Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১ হিজরী

সাঁতরে টানা চারবার ইংলিশ চ্যানেল পাড়ির রেকর্ড ক্যান্সারজয়ীর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৪:২৪ পিএম

মরণব্যাধি ক্যান্সারকে জয় করা যুক্তরাষ্ট্রের কলারাডোর অঙ্গরাজ্যের বাসিন্দা সারাহ থমাস প্রথম কোনো ব্যক্তি হিসেবে সাঁতরে টানা চারবার ইংলিশ চ্যানেল পাড়ির রেকর্ড গড়েছেন। রোববার (১৫ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় সময় সকালে যাত্রা শুরু করে দীর্ঘ ৫৪ ঘণ্টা পর মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) যাত্রা শেষ করে সারাহ এই রেকর্ডটি গড়েন। খবর বিবিসি।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, ৩৭ বছর বয়সী এই ম্যারাথন সাতারু মাত্র ১ বছর আগেই স্তন ক্যান্সারের চিকিৎসার মধ্য দিয়ে গেছেন। নিজের অনন্য এই অর্জনকে সারাহ সকল ক্যান্সারজয়ী ব্যক্তিদের প্রতি উৎসর্গ করেছেন।

রেকর্ড গড়ার পর সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘সত্যিকার অর্থে এটি আমার বিশ্বাস হচ্ছে না। আমি কেবল শুরু করতে চেয়েছি; যাত্রা শুরুর পর সমুদ্রতীরের অনেকেই আমাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। যদিও এতে আমি নিজেই বিস্মিত।’

অনন্য এই রেকর্ড অর্জনের পর সারাহ থমাস আরও বলেছেন, ‘সাতারের সবচেয়ে কঠিন দিকটি ছিল লবণাক্ত পানি, এটি বারবার আমার গলা ও মুখে ঢুকে পড়ছিল। যেখানে প্রতিটি পথ পাড়ি দেওয়াই ছিল বেশ কঠিন। সর্বশেষ আমি যখন ফ্রান্স থেকে এখানে আসি তখনকার পরিস্থিতি সত্যিই বেশ কঠিন ছিল; যা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না।’

এ দিকে সূত্রের বরাতে বিবিসি জানায়, এর আগে মাত্র চারজন সাঁতারু টানা তিনবার না থেমে ইংলিশ চ্যানেল পাড়ির রেকর্ড গড়েছেন। সারাহর আগে আর কেউ চারবার এই চ্যালেঞ্জটি সম্পন্ন করেননি।

অপর দিকে ইংলিশ চ্যানেল সাঁতারের অফিসিয়াল পরিদর্শক কেভিন মরফি বলেছেন, ‘এটি ছিল সারাহের এক অসাধারণ বিজয়। তিনি তার ধৈর্য এবং সহিঞ্চুতার চূড়ান্ত পরীক্ষা দিয়েছেন। সত্যিকার অর্থেই যা অতি উৎসাহের এবং আনন্দের। দিন শেষে আমরা সকলেই অনেক আবেগ প্রবণ হয়ে পড়েছিলাম।’

প্রতিবেদনে জানানো হয়, খুব শিগগিরই ডোভার বিচে শ্যাম্পেন ও চকলেটের সঙ্গে নিজের অনন্য এই রেকর্ড উদযাপন করবেন সারাহ। এর আগে ২০০৭ সালে নিজের প্রথম ওপেন-ওয়াটার ইভেন্ট সম্পন্ন করেন তিনি। পরে ২০১২ সালে দ্বিতীয় এবং ২০১৬ সালে তৃতীয়বারের মতো ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়েছিলেন এই মার্কিন নারী।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ