Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০১৯, ০৫ চৈত্র ১৪২৫, ১১ রজব ১৪৪০ হিজরী।

স্থায়ী ক্যাম্পাসে চলছে শিক্ষা বিস্তার

প্রকাশের সময় : ১৩ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বর্তমানে দেশের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিক্ষার্থী বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চশিক্ষা অর্জন করছে। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের পছন্দ এবং গুণগত শিক্ষা প্রদান করতে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি প্রশংসার দাবি রাখে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পদযাত্রা শুরুর প্রথম দিকেই ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান খ্যাতিমান অধ্যাপক ড. এবিএম মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী ১৯৯৫ সালে এই ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা করেন। আইন, ব্যবসায় প্রশাসন, সমাজ বিজ্ঞান ও অর্থনীতি বিভাগের মোট ১৬৮ জন ছাত্রছাত্রী নিয়ে এ বিশ্ববিদ্যালয় যাত্রা শুরু করে। এরপর এখানে চালু করা হয় কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ইলেকট্রিক্যাল ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, ফার্মেসি ও হিউম্যান রাইটস ‘ল’ বিভাগ। সম্প্রতি সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ চালু করা হয়েছে। বর্তমানে ইউনিভার্সিটির ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা প্রায় ৭ হাজার। পারমানেন্ট শিক্ষকের সংখ্যা প্রায় ১৫০ জন। এছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, জাহাঙ্গীরনগর ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রখ্যাত অধ্যাপকেরা খÐকালীন পাঠদান দিয়ে থাকেন। ঢাকার বাড্ডার সাতারকুলে বিশাল এলাকাজুড়ে নির্মাণ করা হয়েছে স্থায়ী ক্যাম্পাস। ইতোমধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণের কাজ শেষ পর্যায়ে। এখানে ক্লাস শুরু হয়েছে ফার্মেসি, বি এস সি ইন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ইংরেজি বিভাগ ও সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে। পর্যায়ক্রমে অন্য বিভাগগুলো এখানে স্থানন্তর করা হবে। বনানী ও গ্রীনরোডে চারটি ভবনে প্রায় দেড় লক্ষ (১৫০০০০) হাজার বর্গফুট অবকাঠামোতে এ ইউনিভার্সিটির প্রশাসনিক ও শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এছাড়া সাতারকুলে ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাসে ছেলে ও মেয়েদের নিজস্ব হোস্টেল, নিকুঞ্জ জোয়ার সাহারায় ছেলেদের এবং গ্রীনরোডে মেয়েদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব হোস্টেল রয়েছে।
বিজ্ঞান প্রযুক্তি যুগে এর গুরুত্ব অনুধাবন করেই মূলত ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ বিএসসি ইন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স চালু করেছেন। সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সটি বাড্ডার সাতারকুলে এক মনোরম পরিবেশে এবং একটি নান্দনিক ভবনে শুরু হয়েছে।
ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. কে এম মহসীন বলেন, ‘ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা মরহুম অধ্যাপক ড. মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী নিম্নবিত্ত পরিবারের ছেলে-মেয়েদের উচ্চ শিক্ষার কথা চিন্তা করেই প্রতিষ্ঠা করেছেন। বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান ডা. এস কাদির পাটোয়ারী বলেন, ১৯৯৫ সালে ‘জ্ঞানই শক্তি’ এ সেøাগানকে সামনে রেখে এ ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এ সেøাগানের গুরুত্ব তা আজও বহন করে চলছে। যেসব কোর্স এখানে চালু রয়েছে সেগুলো আমরা সুনামের সঙ্গে পরিচালনা করে আসছি। আগামীতে সফলতার সঙ্গে উচ্চশিক্ষা বিস্তারে ভ‚মিকা রাখব।
শিক্ষার্থীদের ইংরেজি ভাষার ওপর দক্ষতা অর্জনের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে ইন্টারন্যাশনাল ল্যাংগুয়েজ ইনস্টিটিউটের নামে ইউনিভার্সিটির এমও ইউ স্বাক্ষর করেছে। সর্বোপরি ছাত্রছাত্রীদের ইংরেজিতে দক্ষতা অর্জনের জন্য ফাউন্ডেশন কোর্স চালু রয়েছে।
বিস্তারিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ : ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির
স্থায়ী ক্যাম্পাস সাতারকুল বাড্ডা, ঢাকা। ৬৬ গ্রিনরোড, ঢাকা-১২০৫। বাড়ি-০৪, সড়ক-০১, বøক-এফ, বনানী, ঢাকা-১২১৩। ঊ-সধরষ : ধফসরংংরড়হ@ফরঁ.হবঃ.নফ ডবনংরঃব: িি.িফরঁ.ধপ
ষ তারিন তাসমি



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ