Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, ০৬ মাঘ ১৪২৭, ০৬ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

পটিয়ায় ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে পুলিশের বসবাস

এস. কে. এম. নূর হোসেন, পটিয়া (চট্টগ্রাম) থেকে | প্রকাশের সময় : ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

থানা ভবন থাকলেও চট্টগ্রামের পটিয়া থানা পুলিশের নেই থাকার কোয়াটার। সেমিপাকা পরিত্যক্ত ঘরে সাপ, পোকা মাকড়ের ঝুঁকিতে থাকছেন থানার ওসি, কয়েকজন এসআই ও মহিলা সদস্যরা। দীর্ঘদিন ধরে পুলিশের এই অবস্থা চললেও সরকারিভাবে কোয়াটার নির্মাণে নেই কোন উদ্যাগ। যার কারণে থানা পুলিশের সদস্যদের বিভিন্ন ভাড়া বাসায় থাকতে হচ্ছে। সাবেক মহকুমা শহরের প্রাচীন এই থানাটি ২০১২ সালে গণপূর্ত অধিদপ্তরের অর্থায়নে বহুতল ভবন নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শামসুল হক টুকু এমপি। তার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন জাতীয় সংসদের হুইপ আলহাজ সামশুল হক চৌধুরী এমপি। বহুতল ভবন নির্মাণ কাজ এখনো চলছে। তাদের জন্য নেই বিশুদ্ধ খাওয়ার পানির ব্যবস্থা। পটিয়া থানাটি চট্টগ্রাম-কক্সবাজার আরকান মহাসড়কের পাশেই অবস্থিত। উপজেলার ১৭ ইউনিয়নের আইন শৃঙ্খরা রক্ষায় বর্তমানে থানায় রয়েছে এসআই-১৪ জন, এএসআই-১৫ জন, কনস্টেবল ৪৬ জন। তার মধ্যে মহিলা কনস্টেবল রয়েছে ১০ জন। শুধুমাত্র কয়েকজন ছাড়া বাকি পুলিশ পৌর সদরের বিভিন্ন ভাড়া বাসায় থাকতে হচ্ছে। থানার অভ্যন্তরে নেই খাবার পানির জন্য টিউবওয়েল। পুকুর ঘাট রয়েছে ভাঙা।

তাছাড়া থানার উত্তর ও পূর্বাংশের সীমানা প্রাচীর রয়েছে ভাঙা। যার কারণে বহিরাগত লোকজন থানার ভেতব খুব সহজে প্রবেশও করতে দেখা যায়। পুলিশের কোয়াটার না থাকা কারণে ভাড়া বাসা থেকে ঘটনাস্থলে যেতে পুলিশের লাগছে দীর্ঘ সময়। উপজেলার হাইদগাঁও, কেলিশহর, কচুয়াই, খরনা পাহাড়ি এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকা দিয়ে সম্প্রতি চোলাই মদ, ইয়াবা, গাঁজা ব্যবসা হয়ে থাকে। বর্তমানে পটিয়া থানার ওসি বোরহান উদ্দিন নিজেও সরকারিভাবে সেমিপাকা এবং পরিত্যক্ত ঘোষনাকৃত ঘরে ঝুঁকি নিয়ে রাতযাপন করছেন। সরকারিভাবে কোন উদ্যাগ না নেওয়ার কারণে মূলত পটিয়া থানা পুলিশের থাকার কোয়াটার নির্মাণ হচ্ছে না।
পটিয়া থানার ওসি বোরহান উদ্দীন জানিয়েছেন পুলিশের কোয়ার্টার না থাকায় অফিসারগণ খুব কষ্টে সেমিপাকা ঘরগুলোতে অবস্থান করছেন। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে এতদিন কেউ জানায়নি। এব্যাপারে তা উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন