Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

কেরানীগঞ্জে ব্যবসা করতে পারছে না বৈধ আইএসপি

স্টাফ রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:২১ এএম

কেরাণীগঞ্জে ব্যবসা করতে পারছেন না লাইসেন্সধারী ইন্টারনেট সেবাদানকারী (আইএসপি) প্রতিষ্ঠানগুলো। স্থানীয় প্রভাবশালী মহলের কাছ থেকে ব্যবসায় অবৈধভাবে পার্টনারশিপ দাবি, মাসিক চাঁদা নির্ধারণসহ হয়রানি ও হুমকির অভিযোগ করেছে ৭টি প্রতিষ্ঠান। এ থেকে মুক্তি পেতে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বিটিআরসি ও ইন্টারনেট সেবাদানাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি) এর নিটক লিখিত আবেদন করেছে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। স্থানীয় প্রভাবশালীদের হুমকি-ধামকির কারণে কেরাণীগঞ্জ থানায় জিডিও করেছে জিঞ্জিরা এক্সপ্রেস নামের একটি প্রতিষ্ঠানের প্রধান।

বিটিআরসি ও আইএসপিএবি সূত্রে জানা যায়, কেরাণীগঞ্জে লাইসেন্সধারী জিঞ্জিরা এক্সপ্রেস, ইলমা মাল্টিমিডিয়া, ফাস্ট অনলাইন, ওয়ার্ল্ড কমিউনিকেশন ইন্টারনেট সার্ভিস, দেওয়ান ডট নেট, নিউ টপ লিঙ্ক ও কমান্ডার নেট নামে ৭টি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ করা হয়। অভিযোগে প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়, তারা দীর্ঘদিন ধরে কেরাণীগঞ্জ এলাকায় বৈধভাবে ইন্টারনেট সেবা প্রদান করে আসছেন। কিন্তু সম্প্রতি কিছু অবৈধ এবং লাইসেন্সবিহীন প্রতিষ্ঠান এই ব্যবসার সাথে যুক্ত হয়েছে। যারা স্থানীয় প্রভাবশালী হিসেবে পরিচিত। তারা বৈধ লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে বন্ধ করে দিতে এবং ইন্টারনেট বক্স খুলে নিতে বলছে। তা না হলে পরিণাম ভালো হবে না বলে হুমকি দিচ্ছে। তাদের কথা না শোনায় জিঞ্জিরা এক্সপ্রেস নামের আইএসপি প্রতিষ্ঠানটি তারা দলবল নিয়ে এসে দখল করে নিয়েছে। নানারকম ভয়-ভীতি প্রদর্শনের কারণে এই প্রতিষ্ঠানটির স্বত্ত¡াধিকারী শেখ মশিউর রহমান মানিক ওই এলাকা ছাড়াও হয়েছেন। এজন্য তিনি কেরাণীগঞ্জ মডেল থানায় গত ৪ আগস্ট সাধারণ ডায়েরি করেন। জিডি নং- ১৩৭।

এবিষয়ে মশিউর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই কেরাণীগঞ্জে আইএসপি ব্যবসা করে আসছেন। কিন্তু আরাফ ইলেক্ট্রনিক এন্ড কম্পিউটার সার্ভিসিংয়ের মোঃ আক্তার বিসমিল্লাহ টেলিকম সার্ভিস নামে অবৈধভাবে ব্যবসা করছে। একইভাবে এ্যানি ক্যাবল টিভির ঢাকা টেকসহ আরও কয়েকজন স্থানীয় প্রভাবশালী অবৈধভাবে ব্যবসা শুরু করেছে। তারা আমাদের অফিসে অফিসে এসে ব্যবসা বন্ধ করে দেয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছে। আর করলে কাউকে তার ব্যবসার অর্ধেক পার্টনারশিপ বা কাউকে নির্দিষ্ট চাঁদা দেয়ার শর্তে ব্যবসা করতে বলা হচ্ছে। এছাড়াও নানা ধরণের হুমকী-ধামকি দেয়া হচ্ছে। তাদের অত্যাচারের কারণে আমি এখন অফিস এবং এলাকা ছাড়াতে বাধ্য হয়েছি।

মশিউর জানান, বিষয়টি তারা স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যানকে অবহিত করেছেন এবং তিনি থানায় জিডি করেছেন। কিন্তু এখনো কোন সমাধান হয়নি।

কেরাণীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ জানান, কয়েকটি আইএসপি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি তার কাছে এসেছিলেন, তাদের কিছু ব্যবসায়িক ঝামেলার বিষয়ে তাকে অবহিত করেছেন। তিনি জানান, খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছেন এটি তাদের ব্যবসায়িক পার্টনারশিপ নিয়ে দ্ব›দ্ব। তিনি তাদের নিজেদের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে সবকিছুর সমাধান করতে বলেছেন।

এ বিষয়ে আইএসপিএবি’র সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক বলেন, লাইসেন্স যাদের আছে, বিটিআরসির নীতিমালা অনুয়ায়ী তারাই ব্যবসা করবে। নতুন যারা ব্যবসা করতে চায় তারা লাইন্সে নিয়ে, সরকারের আইনকানুন মেনে ব্যবসায় আসতে পারে। কিন্তু পেশী শক্তি দিয়ে বা ক্ষমতা আছে, শক্তি আছে এটি দেখিয়ে আমি থাকবো, অন্য কাউকে ব্যবসা করতে দিব না, বের করে দেবো এটা যেনো না হয়। তিনি বলেন, কেরাণীগঞ্জের বিষয়ে তাদের কাছে অভিযোগ এসেছে, বিষয়টি তিনি সরকার, স্থানীয় প্রশাসনকে দেখার অনুরোধ জানান। এছাড়া বিটিআরসি’র এই বিষয়টি দেখা উচিত বলেও মনে করেন তিনি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ