Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

প্রধানমন্ত্রী ভারতকে দিয়ে আসেন আনতে পারেন না কিছুই মানববন্ধনে মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০২ এএম

=প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সফলে সব উজাড় করে দিয়ে আসেন এবং কিছুই আনতে পারেন না বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ভারতে গেছেন। আমরা সবসময় আশা করে থাকি, ভারতের সঙ্গে এই সরকারের নাকি সুউচ্চ সম্পর্ক। যতবার প্রধানমন্ত্রী ভারত সফরে যান ততবার আমরা হতাশ হই। যতবার তিনি ভারত সফর থেকে ফিরেন ততবার দেখি আমাদের মূল সমস্যাগুলোর কোনও সমাধান হয় না। তিনি দিয়ে আসেন একেবারে উজাড় করে, আনতে পারেন না কিছুই। গতকাল (বৃহস্পতিবার) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে দেশের জনগণ সুখবর শুনতে চায়। কারণ এখনো সীমান্তে হত্যা সমস্যার সমাধান হয় না, তিস্তার পানির সমস্যার সমাধান হয় না, ফারাক্কার বাঁধ খুলে দেয়ায় আমাদের দেশ বন্যায় তলিয়ে যায়, বাণিজ্যের মধ্যে যে ভারসাম্যহীনতা আছে তারও সমাধান হয় না। জনগণ চায় তিস্তাসহ সকল অভিন্ন নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা বাংলাদেশ পাবে। আমরা আশা করব সীমান্তে যেন হত্যা বন্ধ হয়ে যায়।
কারও অনুকম্পায় খালেদা জিয়া মুক্ত হবেন না জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, তিনি অবশ্যই তাঁর যে হক, ন্যায্য অধিকার, জামিন পাওয়ার অধিকার, সেই অধিকারেই মুক্ত হবেন। বেআইনি, মিথ্যা মামলা দিয়ে আর যাই করা হোক, খালেদা জিয়াকে আটকে রাখা যাবে না। জনগণ অবশ্যই আন্দোলনের মধ্য দিয়ে তাদের প্রিয় নেত্রীকে বের করে নিয়ে আসবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে ক্যাসিনো নিয়ে অনেক লাফালাফি হচ্ছে। ক্যাসিনোর চেয়ে যে বড় সম্পদ ভোটের অধিকার, স্বাধীন মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকার অধিকার, সেইসব অধিকারগুলো তো লুট হয়ে গেছে। সেজন্য আজকে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা ফিরিয়ে আনতে হবে।
বিএনপির এই নেতা বলেন, দুর্নীতি ও ল্টুপাটের স্বর্গরাজ্য’ ও ‘গণতন্ত্র ধ্বংসের’ আয়োজন টিকিয়ে রাখতে খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে আটকে রাখা হয়েছে। বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করার তাদের যে নীল-নকশা, তা তারা বাস্তবায়িত করতে পারবে না। সেজন্যই দেশনেত্রীকে আটক করে রেখেছে।

সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শওকত মাহমুদের সভাপতিত্বে ও সদস্য ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেনের পরিচালনায় মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেনÑ সাংবাদিক রুহুল আমিন গাজী, এম আবদুল্লাহ, কাদের গনি চৌধুরী, শহিদুল ইসলাম, শিক্ষাবিদ প্রফেসর শামসুল আলম, চিকিৎসক প্রফেসর মোস্তাক রহিম স্বপন, প্রকৌশলী রিয়াজুল ইসলাম রিজু, কৃষিবিদ প্রফেসর মোস্তাফিজুর রহমান, শামীমুর রহমান শামীম, শিক্ষক-কর্মচারী ঐক্যজোটের জাকির হোসেন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের রফিকুল ইসলাম ও নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের জাহানারা বেগম।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রধানমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন