Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

টাকা না দিলে খাতায় স্বাক্ষর না করা ও পরীক্ষায় ফেল করানোর হুমকি

প্রকাশের সময় : ১৭ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

নাজিরপুর কলেজ ও বঙ্গমাতা মহিলা কলেজ ব্যবহারিক পরীক্ষার নামে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ
নাজিরপুর (পিরোজপুর) উপজেলা সংবাদদাতা
পিরোজপুরের নাজিরপুরে কলেজ শিক্ষকদের বিরুদ্ধে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ব্যবহারিক পরীক্ষার নামে অতিরিক্ত টাকা আদায় ও খাতা বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলা সদরের নাজিরপুর কলেজ ও বঙ্গমাতা মহিলা কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষকসহ সাচিবিক বিদ্যা, আইসিটি (কম্পিউটার শিক্ষা), মনোবিজ্ঞান ও কৃষি শিক্ষা বিষয়ের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে প্রতি বিষয়ের ব্যবহারিক খাতা বাবদ একশ’ থেকে ৩শ’ টাকা ও ব্যবহারিক পরীক্ষা বাবদ পৃথকভাবে ৩শ’ টাকা করে আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর ধার্যকৃত টাকা না দিলে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের ব্যবহারিক পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেয়ার হুমকিসহ  ব্যবহারিক খাতায় স্বাক্ষর না করার অভিযোগ ওঠেছে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের বিরুদ্ধে। নাজিরপুর ডিগ্রী কলেজে কেন্দ্র থাকায় ওই কেন্দ্রের অধীনের সকল কলেজের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকেও একই হারে টাকা আদায় করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। নাজিরপুর কলেজের ছাত্র শুভ বৈরাগী জানান, সাচিবিক বিদ্যার খাতা বাবদ ৭৫ জন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে জনপ্রতি ৩শ’ টাকা করে আদায় করা হয়েছে। আর এ টাকা আদায়ের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে স্থানীয় এক ফটোস্ট্যাটের দোকান মালিককে। সাচিবিক বিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ঠাকুর চাঁদ মজুমদারের কাছে এ টাকা আদায়ের বিষয়ে জানতে ফোন দিলে তিনি এ বিষয়ে সন্তোষজনক কোন জবাব দিতে পারেন নি। বঙ্গমাতা মহিলা কলেজের একাধিক ছাত্রী জানান, আইসিটির (কম্পিউটার) ব্যবহারিক পরীক্ষা বাবদ সংশ্লিষ্ট শিক্ষক সুমন মজুমদার ৪শ’ টাকা করে নিয়েছেন। অভিযুক্ত সুমন মজুমদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। এছাড়া এ কলেজের কৃষি বিষয়ের ব্যবহারিক পরীক্ষার খাতা ও ব্যবহারিক পরীক্ষার খরচ বাবদ প্রতি শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৩শ’ টাকা করে তুলছেন বলেও অভিযোগ করেছে শিক্ষার্থীরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন