Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৩ কার্তিক ১৪২৬, ১৯ সফর ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

কাঁচা রাস্তায় চরম জনদুর্ভোগ

পাকাকরণের দাবি নাগেশ্বরবাসীর

মো. রফিকুল ইসলাম, নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) থেকে | প্রকাশের সময় : ৯ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০২ এএম

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে কাঁচা রাস্তায় কাদা জমে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সন্তোষপুর ইউনিয়নের তালতলা থেকে বয়তুল্যামোড় পর্যন্ত চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে এ রাস্তায় চলাচলকারী জনসাধারণ। রাস্তাটি পাকাকরণ না হওয়ায় কাঁচা রাস্তায় যুগের পর যুগ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে স্থানীয়দের। সারাদেশে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগলেও এই অঞ্চল এখনও উন্নয়ন বঞ্চিত বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ওই অঞ্চলের জনসাধারণ।
সরেজমিন দেখা যায় উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের তালতলা থেকে বয়তুল্যার মোড় পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তাটি কয়েকদিনের বৃষ্টিতে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। স্থানীয়রা জানায় নাগেশ্বরী, ভ‚রুঙ্গামারী ও ফুলবাড়ী উপজেলার অনেক রিকশা, ভ্যান, বাইসাইকেল, মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যান চলাচল করে এ রাস্তা ধরেই। চলাচল করে হাজার হাজার জনসাধাণ। রায়গঞ্জ, নাখারগঞ্জ, গোপালপুর বোর্ডেরহাট, আলেপের তেপতীর হাট-বাজারে যাতায়াত করতে এই কাঁচা রাস্তাটি দিয়ে কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য আনা নেয়ায় কাঁদা পানিতে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। চরম ভোগান্তিতে পড়েছে স্কুল, কলেজের শিক্ষার্থীরা। কিন্তু জনগুরুত্বপূর্ণ এই রাস্তাটির অসংখ্য খানাখন্দে বৃষ্টির পানি জমে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয় পথচারীদের। এছাড়াও রাস্তাটির দুই ধারে নাওডাঙ্গা ও নিমকুশ্যা বিল এবং বিলের উপর নির্মিত ব্রিজ ভেঙে যাওয়ায় পথচারীদের চলাচলে আরও কঠিন সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। এরপরও রাস্তাটি দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করে সন্তোষপুর উচ্চ বিদ্যালয়, কুটি নাওডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মন্ডলপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সৃষ্টি পাবলিক মডেল স্কুল ও সূর্যমূখী শিশু নিকেতনের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।
স্থানীয় সাইফুর রহমান, আনিছুর রহমান, মকবুল হেসেন জানায়, সামান্য বৃষ্টি হলেই রিকশা চালকরা যাত্রী নিয়ে যেতে চায় না। ছেলে-মেয়েদেরকে স্কুলে পাঠালে তারাও যেতে চায় না। কোনো রোগী গর্ভবতী মহিলাকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে চাইলে বিপদে পড়তে হয়।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী বাদশা আলমগীর বলেন, রাস্তাটি পাকাকরণের কাজে পানি নিষ্কাশনের জন্য ছোট ছোট কালভার্ট নির্মাণ করা হচ্ছে। আগামী ১ বছরের মধ্যে রাস্তাটি পাকাকরণের কাজ শেষ হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন