Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ সফর ১৪৪১ হিজরী

মহাদেবপুরের চাষিদের বেগুনে ফিরছে সংসারে সচ্ছলতা

প্রকাশের সময় : ১৩ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

এমএ ছালাম, মহাদেবপুর (নওগাঁ) থেকে : নওগাঁর মহাদেবপুরে নানান জাতের অধিক ফলনশীল বেগুন চাষ করে চাষিদের মুখে ফুটেছে আনন্দের হাসি। ভালো ফলন প্রাপ্তির সাথে হাটবাজারে উচ্চমূল্য পাওয়ায় এলাকার চাষিরা ব্যাপকহারে লাভবান হওয়ায় এবার তাদের আনন্দের যেন শেষ নেই। উপজেলার নাটশাল গোপালপুর গ্রামের কৃষক ছলিম উদ্দিন মÐল তিন বিঘা জমিতে, রফিকুল ইসলাম আড়াই বিঘা জমিতে এবং রিপন মÐল দুই বিঘা জমিতে এবার উফসী জাতের কাজলা বেগুন চাষ করেছেন। এ বেগুন স্থানীয়ভাবে ইসলামপুরী আবার যশোরী নামে পরিচিত। এ ছাড়াও উপজেলার অন্যান্য এলাকাতেও অনেক কৃষক উফসী জাতের কাজলাসহ অধিক ফলনশীল নানান জাতের বেগুন চাষ করেছেন। কৃষকরা জানান, প্রতিবিঘা জমিতে এসব জাতের বেগুন চাষ করতে সার, বীজ, কীটনাশকসহ পরিচর্যা ব্যয় হয় ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। আর এ পরিমাণ জমিতে বেগুনের ফলন হয় ২৩০ মণ থেকে ২৫০ মণ। চাষিদের মতে, জমি থেকে তাদের উৎপাদিত প্রতি মণ বেগুন পাইকারগণ ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকায় ক্রয় করে নিয়ে যান। এতে করে প্রতিবিঘা জমি থেকে বেগুন বিক্রি করে উৎপাদন খরচ বাদ দিয়ে কমপক্ষে ১ লাখ টাকা ৯০ দিনের মধ্যে লাভ হয়। অর্থনৈতিকভাবে সহজ শর্তে সরকারি সহায়তা দেয়া হলে অধিক পরিমাণ জমিতে বাণিজ্যিকভাবে এ বেগুন চাষের মাত্রা ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পাবে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। এতে করে গ্রামীণ অর্থনীতির চাকা সচল হবে আর সচ্ছলতা ফিরে পাবে এলাকার শত শত কৃষক। উপজেলা কৃষি অফিসার একেএম মফিদুল ইসলাম জানান, এখানে ৪০০ বিঘারও অধিক পরিমাণ জমিতে চাষিরা বেগুন চাষ করেছেন। এ বেগুন চাষে কৃষকদের বিভিন্নভাবে উদ্বুদ্ধ করাসহ কৃষি সহায়তা দেয়ার ফলে এবার এ বেগুনের ফলন ভালো হচ্ছে বলে তিনি জানান।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন