Inqilab Logo

শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮, ২০ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

হালাল অর্থনীতিতে ভিত্তি গড়ছে ইন্দোনেশিয়া

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৪:৪৯ পিএম

চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে হালাল অর্থনীতির ভিত্তিকে মজবুত করছে মুসলিম অধ্যুষিত দেশ ইন্দোনেশিয়া৷ হালাল খাবার, হালাল ফ্যাশন, শরিয়া ব্যাংকিং, হালাল আবাসনসহ নানা খাতে ধর্মীয় অনুশাসন মেনে ব্যবসা-বাণিজ্যকে চাঙ্গা করে তুলেছে তারা, যারা প্রভাব পড়েছে দেশটির জিডিপি প্রবৃদ্ধিতেও৷

ইন্দোনেশিয়ার এমটিভির সাবেক ভিডিও জকি অরি অ্যান্টুং বলেন, তিনি নিয়মিত মদ পান করতেন, জিনস পরতেন, চুল স্পাইক করতেন এবং নামে মাত্র মসুলমান ছিলেন৷ কিন্তু ইসলামের রক্ষণশীলরা অনলাইনে ব্যাপক প্রচারণা চালান৷ যার মধ্য দিয়ে বিশ্বের সর্বাধিক জনবহুল মুসলিম দেশের ভিত্তি অর্জন করে ফেলে ইন্দোনেশিয়া এবং এর অর্থনীতিতে এটা পরিবর্তন আনে৷ তিনি নিজেও এখন ইসলামী শরীয়া অনুযায়ী মুসলিমদের জন্য প্রার্থনা উৎসবের আয়োজন করেন৷ অন্টুং বলেন, সামাজিক পরিবর্তনগুলোকে মাথায় রেখে আবাসন থেকে শুরু করে শরিয়া ব্যাংকিংকে উৎসাহিত করা হচ্ছে৷

ইন্সটাগ্রাম এবং টুইটারে যৌথভাবে দুই কোটিরও বেশি ফলোয়ার রয়েছে এমন সেলিব্রিটিরাও ইন্দোনেশিয়ার ‘হিজরত’ আন্দোলনে সম্পৃক্ত হন৷ অন্টুংয়ের মতে, ইসলামী অর্থনীতিকে আরও মূলধারায় আনার লক্ষ্য নিয়ে এটা করা হয়েছে৷

ইন্দোনেশিয়ার ২১৫ মিলিয়ন মুসলিম ঐতিহ্যগতভাবে মধ্যপন্থি এবং তাদের বিশ্বাসে প্রায়ই স্থানীয় রীতিনীতিগুলো অন্তর্ভুক্ত রয়েছে৷

অলাভজনক শরিয়াহ অর্থনীতি সমিতির সেক্রেটারি জেনারেল অডি সেতিয়াদি বলেন, রক্ষণশীলদের সংখ্যা এখন বাড়ছে এবং ফলে সংস্থাগুলোও ইসলামিক ব্র্যান্ডিং এবং মার্কেটিং পদ্ধতি বেছে নিয়েছে৷

রেস্তোঁরাগুলো তাদের হালাল প্রশংসাপত্র সুরক্ষার জন্য তোড়জোড় চালাচ্ছে, যার মধ্য দিয়ে তারা বোঝাতে চায় তারা ইসলামী আইন মেনে চলে৷ এখন এমনও হাসপাতাল রয়েছে যেখানে ওষুধগুলো যে হালাল উপদানে তৈরি করা হয়েছে তাও বলা হচ্ছে৷ জাপানি কোম্পানি শার্পও হালাল লেবেল লাগিয়ে রেফ্রিজারেটর বিক্রি করে৷’

অডি সেতিয়াদি বলেন, ‘ইন্দোনেশিয়ায় জন্মসূত্রে অনেক মসুলমান যুবক নিয়মিত উপার্জন করেন এবং তারা ইসলামী ভাবধারায় জীবনযাপন করতে চান৷ তারা কতটা ব্যয় করবেন তা নিয়ে তারা ভাবেন না, তারা কেবল মনের শান্তি চান৷’

গত এপ্রিলে নির্বাচনের সময় মধ্যপন্থী মুসলিম রাষ্ট্রপতি জোকো উইদোদো প্রবীণ রক্ষণশীল পণ্ডিত মাউরুফ আমিনকে তার সঙ্গে রাখেন৷ এতে পুনর্নির্বাচনের জন্য তার আরও বেশি মুসলিম ভোট পাওয়ার বিষয়টিকে সুরক্ষিত করেছিল বলে মনে করা হয়৷

বিশ্লেষকরা বলছেন, ইন্দোনেশিয়ার ওলামা কাউন্সিলের চেয়ারম্যান আমিন একদল আলেমকে সঙ্গে নিয়ে ইসলামী ব্যাংকিং এবং হালাল সদন বাধ্যতামূলক করাসহ ইসলামী অর্থনীতির বিষয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন৷

থমসন রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইন্দোনেশিয়ার মানুষ ২০১৯ সালে হালাল খাবার, পর্যটন, ফ্যাশন এবং প্রসাধনীর পেছনে ২১৯ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি ব্যয় করেছে, ২০১৪ সালে যা ছিল ১৯৩ বিলিয়ন ডলার৷

২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত ইসলামী ব্যাংকিংয়ের সম্পদ ছিল ৪৮৬ দশমিক ৯ ট্রিলিয়র রুপী, যা গত নয় বছরের থেকে ৩০০ শতাংশেরও বেশি প্রবৃদ্ধির সূচককেই নির্দেশ করে৷

ব্যাংক ইন্দোনেশিয়ার ডেপুটি গভর্নর দোদি বুদি ওয়ালুয়ো বলেন, দেশটিতে হালাল খাবার, ফ্যাশন এবং ইসলামী পর্যটনের চাহিদা দ্রুত বাড়ছে৷ শরিয়া অর্থনীতি অগ্রসরমান হচ্ছে এবং বাড়ছে হালাল পণ্য ও হালাল সনদের চাহিদা৷

কিছু আবাসন কোম্পানি মসুলামানদের, বিশেষ করে আয যিকরা সম্প্রদায়ের ৪০০ বাসিন্দাকে টার্গেট করে মহানবীর পদাঙ্ক অনুসরণ করে হালাল আবাসনের কথা বলছে৷ সেই আবাসনের কেন্দ্রস্থলে একটি মসজিদ রয়েছে, যা লিবিয়ার স্বৈরশাসক মুয়াম্মার গাদ্দাফির অনুদানের অর্থে নির্মিত৷

ইন্দোনেশিয়া ২০১৪ সালে কোনো পণ্য হালাল কি না, তা লেবেল করতে কোম্পানিগুলোকে বলেছিল৷ সেই পদেক্ষেপের অগ্রগিত না হলেও দেশটিতে এখন হালাল পণ্যের বিপণন মূল ধারায় চলে এসেছে৷

গত মাসে জার্কাতায় হালাল পণ্য নিয়ে প্রদর্শনের আয়োজন করা হয়৷ সেখানে কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান এসওএস বিউটি নতুন ধরনের ফাউন্ডেশন ক্রিম নিয়ে আসে৷ নামাজের আগে ওযু করার বিধান তুলে ধরে এই কোম্পানির প্রতিনিধি লিসা বলেন, ‘এটি আপনার চামড়ার ছিদ্রগুলো বন্ধ করবে না, সুতরাং আপনি ওযু করলে পানি ঢুকবে৷’ সূত্র: রয়টার্স।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইন্দোনেশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ