Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯, ০৮ কার্তিক ১৪২৬, ২৪ সফর ১৪৪১ হিজরী

পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়াই গড়ে উঠেছে কার্পেট কারখানা শত বেকারের কর্মসংস্থান

তেঁতুলিয়া (পঞ্চগড়) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ার বেকার যুবক সাইদুল ইসলাম অদম্য মনোবল ও সাহসিকতার প্রতীক হিসেবে গোটা জেলায় স্থান করে নিয়েছে। এক সময়ের কার্পেটের কারিগর সাইদুল ইসলাম এখন নিজেই হস্তশিল্প কারখানার মালিক হয়েছেন।
তেঁতুলিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের পানিহাকা গ্রামের দিনমুজুর আব্দুল মোতালেব এর ছেলে সাইদুল ইসলাম জীবন জীবিকার সন্ধানে ৬/৭ বছর আগে ঢাকায় যায়। সেখানে গিয়ে একটি কার্পেটের ফ্যাক্টরীতে কাজ শুরু করেন। সেখান থেকেই মনে মনে স্বপ্ন দেখেন কিভাবে এই শিল্পকে তার গ্রামের বাড়ীতে এসে বাস্তবে রুপ দেওয়া যায়। এক সময় সে কার্পেট এর যাবতীয় কাজ শিখে গ্রামের বাড়ীতে চলে আসেন। ফ্যাক্টরী করতে স্থানীয় এনজিও থেকে ত্রিশ হাজার টাকা ঋন গ্রহণ করে মাত্র ২ টি মেশিন দিয়ে তার নিজের বাড়ীতেই রং-বেরং এন্ড হ্যান্ডিক্রাফটস নাম দিয়ে কার্পেটের কাজ শুরু করেন। বর্তমানে তার কারখানায় ২০ টি মেশিন এবং প্রায় ৫০ জন স্থানীয় বেকার যুবক-যুবতী, নারী পুরুষ নিয়মিত কাজ করে। পুরুষ শ্রমিক এখানে কাজ করে দিনে ৫শ’ টাকা এবং মহিলা শ্রমিক প্রতিদিন ৩-৪শ’ টাকা আয় করতে পারছেন। এলাকায় কিছুটা হলেও বেকার সমস্যার সমাধান করতে পারছে রং-বেরং কার্পেট ফ্যাক্টরী।
রং-বেরং এর মালিক সাইদুল ইসলাম তার প্রতিষ্ঠানটিকে আরও বড় আকারে করতে চায় কিন্তু আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে পারছেন না। সরকারী, বেসরকারী পৃষ্ঠপোষকতা দরকার বলে মনে করেন শ্রমিক ও স্থানীয়রা। এই কার্পেট শিল্পকে ব্যাপক আকারে করতে পারলে এই এলাকার উন্নয়ন তথা বেকার সমস্যার সমাধান হবে।
ইতিমধ্যে জেলার সার্কিট হাউজে পঞ্চগড় ব্রান্ডিং এ স্থান পেয়েছে রং-বেরং এর উৎপাদিত পন্য। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পর্যটক সার্কিট হাউজের পঞ্চগড় ব্রান্ডিং এ উৎপাদিত পণ্য কিনতে পারছেন। পঞ্চগড়ের উৎপাদিত কার্পেট বিদেশেও রপ্তানী করার মতো পণ্য।
পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন জানান, তেঁতুলিয়ার উৎপাদিত পণ্য পঞ্চগড়ে আসা বিভিন্ন অতিথিদের উপহার হিসেবে দিয়েছেন এবং পঞ্চগড়ের পণ্য ক্রয়ের ব্যাপারে উৎসাহিত করছেন।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন