Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার , ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

শিক্ষক মাত্রই সম্মানের অধিকারী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২০ পিএম

একজন শিক্ষার্থীর প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠার পেছনে বাবা-মার চেয়ে শিক্ষকের অবদান কোনো অংশে কম নয়। স্বভাবতই শিক্ষকরা মানুষ গড়ার কারিগর। মহান আল্লাহতায়ালাও শিক্ষকদের আলাদা মর্যাদা ও সম্মান দান করেছেন। ফলে মুসলিম সমাজে শিক্ষকমাত্রই বিশেষ মর্যাদা ও সম্মানের অধিকারী।
হাদিসের পরিভাষায়ও রয়েছে এ নির্দেশনা- হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, ‘তোমরা জ্ঞান অর্জন কর এবং জ্ঞান অর্জনের জন্য আদব-শিষ্টাচার শেখ। যার কাছে তোমরা জ্ঞান অর্জন কর, তাঁকে সম্মান কর।’ মহানবী (সা.) নিজেই ঘোষণা করেছেন- ‘শিক্ষক হিসেবে আমি প্রেরিত হয়েছি (ইবনু মাজাহ :২২৫)।’
ইসলাম শিক্ষকদের দিয়েছে অনন্য মর্যাদা। সাহাবায়ে কেরামের মাঝেও ছিল শিক্ষকদের কদর ও সম্মান। এ কারণেই যুগে যুগে মুসলমানরা শিক্ষকদের মর্যাদার প্রতি বিশেষ অবদান রেখে আসছে।
একবার হজরত জায়েদ ইবনে সাবিত (রা.) তার সওয়ারিতে ওঠার জন্য রেকাবে পা রাখলেন। তখন হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) রেকাবটি শক্ত করে ধরেন।
তখন হজরত জায়েদ ইবনে সাবিত বললেন, হে আল্লাহর রাসুলের চাচাতো ভাই! আপনি (সাওয়ারির রেকাব থেকে) হাত সরান। উত্তরে হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, ‘না’। আলেম (শিক্ষক) ও বড়দের সঙ্গে এমন সম্মানসূচক আচরণই করতে হয়।
একজন শিক্ষিত শিক্ষক সমাজ বদলে একটি বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারেন। আদর্শ শিক্ষকই শুধু আদর্শ সমাজ প্রতিষ্ঠার পথ তৈরি করতে পারেন। এ মর্মে নবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘দুই ব্যক্তি ব্যতীত অন্য কারও পদ-গৌরব লোভনীয় নয়। তা হলো- ১. ধনাঢ্য ব্যক্তি, যাকে আল্লাহ ধন-সম্পদ দান করেছেন এবং তা সৎপথে ব্যয় করার ক্ষমতা দিয়েছেন। ২. ওই ব্যক্তি, যাকে আল্লাহ বিদ্যা দান করেছেন এবং সে অনুসারে সে কাজ করে ও অপরকে শিক্ষা দেয় (বুখারি :৭১)।
উমর (রা.) ও উসমান (রা.) তাদের শাসনামলে শিক্ষা ব্যবস্থাকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছিলেন। তারা শিক্ষক ও ধর্মপ্রচারকদের জন্য বিশেষ ভাতার ব্যবস্থা করেছিলেন। হজরত উমর (রা.), ওসমানের (রা.) যুগে মুয়াজ্জিন, ইমাম ও শিক্ষকদের সরকারি ভাতা দেওয়া হতো (কিতাবুল আমওয়াল, ১৬৫)।
বস্তুত ইতিহাসে যুগ যুগ ধরে ইসলাম ও ইসলামের মনীষীরা শিক্ষক ও গুরুজনের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের শিক্ষা দিয়ে আসছেন। নিঃস্বার্থভাবে জ্ঞান বিতরণের দীক্ষাও দিচ্ছেন নিরন্তরভাবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন