বিষয়ে যদি কুরআনে থাকে তাহলে মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে অনেক দেশ এ আইন কেনো বাতিল করেছে?।

তিনি আরো বলেন, বিজেপির আগে বিভিন্ন রাজনীতির কারণে এত বছর ধরে তিন তালাক অব্যাহত ছিল। আমরা যখন পুরো সমাজের কথা চিন্তা করে সমাজের সাথে হাঁটছি, তখন আমাদের আমাদের ব্যপারে অনেকে নাক গলাচ্ছে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ আরো বলেন, ‘কংগ্রেসের তৃপ্তি মত তাদের রাজনীতি শেষ করতে ৫৬ বছর সময় লেগেছে। তিন তালাক যদি কুরআনের অংশ হত তবে বিশ্বের মুসলিম দেশ কেন তা বাদ করেছে?’

অমিত শাহ বলেন, মোদী সরকার এখন মুসলিম মা-বোনদের ট্রিপল তালাক থেকে বের করে নিয়েছে। অনেক লোক অভিযোগ করে যে আমরা মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে কাজ করেছি। আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই তিন তালাকের অবসানের সাথে সাথে মুসলিম সমাজের মহিলারা সমঅধিকার পাবে।

শাহ আরও বলেন, ট্রিপল তালকের সামাজিক অনুশীলন শেষ হওয়ার পরে রাজা রাম মোহন রায়, জ্যোতিবা ফুল, মহাত্মা গান্ধী এবং ডাঃ ভীমরাও আম্বেদকরের মতো সমাজ সংস্কারকদের তালিকায় এখন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নাম যুক্ত হয়েছে। সমাজ সংস্কারক হিসাবে প্রধানমন্ত্রী মোদী সমাজের মানুষের কাছে এখন মহা সম্মানের।

উল্লেখ্য, গত মাসে তিন তালাক বিল পাস হয়েছিল ভারতের লোকসভায়। রাজ্যসভায় পাস হয়েছে MZ ৩০ জুলাই সন্ধ্যায়। বিলটির পক্ষে ভোট দিয়েছেন ৯৯ জন সাংসদ। ৮৪ জন সাংসদ দিয়েছেন বিপক্ষে।

লৈঙ্গিকগত বিচারের তিন তালাক বিল পাস হওয়াকে জয় হিসেবে দেখছে নরেন্দ্র মোদীর নের্তৃত্বাধীন বিজেপি সরকার। তবে কংগ্রেস এটিকে ঐতিহাসিক ভুল হিসেবে দেখছেন।

তিন তালাক বিল নামে পরিচিত এ বিলটির মূল নাম মুসলিম উইমেন (প্রোটেকশন অব রাইটস অন ম্যারেজ)। মূলত মুসলিম নারীদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য বিলটি প্রণয়ণ করেছে ভারতের রাজ্যসভা।

এখন থেকে ভারতে তিন তালাক দিয়ে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটালে তা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ বা ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে নেওয়া হবে। মুসলিম সমাজে তিনবার তালাক দিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটানোর প্রচলন আছে। তবে এখন থেকে ভারতে এ অপরাধ করলে স্বামীকে তিন বছর কারাদণ্ড দেওয়া হবে।

ঐতিহাসিক এ বিল জয়ের পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জানিয়েছেন, মধ্যযুগীয় অনুশীলন’ ইতিহাসের ডাস্টবিনে ছুঁড়ে দেওয়া হয়েছে এবং দেশ আজ আনন্দ-উৎসব করছে।

রাজ্যসভায় বিল পাসের কয়েক মিনিটের মধ্যে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে লিখেন, ভারত আনন্দ করছে আজ। নরেন্দ্র মোদী তিন তালাক বিল পাসের জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন তার পার্টির সব সাংসদকে।



 

Show all comments
  • shahadat hossin ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৩:৩৬ পিএম says : 1
    পাগল হয়েছে
    Total Reply(0) Reply
  • Fayz ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৫:০৯ পিএম says : 0
    ওরা হলো ....।তাদের ইসলাম নিয়ে মাথা ব্যাথা কেন? ......রা ইসলামের কি বুজবে।..............
    Total Reply(0) Reply
  • মুরাদুল ইসলাম ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:২৫ এএম says : 0
    ত্যাগ করলে বা ভোগ করলেও দোষ নে, দোষ শুধু ইসলামী নিয়মে তালাক বললে। অন্যথায় মদি নিজেই যতদূর জানি তার স্ত্রীকে বিচ্ছেদ করেছে ।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ