Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

সালাহকে দেখে ইসলামের পতাকাতলে

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

ছিলেন ঘোরতর ইসলাম বিদ্বেষী। তিনিই এখন পুরোদুস্তোর মুসলিম। কিভাবে? মিসরের ফুটবলার মোহাম্মদ সালাহকে দেখে মুসলমানদের কাতারে নাম লিখিয়েছেন বেন বার্ড নামের এক ব্রিটিশ যুবক।
ব্রিটেনের জনপ্রিয় সংবাদপত্র ‘দ্য গার্ডিয়ান’-কে দেয়া এক সাক্ষাতকারে বার্ড তার জীবন বদলে যাওয়ার কাহিনী বর্ণনা করেছেন। যেখানে তিনি পরিষ্কারভাবেই উল্লেখ করেছেন সালাহর নামটি।
বার্ড নটিংহামের একজন মৌসুমি টিকিট বিক্রেতা। সেখানে ফরেস্ট ফুটবল ক্লাবে টিকিট বিক্রি করেন। তিনি জানান, এক সময় মুসলিম বিদ্বেষী ছিলেন, কিন্তু সালাহর জীবনাচরণ দেখে আস্তে আস্তে ইসলামের প্রতি আকর্ষণ অনুভব করেন এবং শেষতক ইসলাম ধর্ম কবুলও করেন। বার্ড বলেন, ‘মোহাম্মদ সালাহই প্রথম মুসলিম যার মধ্যে আমি নিজেকে খুঁজে পেয়েছি। তিনি যেভাবে জীবনযাপন করেন, যেভাবে মানুষের সঙ্গে কথা বলেন। একবার দেখলাম তিনি লিভারপুলের একজন ভক্তের সঙ্গে ছবি তুলছেন, যে কিনা ভাঙা নাক নিয়ে তার পেছনে ছুটছিল। আমি জানি অন্য ফুটবলারও এমন করতে পারে, তবে আপনি শুধু সালাহর কাছেই এমনটা আশা করতে পারেন।’
ছোটবেলা থেকে মিডিয়ায় ইসলামের বিরুদ্ধে শুনে তার মনেও বিরূপ ধারণা জন্মেছিল। তবে কখনও পড়াশোনার সময় কোনো মুসলিমের কাছে এমন কোনো আচরণ লক্ষ্য করেননি বলে তার মনে খটকা লাগতো, ‘আমি সবসময়ই মুসলিমদের ঘৃণা করতাম। আমি আর দশজন শ্বেতাঙ্গ ছাত্রের মতো বিভিন্ন শহরে গিয়েছি। প্রথম আমি ইসলাম সম্পর্কে জানতে পারি পড়ালেখার মাধ্যমেই। বিশ্ববিদ্যালয় আমাকে সুযোগ দিয়েছিল সৌদি আরবের ছাত্রদের সঙ্গে সাক্ষাত করার। আমি ভাবতাম, তারা খারাপ মানুষ যারা তলোয়ার নিয়ে চলাফেরা করে। কিন্তু যাদের সঙ্গে মিশেছি, সবাই খুব ভালো মানুষ ছিল। আরব দেশ সম্পর্কে আমার যে ধারণা ছিল তার কিছুই মিল পাইনি।’
মুসলমানদের ধর্মগ্রন্থ আল কুরআন নিয়ে বার্ড বলেন, ‘যখন মানুষ কুরআন পড়ে অথবা ইসলাম সম্পর্কে পড়ালেখা করে, তারা আলাদা কিছুই দেখতে পায়। তেমনটা নয়, যেমনটা মিডিয়ায় প্রচার হয়। আমি মুসলিম সম্প্রদায়ে নতুন এবং এখনও শিখছি। এটা কঠিন। পুরো লাইফস্টাইলই আলাদা।’



 

Show all comments
  • Md Abu Bkkar ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ২:১৫ এএম says : 0
    এভাবে মুসলমানদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা মানুষ গুলো একসময় মুসলমানদের বন্ধু হবে
    Total Reply(0) Reply
  • Parvez Hossain ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ২:১৪ এএম says : 0
    এ জন্যই আমরা সবাই ইসলামের নিয়ম কানুন গুলো মেনে চলার চেষ্টা করব।কারন কাকে দেখে কে হেদায়েতের পথে আসে তার কোনো গ্যারান্টি নেই।আল্লাহ আমাদেরকে সঠিক পথে চলার তৌফিক দান করুক।
    Total Reply(0) Reply
  • Mizan Ur Rahman Manik ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ২:১৫ এএম says : 0
    ইসলাম সবসময় উত্তম ব্যবহারের তাগিদ দেয়।একমাত্র উত্তম ব্যবহার দিয়েই প্রাথমিক যুগে ইসলাম এতো জনপ্রিয়তা পেয়েছিল।মেরে ধরে তলোয়ারের জোরে ইসলাম প্রতিষ্ঠা পায়নি...
    Total Reply(0) Reply
  • Ibrahim Kazi ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩৮ এএম says : 0
    আলহামদুলিল্লাহ।।
    Total Reply(0) Reply
  • Shathil Miah ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩৮ এএম says : 0
    আলহামদুলিল্লাহ অনেক ভালো লাগলো
    Total Reply(0) Reply
  • Julfikar Mondal ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩৮ এএম says : 0
    ZAZAK ALLAH KHAYER
    Total Reply(0) Reply
  • Anamul Laskar ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩৮ এএম says : 0
    Subhanallah
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ নাজমুল ইসলাম ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৪০ এএম says : 0
    অভিনন্দন, শান্তির ধর্মে আপনাকে সুসাগতম।
    Total Reply(0) Reply
  • Akhter Hossain ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ২:১৫ এএম says : 0
    আলহামদুলিল্লাহ। হেদায়েত যেহেতু স্বয়ং মহান আল্লাহর হাতে, সেহেতু তিনি যাকে হেদায়েত দেন তিনিই হেদায়েত প্রাপ্ত হন।
    Total Reply(0) Reply
  • Ahmed hossain khan ৫ অক্টোবর, ২০১৯, ৭:১০ এএম says : 0
    All should to study the holy Quran & to familiar it message, really it is a stunning scripture please start to touch, ahmed hossain khan
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন