Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ সফর ১৪৪১ হিজরী

আজিমপুর-অলিরহাট সংযোগ সেতু ভেঙে যান চলাচল বন্ধ

পটিয়া (চট্টগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

পটিয়া আজিমপুর-অলিরহাট সড়কের সেতু ভেঙে এবং সংযোগ সড়কের ইট ওঠে যাওয়ায় দীর্ঘদিন যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। গত এক বছর ধরে সেতুটি ও সংযোগ সড়কের সংষ্কার না হওয়ায় গুরুত্বপূর্ণ এ সড়ক দিয়ে কোন যানবাহন চলাচল করছে না। এ সড়ক দিয়ে প্রাইমারী স্কুল, হাই স্কুল, কলেজ ও মাদরাসা পড়–য়া শিক্ষার্থীসহ শত শত মানুষ যাতায়াত করে। উপজেলার কচুয়াই, শোভনদন্ডী, ছনহরা, খরনা ইউনিয়নের লোকজন এ সড়ক দিয়ে মহাসড়কে ওঠে। এছাড়া মহাসড়কের সাথে এ সড়কের সংযোগ থাকায় চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার অভিমুখে যাত্রীরা এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে।

জানা যায়, পটিয়া আজিমপুর-অলিরহাট সড়কটির দীর্ঘদিন কাঁচা অবস্থায় সংস্কার বিহীন থাকার পর ২০০২ সালে তৎকালীন চট্টগ্রাম আইনজীবী বারের সভাপতি মরহুম এডভোকেট আহমদ হোসেন তার প্রচেষ্টায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে প্রায় ২০ লাখ ব্যয়ে একটি সেতুসহ ২ কি.মি. আজিমপুর-অলিরহাট সড়ক ব্রিকসলিং দিয়ে সংস্কার করা হয়। ২০০২ সাল থেকে অদ্যবধি ২০১৯ সাল পর্যন্ত এ সড়কটি আর কোন সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়নি। ফলে সড়কের ইট ওঠে ও ভেঙে গিয়ে অনেক স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

এছাড়া এ সড়কের সাথে সংযুক্ত খরনা খালের উপর নির্মিত সেতুর দুই পাশ দিয়ে ভেঙে যাওয়ায় সেতুটি বর্তমানে খালের গর্ভে চলে যাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। সেতুর দুই পাশে একটি অবৈধ বালু ব্যবসায়ী প্রায় সময় বালি উত্তোলন করার কারণে সেতুর দুই তীরের অংশ ভেঙে গিয়ে তা ধীরে ধীরে বড় আকারে রূপ নিচ্ছে। এতে দেখার যেন কেউ নেই।
এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম জানান, সেতু ভাঙা ও সড়ক সংষ্কারের ব্যাপারে এম.পি সাহেবকে জানানো হয়েছে। তিনি মন্ত্রণালয়ে অর্থ বরাদ্ধের জন্য প্রস্তাব পাঠিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

উপজেলা প্রকৌশলী বিশ্বজিত দত্ত জানিয়েছেন পটিয়া আজিমপুর অলিরহাট সড়কের সেতু ও সড়ক সংষ্কারের জন্য পরিমাপ নির্ধারণ ও অর্থ চাহিদা নির্ধারণ করে মন্ত্রণালয়ে জানানো হয়েছে। বিষয়টি জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী এম,পি মহোদয়কে অবগত করা হয়েছে। অর্থ বরাদ্ধ পেলে কাজ শুরু করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন