Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৪ কার্তিক ১৪২৬, ২০ সফর ১৪৪১ হিজরী

বরিশালে ইয়াবা উদ্ধার হলেও মূল ব্যবসায়ীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে

বরিশাল ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৬:৪২ পিএম

মহানগর পুলিশ সম্প্রতি সদর উপজেলার চরমোনাই ও শহর থেকে ২০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করার পরে শুক্রবার রাতে এক সিটি কাউন্সিলরের মালিকানাধীন ভাড়া বাসা থেকে আরো আড়াই হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়াও প্রতিদিনই ইয়াবার বাহক ও সেবনকারীদের কাছ থেকে সীমিত পরিমাণ ইয়াবা সহ গ্রেফতার অভিযান চললেও এ মাদক ব্যবসা কমছেনা।

অভিযোগ রয়েছে, উদ্ধার হওয়া ইয়াবার সঙ্গে গ্রেফতারকৃতরা মুলত খুচরা বিক্রেতা বা বাহক মাত্র। কিন্তু ব্যবসার মূল গডফাদাররা থেকে যাচ্ছেন ধরাছোঁয়ার বাইরে। মাদক ব্যবসার গডফাদারদের মধ্যে নগরীতে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের নাম শোনা গেলেও তাদের স্পর্ষ করতে পারছে না পুলিশ।

শুক্রবার রাতে আড়াই হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধারের বিষয় নিয়ে নিয়ামানুযায়ী শনিবার সকালে মহানগর পুলিশ কমিশনার অফিসে সংবাদ সম্মেলন হয়েছে। প্রতিবারের মতো এবারও পুলিশ কর্মকর্তারা ‘মাদক ব্যবসার নেপথ্যে থাকা গডফাদারদের চিহ্নিত করা হয়েছে এবং শিগগিরিই তাদের মুলোৎপাটন করা হবে’ বলে জানিয়েছেন। তবে প্রকৃত গডফাদাররা ধরা পড়ছেন না কেন জানতে চাইলে পুলিশের উপ পুলিশ কমিশনারÑদক্ষিণ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘আমরাও জানি এ ব্যবসার মূল গডফাদার কারা। উপযুক্ত প্রমান হাতে না পাওয়ায় তাদের আইনের আওতায় আনা যাচ্ছেনা’।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নগরীর হজরত লেচুশাহ (রঃ) সড়কে ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইদ আহম্মেদ মান্নার মালিকানাধীন ভবনের চতুর্থ তলার ভাড়াটিয়া বাসায় অভিযান চালিয়ে আড়াই হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এসময় গ্রেফতার করা হয় ভাড়াটিয়া আসমা আক্তার রুবিনা ও তার সহযোগী সুমন মৃধাকে।

পুলিশ জানিয়েছে, আসমার স্বামী রিফাতুল ইসলাম রন্টি চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী। সে সম্প্রতি গ্রেফতার হয়ে কারাগারে গেলে আসমা ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছিল। আসমা ও সুমন মাদক সংক্রান্ত একাধিক মামলার আসামী। পুলিশের দাবী ভবন মালিক কাউন্সিলর মান্নার সহযোগীতায় আসমাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে দেড়মাস আগে ওই ভবন ভাড়া নিয়েছিল।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইয়াবা উদ্ধার


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ