Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

এনজিও অফিসে দেশীয় অস্ত্র

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‘মুক্তি’র পর ‘শেড’ থেকে দা-কুড়াল উদ্ধার

বিশেষ সংবাদদাতা, উখিয়া, কক্সবাজার থেকে | প্রকাশের সময় : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:০৬ এএম

বারবার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের জন্য তৈরি করা এনজিওদের অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় উখিয়া-টেকনাফসহ গোটা কক্সবাজারে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। জনমনে দেখা দিয়েছে চরম উদ্বেগ উৎকন্ঠা। গতকাল রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে কর্মরত ‘শেড’ নামে একটি এনজিও অফিস কাম গোডাউন থেকে বিপুল সংখ্যক দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে উখিয়া উপজেলা প্রশাসন। ‘মুক্তি’র মত শেডের এসব দেশীয় অস্ত্রও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সরবরাহের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছিল বলে জানা গেছে। উখিয়া উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফখরুল ইসলাম বৃহস্পতিবার) দুপুর ১ টার দিকে উখিয়া উপজেলা সদরের রাজাপালং ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের মালভিটা পাড়ায় শেড এর অফিসে অভিযান চালিয়ে দেশীয় এসব অস্ত্র উদ্ধার করেন।

নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ফখরুল ইসলাম জানান, উদ্ধার হওয়া দেশীয় অস্ত্রের মধ্যে নিড়ানী, কোদাল, বেলচা, বল্লম, লাটি, বাটসহ বিভিন্ন ধরণের দেশীয় অস্ত্র রয়েছে। উদ্ধার করা মালামাল জব্দ করে সহকারি কমিশনার ভূমি এর কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানে উদ্ধার করা মালামালের জব্দ তালিকা তৈরি করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, তারা এর জন্য সঠিক কাগজপত্র দেখাতে না পারলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ অভিযানের প্রত্যক্ষদর্শী সংবাদকর্মিরা জানান, শেড এর কার্যালয় হতে উদ্ধার হওয়া দেশীয় অস্ত্রের সংখ্যা প্রায় এক হাজার হতে পারে। তবে অভিযানের সময় শেড এর কার্যালয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। শেড এর পরিচালক সরওয়ার আলম পলাতক রয়েছেন। এদিকে উখিয়া টেকনাফসহ গোটা কক্সবাজার এলাকায় বারবার এনজিওদের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের জন্য অস্ত্র তৈরির ঘটনা ফাঁস হয়ে পড়ায় ব্যাপক আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। এ প্রসঙ্গে উখিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী বলেন, ইউএনএইচসিআর-এবং আইওএম বিভিন্ন এনজিওদের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের অস্ত্র দিয়ে আমাদের সাথে সংঘাত লাগাতে চাচ্ছে। তিনি আরো বলেন এসব এনজিওদের মনোভাব ভাল নয়। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। গত ক’দিন আগে মুক্তি নামে আরো একটি এনজিও প্রায় ৫ হাজার দেশীয় অস্ত্র উদ্ধারের পর এক সপ্তাহের মাথায় শেড অফিস থেকে সরাসরি দেশীয় অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনা ঘটলো।

এ অস্ত্র উদ্ধারের পর সরেজমিনে উখিয়া ঘুরে জনগণের সাথে কথা বলে জানা যায় এনজিওগুলোর ব্যাপারে সাধারণ জনগন মারাত্মকভাবে ক্ষুব্ধ। তাদের প্রশ্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তো এসব অস্ত্রের কোন প্রয়োজন নেই। তা হলে এর উদ্দেশ্য কি? নিশ্চয়ই রোহিঙ্গাদের মারমুখো করে তোলা। স্থানীয়দের সাথে সংঘাতে জড়ানো।

উখিয়ার স্থানীয়রা জানান, কয়েকমাস আগে থেকে এ রকম বেশ কিছু অস্ত্র রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছানো হয়েছে বলে তাদের সন্দেহ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রোহিঙ্গা ক্যাম্প

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ