Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

বগুড়ায় দুটি ক্লাবে অভিযান

নগদ টাকা, জুয়ার সরঞ্জামসহ আটক ১৫

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

ঢাকায় বিভিন্ন স্থানে অবৈধ ক্যাসিনোতে অভিযান চালাচ্ছে আইনÑশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। এই অভিযানের জোয়ার ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন জেলা শহর গুলোতে।
বগুড়া শহরের প্রাণকেন্দ্র সাতমাথা এবং আওয়ামী লীগ অফিস লাগোয়া দেড়শ বছরের পুরনো অভিজাত টাউন ক্লাবে পুলিশের অভিযানে ক্লাব সেক্রেটারি শামীম কামাল শামীমসহ ১৫ জনকে আটক, নগদ ১৬শ’ টাকাসহ জুয়ার সরঞ্জাম আটক করেছে পুলিশ। জেলা শহরে এমন ঘটনা এখন টক অব দ্যা টাউন পরিণত হয়েছে।
অভিযান সম্পর্কে বগুড়া সদর থানার ওসি এস এম বদিউজ্জামান জানান, এর আগেও সেখানে দুইবার অভিযান চালিয়ে কয়েকজন জুয়াড়িকে আটক করা হয়েছিল। তবে এবারের অভিযানে আটককৃতদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে মামলা দায়ের করা হবে।
তিনি আরও বলেন, গত শনিবার রাত ৯টার দিকে ধারাবাহিক অভিযানের অংশ হিসেবে বগুড়ায় অভিজাতদের জুয়ার আখড়া হিসেবে চিহ্নিত বগুড়ার টাউন ক্লাবে অভিযান চালানো হয়। ক্লাব সেক্রেটারি শামীমসহ যে ১৫ জনকে আটক করা হয় তারা হলেন গোলাম আলী (৭৩), হেলাল উদ্দিন (৬৫), মো. খালেক (৬৮), আমিন্লু ইসলাম (৫০), মুকুল (৬৮), মঞ্জুরুল আলম (৭০), আব্দুল ওয়াছেক পিন্টু (৬৫), সিরাজুল ইসলাম (৪৮), মো. সাগর (২৬), মোক্তার হোসেন (৪৮), বাচ্চু মিয়া (৪৮), আবুল হোসেন (৭০), কে এন আলম শহিদুল ইসলাম (৬৫) এবং শহিদুল ইসলাম (৩৮)। এ সময় কয়েক সেট তাসসহ নগদ টাকা উদ্ধার করে পুলিশ। অভিযানে নেতৃত্ব দেন সদর থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) রেজাউল করিম রেজা এবং ইন্সপেক্টর হাসান আলী।
অভিযানে জব্দকৃত টাকার পরিমাণ মাত্র ১৬শ’ হওয়া প্রসঙ্গে ক্লাব সংশ্লিষ্ট এক সূত্র জানায়, সাধারণত এই ক্লাবে জুয়ার আসরে লাখ লাখ টাকা লেনদেন হয়। জুয়াড়িরা এখানে আসা শুরু করে রাত ১১টার পর থেকে। রাতভর চলতে থাকে খেলা। তবে ঘটনার রাতে পুলিশ ৯ টার দিকে অভিযান শুরু করায় আসল জুয়াড়িরা ধরা খাওয়ার হাত থেকে বেঁচে গেছে ।
এদিকে টাউন ক্লাবের জুয়ার আসরে পুলিশের অভিযান নিয়ে স্থানীয়রা বলছেন বগুড়ার আরো দুটি ক্লাব স্টেশন ও রাইফেল ক্লাবে কেন অভিযান চালানো হলো না। তারা বলেছন, বগুড়া টাউন ক্লাব, ইউএফসি ক্লাব এবং শহীদ তারেক সংঘ ক্লাবে ইতোপূর্বে একাধিকবার অভিযান পরিচালিত হলেও কখনোই রাইফেল ক্লাব ও স্টেশন ক্লাবে অভিযান পরিচালিত হয়নি। তবে এর পেছনে কোন অদৃশ্য শক্তির হাত আছে কিনা এমন প্রশ্ন এখন সবার।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন