Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১২ জুলাই ২০২০, ২৮ আষাঢ় ১৪২৭, ২০ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

‘গরু’ ভক্ত মোদির ক্ষোভ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১১:৫৫ এএম

‘গরু' কিংবা ‘ওম' এই শব্দগুলি শুনলে কিছু মানুষ চমকে ওঠেন। এটা দুর্ভাগ্যজনক। ভারতের উত্তরপ্রদেশের মথুরায় এক রোগ প্রতিরোধ কর্মসূচিতে অংশ নিতে এসে ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বুধবার একথা বলেন। এদিন জাতীয় পশু রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন তিনি। সেই সঙ্গে কৃষকদের জন্য অন্যান্য প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন তিনি। সেখানেই তিনি বলেন, ‘‘কিছু মানুষ, যদি তারা ‘গরু' এবং ‘ওম'-এর মতো শব্দ শোনেন, তাহলে তাদের চুল খাড়া হয়ে যায়। তারা ভাবতে থাকেন দেশ ষোড়শ শতাব্দীতে ফিরে যাচ্ছে। পশুদের ছাড়া গ্রামীণ অর্থনীতির কথা কি কেউ বলতে পারবেন?''

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘‘পরিবেশ ও প্রাণীকুল ভারতের অর্থনীতিতে সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা নতুন ও শক্তিশালী ভারতের দিকে এগোতে পারব যদি প্রকৃতি ও অর্থনৈতিক অগ্রগতির মধ্যে সমতা বিধান করতে পারি।''

প্রধানমন্ত্রী যখন বক্তৃতা দিচ্ছিলেন, তখন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

এই নতুন প্রকল্পে ৫০ কোটি পশুকে ‘ফুট অ্যান্ড মাউথ ডিজিজ'-এর প্রতিষেধক দিতে আগামী পাঁচ বছর ২০২৪ সাল পর্যন্ত যা খরচ হবে তার ১০০ শতাংশই (১২,৬৫২ কোটি রুপি) দেবে কেন্দ্র। পশুদের তালিকায় গরু, মোষ, ভেড়া, ছাগল ও শুয়োর রয়েছে। এছাড়াও এই কর্মসূচির অন্তর্গত ব্রুসেলোসিস অসুখের টিকাও দেয়া হবে গরুদের।

এদিনের অনুষ্ঠানে এসে প্রধানমন্ত্রী কথা বলেন কৃষক, পশু চিকিৎসক ও প্লাস্টিক বর্জ্য বিচ্ছিন্নতাকারীদের সঙ্গে। তিনি নিজে প্লাস্টিক বর্জ্য যারা বিচ্ছিন্ন করেন, সেই মহিলাদের সঙ্গে বসে কথা বলুন। তাদের বোঝান এই কাজ কতটা গুরুত্বপূর্ণ। গরুর পেটে যাতে প্লাস্টিক না যায়, তাই এই কাজ সঠিক ভাবে সম্পন্ন করা অত্যন্ত জরুরি।
সূত্র : এনডিটিভি



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন