Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১ হিজরী

‘শতভাগ দিলে তবেই শিরোপা’

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০২ এএম

একটি মাত্র জয়! কিন্তু কত কিছুই না বদলে দিয়েছে আমূলে। শুধু ‘বহুল আকাক্সিক্ষত’ শব্দ দিয়ে যার সীমা বিচার করাও হয়ত বোকামি-ই হবে। এর প্রমাণও মিলছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের শরীরী ভাষায়, পোষাকী আচরণে। পরশু ঢাকায় পা রাখার সময় বিমানবন্দরে সাকিব-মুশফিক-মাহমুদউল্লাহদের চোখে মুখে আত্মবিশ্বাসের যে ছাপ দেখা গেছে তার ছিঁটে ফোঁটাও ছিলনা চট্টগ্রামে যাবার আগেও। গতকাল মিরপুরে একটি মাত্র প্রতিপক্ষের বিপরীত অতীতই যার কারণ। অবশেষে খুলেছে আফগান গোরো।

আফগানিস্তানের সঙ্গে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি রেকর্ড খুবই পীড়াদায়ক। সেই ২০১৪ সালে প্রথম দেখায় জেতার পর টানা চার ম্যাচ হারে বাংলাদেশ। এতদিন পর হারের বৃত্ত ভেঙে চট্টগ্রামে এসেছে দ্বিতীয় জয়। গেল শনিবার জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ত্রিদেশীয় সিরিজে ফাইনালের ড্রেস রিহার্সালের ম্যাচে আফগানদের ৪ উইকেটে হারায় সাকিব আল হাসানের দল।

চট্টগ্রামের সে ম্যাচে সেরাটা নিংড়ে না দিয়েও রশিদ খানদের হারাতে পারায় আত্মবিশ্বাসে ভরপুর হয়ে উঠেছেন অলরাউন্ডার সাইফুদ্দিন। লিগ পর্বের ঐ শেষ ম্যাচে আফগনদের হারানোর পর এই পেস অলরাউন্ডার আশা চড়িয়েছিলেন, সামর্থ্যরে ৬০-৭০ ভাগ দিয়ে খেললেও ফাইনালে শিরোপা জেতা সম্ভব। কিন্তু প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো বললেন ভিন্ন কথা। সামর্থ্যরে পুরোটা না নিয়ে খেললে বরং হারের সম্ভাবনাই দেখছেন তিনি। ফাইনালের আগের দিন গতকাল সংবাদ সম্মেলনে সাইফুদ্দিনের এই বক্তব্য ডমিঙ্গোকে জানানো হলে, তিনি দলের পেস আক্রমণের অন্যতম ভরসার সঙ্গে স্পষ্ট দ্বিমত জানান, ‘না একদমই না। আমি তা মনে করি না যে, ৬০ ভাগ দিলেই খেলায় জিততে পারব। জিততে হলে আমাদের অনেক ভালো খেলতে হবে। আমরা যদি ৬০ ভাগ দিয়ে খেলি আর আফগানিস্তান তাদের সামর্থ্য দিয়ে খেলে, তাহলে তারাই জিতবে।’
টুর্নামেন্টে প্রথম দেখায় বাংলাদেশকে উড়িয়ে দেওয়া আফগানিস্তান পরের ম্যাচে আগে ব্যাট করে মাত্র ১৩৮ রানের পুঁজি পায়। রান তাড়ায় বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরাও বিপদে পড়েছিলেন। কিন্তু অধিনায়ক সাকিবের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে অবশেষে আফগানদের হারায় বাংলাদেশ। দলটির কোচ মনে করেন, সেদিনের মতো সামর্থ্যরে পুরোটা দিতে না পারলে কাপটা হাতছাড়া হতে পারে তাদের, ‘গত ম্যাচে আমরা ৬০ ভাগ দিয়ে খেললে আফগানিস্তান ৫০ ভাগ দিয়ে খেলতে পেরেছে। এই কারণে আমরা জিতেছি। আমরা আমাদের একাগ্রতা বাড়াতে না পারলে কোনো সন্দেহ নেই আফগানিস্তান আমাদের হারাবে।’

এছাড়া নানা সমালোচনার মধ্যে থাকা মুশফিকুর রহিমের কিপিংয়েও সন্তুষ্ট এ প্রোটিয়া। বরাবরের মতো এবারও উইকেটের পেছনে হতাশ করেছেন অভিজ্ঞ এ উইকেটরক্ষক। ক্যাচ ছেড়েছেন, স্টাম্পিংও মিস করেছেন। সঙ্গে বেশ কিছু বল ছেড়ে বাই হিসেবে প্রতিপক্ষকে বাউন্ডারি উপহার দিয়েছেন। তারপরও তাকে শুধু ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলানোর কথা উড়িয়ে দিয়েছেন ডমিঙ্গো। লিটন দলে থাকলেও তাকে ফিল্ডার হিসেবেই চান তিনি, ‘এই মুহূর্তে সম্ভাবনা নেই (লিটনের কিপিংয়ের)। লিটন মাঠে যেভাবে নিজেকে মেলে ধরে, আমরা তাতে সন্তুষ্ট। সে দারুণ ফিল্ডার, মুশির চেয়ে ভালো ফিল্ডার। আমার মতে, যতজন ভালো ফিল্ডারকে আমরা পাই, তত দলের জন্য ভালো। লিটন-আফিফ-শান্তর মতো ফিল্ডাররা যে রান বাঁচায় মাঠে, সেটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

লিটন নয়, মুশফিককে দিয়ে কিপিং করানোর পক্ষে যুক্তিও দিয়েছেন কোচ, ‘সে (লিটন) ভালো ফিল্ডার। মুশি স¤প্রতি দুয়েকটি বল মিস করেছে বটে। তবে মুশি যেভাবে কিপিং করে, তাতে এমনিতে আমরা খুশি। স্টাম্পের পেছনে সে দারুণ প্রাণবন্ত, অনেক অভিজ্ঞ। স্টাম্পের পেছন থেকে খুব ভালো দেখতে পারে বলে অধিনায়ককে কার্যকর কিছু পরামর্শ সে দিতে পারে। সে কিপিং করলে অনেক সুবিধা পাই আমরা।’

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: শিরোপা

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন