Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ সফর ১৪৪১ হিজরী

আপনাদের পাহারাদার ছিলাম, থাকবো: মমতা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১১:৪৩ এএম

পশ্চিমবঙ্গের ‍মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেছেন, এনআরসিকে রাজনৈতিক হাতিয়ার করা হচ্ছে। অপপ্রচারে কান দেবেন না। আমি থাকতে পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি হবে না। দিল্লি থেকে ফিরে এনআরসি নিয়ে এই মন্তব্য করেন মমতা। তবে এনআরসি না হলেও ভোটার তালিকায় নাম তুলে রাখার অনুরোধ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী।

পশ্চিমবঙ্গে ভোটার তালিকা সংশোধন ও ডিজিটাল রেশন কার্ড নিয়ে এনআরসি গুজব ছড়িয়েছে। তবে এ নিয়ে রাজ্যবাসীর আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই বলে স্পষ্ট জানিয়েছেন মমতা। তিনি বলেন, কিছু অপপ্রচার চলছে। বাংলায় এনআরসি নিয়ে দিল্লিতে কথা হয়নি। রাজনৈতিক কারণে বাংলায় এনআরসি নিয়ে ভয় দেখাচ্ছে। উস্কানিমূলক কথা বলছে। এতে মানুষের হৃদয়ে দুঃখ লাগছে।

তার রাজ্যে এনআরসি হবে না বলেও পশ্চিমবঙ্গের মানুষদের আশ্বস্ত করেছেন মমতা। তিনি বলেন, বাংলার মানুষকে আশ্বস্ত করবো, কোনও এনআরসি হবে না এখানে। আমাকে বিশ্বাস করেন তো! এনআরসি নিয়ে রাজনৈতিক প্রচার করছে। এটা রাজনীতির হাতিয়ার। বাংলায় প্রশ্নই আসে না। হবে না হবে হবে না।

মমতা বলেন, ভয় পেয়ে লাইনে দাঁড়ানো। ভয় পেয়ে শরীর খারাপ করা। চিন্তা করার কোনও কারণ নেই। ভোটার তালিকায় নাম রয়েছে। নিজের নামে জমি-বাড়ি আছে, আবার কী চাই? ভোট দেওয়া মানে নাগরিক, এটাই তো আপনার সম্বল। এটা ডিজিটাল রেশন কার্ড। এটা সুযোগ দেয়া হচ্ছে। এটার সঙ্গে এনআরসি-র সম্পর্ক নেই। চিন্তার কারণ নেই। আপনাদের কারও গায়ে হাত দিতে গেলে মমতার গায়ে হাত দিতে হবে। আপনাদের পাহারাদার ছিলাম, থাকবো।

তবে ভোটার তালিকায় নাম তোলার জন্য অনুরোধ করেছেন মমতা। তার ভাষায়, একটু চেক করে নিন। ভোটার লিস্টে নামটা তুলে রাখবেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠকে পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি নিয়ে কোনও কথা হয়নি বলে আরও একবার জানিয়েছেন মমতা। তার কথায়, আসামে এনআরসির জন্য কত মানুষ মারা গেছে। সেটি বলতেই তো দিল্লি গেলাম। বিষয়টি দেখে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তাই বলে এলাম দিল্লি গিয়ে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন