Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

সরকারি কেনাকাটায় গভীর মনোযোগ দিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৩:১৫ পিএম

সরকারি কেনাকাটায় আরও গভীর মনোযোগী ও সতর্ক হতে এবং প্রকল্প কেনাকাটায় ব্যয়গুলো গভীরভাবে মনোযোগ সহকারে দেখা উচিত বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ মঙ্গলবার শেরে বাংলা নগরস্থ পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এনইসি ভবনে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) সভা শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান।

মন্ত্রী বলেন, সরকারি বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নে আমাদের বিভিন্ন জিনিস কেনাকাটা করতে হয় যেমন-কলম, পেন্সিল সবকিছুই। বৈঠকে এসব প্রকল্প কেনাকাটায় ব্যয়গুলো গভীরভাবে মনোযোগ সহকারে দেখা উচিত বলে একমত প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, প্রকল্প ব্যয়ে অনিয়ম হলে সরকার বিব্রত হয়। তাই প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়টিতে আরও গভীর মনোযোগ দিতে আমাদেরকে বলেছেন। সচিবদেরও বলেছেন।

তিনি আরও বলেন, ভারতের ঝাড়খণ্ড হতে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ আমদানি করার লক্ষ্যে ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার রহনপুর থেকে মনাকষা সীমান্ত পর্যন্ত ৪০০ কেভি সঞ্চালন লাইন নির্মাণ' প্রকল্প নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এমন একটা সময় আসবে আমরা যে লাইন দিয়ে বিদ্যুৎ আনছি সে লাইন দিয়েই বিদ্যুৎ রফতানি করব।

এছাড়া সড়কের মান বজায় রাখা, রাস্তা প্রশস্তকরণ, ড্রাইভারদের জন্য বিশ্রামাগার স্থাপনসহ সড়ক সংক্রান্ত নির্দেশনাগুলোও আজকের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী আবারও দিয়েছেন।



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৭:২২ পিএম says : 0
    সরকারি কেনাকাটায় পুকুর চুরী হচ্ছে এটা আমারা সবাই জানি। আজ সেটাকে খুবই সুন্দর ভাবে প্রধানমন্ত্রী মেনেনিয়ে তাঁর ভদ্রাচিত নির্দেশও দিয়ে দিলেন। প্রধানমন্ত্রী ভদ্র ভাষায় বললেন প্রকল্প ব্যয়ে অনিয়ম হলে সরকার বিব্রত হয়। তাই তিনি এ বিষয়টিতে আরও গভীর মনোযোগ দিতে নির্দেশ দিয়েছেন। খুবই ভাল কথা কিন্তু ওনার এই নির্দেশ সরকারি যন্ত্র মানে আমলারা কি মান্য করবেন??? বিগত সময়ে প্রধানমন্ত্রী ভাল ভাল নির্দেশ দিয়েছেন সেসব বাস্তবায়িত হতে আমরা দেখিনি। আমরা শুধুই প্রধানমন্ত্রীর মুখ থেকে ভাল ভাল কথা শুনে খুশিতে আত্মহারা হয়ে যাই আর ওনার প্রশংসা করতে থাকি। কিন্তু আমরা কখনও প্রধানমন্ত্রীর এসব সুন্দর সুন্দর কথা বা নির্দেশ বাস্তবায়িত হচ্ছে কিনা সেদিকে খেয়াল করি না। আমাদের সাংবাদিক ভাইয়েরা প্রধানমন্ত্রীর এসব কথা বিভিন্ন কায়দায় পত্রিকায় লিখে আমাদেরকে খুশী করেন কিন্তু আমাদের সাংবাদিক ভাইয়েরা এই নির্দেশ গুলো বাস্তবায়িত হচ্ছে কিনা সেটা নিয়ে কোন লিখা লিখেন না। তবে তথাকথিত বিরুধী পক্ষের বুদ্ধিজীবিরা প্রধানমন্ত্রীর কর্মকাণ্ড নিয়ে বিরুপ কথা বলেন। আমরা তাদের সেসব কথা কোন দিনও বিশ্বাস করতে পারিনা কারন ওনারা আমাদের কাছে মিথ্যার রাজা হিসাবে প্রমাণিত। এখন যদি আমাদের সাংবাদিক ভাইয়েরা এসব কথাগুলো প্রচারের সাথে সাথে এর ফলাফলের উপর নজর রাখেন এবং আমাদেরকে জানাতে থাকেন তাহলে আমরা এরউপর সমালোচনা করতে পারি। এতেকরে আমাদের প্রধানমন্ত্রী ওনার ওয়াদার উপর বিরুপ মন্তব্য বা প্রতিক্রিয়া দেখতে পাবেন এবং সংশোধনের প্রচেস্টা করবেন। এভাবেই একটা জাতী তার গন্তব্যে পৌছাতে পারবে এটা আমার বিশ্বাস। আল্লাহ্‌ আমাকে সহ সবাইকে যাহা করতে পারব তাহাই বলিব এমন মনভাব করে দিন। আমিন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রধানমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ