Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৩ কার্তিক ১৪২৬, ১৯ সফর ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

ইমাম হোসাইন (রা.) শান্তি ও ইনসাফের প্রতীক- আল্লামা আমিনুল হক আলকাদেরী (মা.জি.আ)

রাউজানে ১০ দিন ব্যাপী শোহাদায়ে কারবালা মাহফিলের শেষ দিবস সম্পন্ন

রাউজান (চট্টগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৫:২৪ পিএম

হযরত ইমাম শেরে বাংলা (রহ)’র বড় সাহেবজাদা আলহাজ্ব আল্লামা সৈয়দ আমিনুল হক আল ক্বাদেরী (মা.জি.আ)  বলেছেন, আহলে বায়তের প্রেম হচ্ছে ঈমান। কারবালার প্রান্তরে ইমাম হোসাইন (রঃ) নিজের জীবনের চিন্তা না করে, তিনি এজিদ বাহীনিকে বলেছিলেন ন্যায়ের পথে থাকব, এরপরও অন্যায়কে সমর্থন করবনা। তিনি বলেন সুদ, ঘুষ, মদ, ইয়াবা মুক্ত সমাজ প্রতিষ্টার জন্য ইমাম হোসাইন (রঃ) আদর্শ বাস্তবায়ন করা ছাড়া কোন বিকল্প পথ নেই। বর্তমান সমাজের রন্দ্রে রন্দ্রে ডুকে যাওয়া অন্যায়-অবিচার এজিদি মতবাদ, শিয়া মতবাদ দুর করতে সমস্ত সুন্নী মাশায়েখে কেরামগনকে এককাতারে এসে এগুলোর বিরুদ্ধে জেহাদ করতে হবে। তিনি আরো বলেন, ৬১ হিজরিতে কারবালার ময়দানে সত্য মিথ্যার মধ্যে সংঘাতে চুড়ান্তভাবে সত্যের বিজয় হয়েছিল। ইমাম হোসাইন (র.)সহ নবী পরিবার সেদিন নিজেদের জীবনকে উৎসর্গ করে ইসলামের পুনরুজ্জীবন দান করেন। তাই আহলে বায়তে রাসূলের ভালবাসা অন্তরে ধারণ ও লালন করা ঈমানী দায়িত্ব। আহলে বায়তে রাসূলের (দ.) আত্মত্যাগের মাধ্যমে ইসলাম বিশ্বজমিনে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ইসলামের সত্যিকার প্রতিনিধিত্ব করেছেন ইমাম হোসাইন (রা.)। ইসলামের ন্যায়ভিত্তিক দর্শনকে তিনি সমুন্নত করেছেন। ইমাম হোসাইন (রা.) শান্তি ও ইনসাফের প্রতীক। আহলে বায়তে রাসূল (দ.) ইসলামের কালজয়ী দর্শনকে সমুন্নত করেছেন। এ পথেই রয়েছে শান্তি, কল্যাণ ও মুক্তি। তিনি বুধবার রাতে চট্টগ্রাম জেলার রাউজান আমিরহাটে ১০দিন ব্যাপি ৮ম শোহাদায়ে কারবালা স্মরনে যিকিরে মোস্তফা (দ.) মাহফিলের সমাপনি দিবসে প্রধান অতিথির তকরির করছিলেন। রাউজান উত্তরসর্তা আলামিয়া নুরুল ইসলাম স্মৃতি ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সাংবাদিক নুর মোহাম্মদ রানা এতে সভাপতিত্ব করেন।

রাউজান প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও মাহফিলের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা এম বেলাল উদ্দিনের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ও বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক তাজ মুহাম্মদ রেজভী ও মুহাম্মদ সাজ্জাদের যৌথ সঞ্চালনায় এতে তকরির পেশ করেন উত্তরসর্তা গাউছিয়া হাফেজিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার আরবী প্রভাষক আলহাজ্ব আল্লামা জসিম উদ্দিন আবেদী। শত শত মানুষের উপস্থিতিতে সুমধুর কণ্ঠে নাতে রাসুল (দ.) পরিবেশন করেন দেশ খ্যাত নাত খাঁ শায়ের আলহাজ্ব মাওলানা ক্বারী তারেক আবেদীন ক্বাদেরী (মা.জি.আ)। এর পূর্বে নাত পরিবেশন করেন শায়ের রায়হান শরিফ, শায়ের মুহাম্মদ ইমরান, শায়ের মিজানুর রহমান, শায়ের ওসমান গনি, শায়ের মিনহাজ উদ্দিন ভান্ডারী।
উপস্থিত ছিলেন আওয়ামীলীগ নেতা জালাল আহমেদ, ইমরান কাদের ইডেন, ব্যবসায়ী সৈয়দ কামাল উদ্দিন, মেম্বার শফি সওদাগর, ব্যবসায়ী মুহাম্মদ রফিক, মাস্টার ফরিদ মিয়া,জাহাঙ্গীর আলম সিকদার, উত্তর সর্তা দরগাহ উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য আলহাজ্ব নিজাম উদ্দিন, আল্লামা সরোয়ার আলম, আলহাজ্ব সোলায়মান চৌধুরী, এয়াছিন শাহ কলেজের সহ গস্খন্থগারিক এয়ার মুহাম্মদ, দ্যা প্যানিনসুলার অডিট ম্যানেজার নুরুল হায়দার, এটি এম আলমগীর,হাজী মুহাম্মদ ইউনুছ,মওলানা বদরুদ্দিন, মো. ফরিদ, হাফেজ মাওলানা ওমর ফারুক,মাওলানা এয়াছিন ভান্ডারী, হাফেজ মওলানা ইউনুছ, গর্জনীয়া মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা নাসির উদ্দিন কাদেরী, মওলানা ইকবাল হোসেন, ব্যাংকার জাহেদুল আলম, মওলানা মামুন, বাজারের ব্যবসায়ী ইলিয়াছ সওদাগর, হামিদ সওদাগর, মুহাম্মদ মামুন মিয়া, আব্দুর রশিদ স্বপন, মুহাম্মদ জয়নাল,মুহাম্মদ সৈয়দ,মুহাম্মদ সোহেল, সাদ্দাম হোসেন, গাউছিয়া কমিটির নেতা মোরসেদ আলম, আবু রায়হান, মকসদুল আলম সুমন, গাজী মাসুদ রানা, মুহাম্মদ মঈন উদ্দিন, এ্যাডভোকেট ইছহাক, ব্যাংকার রবিউল হোসেন, সাংবাদিক সাজ্জাদ, নাজিম উদ্দিন কালু, সাবেক সচিব মাওলানা মোজাম্মেল হোসাইন, বর্তমান সচিব মুহাম্মদ জাবেদ,নাজিম উদ্দিন ভান্ডারী, মুহাম্মদ বোরহান, মাওলানা কুতুব উদ্দিন, মুহাম্মদ হাসান, মুহাম্মদ মুবিন, এস এম কপিল উদ্দিন, মুহাম্মদ আলী, মুজিবুল বশর সাজ্জাদ, মোজাফ্ফর, মাওলানা নঈমুল হক, প্রমুখ। মিলাদ কিয়াম পরিবেশন করেন শায়ের মাওলানা ক্বারী তারেক আবেদীন। এতে দেশ জাতি ও মুসলিম উম্মাহর সম্মৃদ্ধি কামনা করে আখেরী মোনাজাত পরিচালনা করেন আল্লামা সৈয়্যদ আমিনুল হক আল কাদেরী (মা.জি.আ)। পরে তাবারুক বিতরন করা হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন