Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৪ কার্তিক ১৪২৬, ২০ সফর ১৪৪১ হিজরী

হামলা না চালাতে পাকিস্তানকে অনুরোধ ভারতের!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১১:০০ এএম | আপডেট : ২:০৩ পিএম, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

চলতি বছর সীমান্তে ২ হাজার ৫০ বারের বেশি যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে গোলাবর্ষণ করেছে পাকিস্তান। এতে ভারতের সেনাবাহিনীর সদস্য ও বেসামরিক অন্তত ২১ জনের প্রাণহানি ঘটেছে।
২০০৩ সালে স্বাক্ষরিত যুদ্ধবিরতি চুক্তি মেনে চলার জন্য পাকিস্তানের প্রতি ভারত বারবার অনুরোধ জানালেও তা উপেক্ষা করেছে ইসলামাবাদ।
গতকাল রোববার বিজেপি সরকার এ তথ্য জানিয়েছেন। পাকিস্তান জাতিসংঘের এক বৈঠকে কাশ্মীর সঙ্কট তুলে ধরার পরদিন ভারত এই পরিসংখ্যান প্রকাশ করলো।
জাতিসংঘের ওই বৈঠকে ভারতের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ জান‌িয়েছে পাকিস্তান। তবে ভারত পাকিস্তানের এই অভিযোগকে ভিত্তিহীন দাবি করে সীমান্তে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে গোলাবর্ষণ ও সীমান্ত পেরিয়ে সন্ত্রাসবাদ বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে।
সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, আমরা আমাদের উদ্বেগের কথা জানাতে চাই পাকিস্তান সেনােদের অকারণ যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের বিষয়ে। এছাড়া আন্তঃসীমান্ত জঙ্গি অনুপ্রবেশ এবং ভারতীয় নাগরিক ও সীমান্তের ছাউনিতে আক্রমণে মদত দেওয়া।
বিজেপি মুখপাত্র বলেন, চলতি বছরে পাকিস্তান ২ হাজার ৫০ বারের বেশি যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে; এতে ২১ ভারতীয় প্রাণ হারিয়েছেন। ২০০৩ সালের যুদ্ধবিরতি চুক্তি মেনে নিয়ন্ত্রণ রেখা ও আন্তর্জাতিক সীমানায় শান্তি এবং স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্য আমরা বারবার পাকিস্তানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছি।
তিনি বলেন, বিনা উসকানিতে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন ও সন্ত্রাসীদের অবৈধ অনুপ্রবেশের জবাবে ভারতীয় সামরিক বাহিনী সর্বোচ্চ সংযম প্রদর্শন করেছে।
এদিকে রবিবার কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরাকে দেয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে কাশ্মীর সঙ্কট সমাধানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। একই সঙ্গে এই বিরোধ ভারত-পাকিস্তান সঙ্কটের কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসায় পারমাণবিক যুদ্ধের শঙ্কা এবং যুদ্ধ হলে পুরো বিশ্বই ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন তিনি।
পাকিস্তানের এই প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কাশ্মীর পরিস্থিতি মোকাবেলায় তার দেশের হাতে সীমিত বিকল্প রয়েছে। পারমাণবিক অস্ত্রধারী দুই প্রতিবেশি দেশের মাঝে আকস্মিক পারমাণবিক যুদ্ধ বাধতে পারে বলে পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশির মন্তব্যের ব্যাপারে জানতে চাইলে ইমরান খান বলেন, একেবারে সত্য। কাশ্মীরে যা ঘটছে, সেটি হলো সেখানে কম কিংবা বেশি গণহত্যা চালাচ্ছে ভারত। সেখানে মানুষের ওপর জাতিগত হামলা হচ্ছে। আমি মনে করি, জার্মান নাৎসি শাসনের পর এ ধরনের হামলা দেখা যায়নি।
কাশ্মীরের উপর থেকে বিশেষ মর্যাদা সম্পর্কিত সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের পর থেকে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। সূত্র : এনডিটিভি



 

Show all comments
  • kuli ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৮:৫৯ পিএম says : 1
    ভারত পাকিস্থান রে ভয় পায়।
    Total Reply(0) Reply
  • Suruj ali ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৩:৫৭ পিএম says : 1
    India Go,go back
    Total Reply(0) Reply
  • Ruhul Amin ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৫:৪৭ পিএম says : 0
    I have the request on behave of human to all the people and gov. republic of India and Pakistan to give the independent to both the Kashmir.Then world will save from the big damage.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান-ভারত


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ