Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার , ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১ পৌষ ১৪২৬, ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

দুদকের সাবেক ডিডি আহসান আলীকে গ্রেফতারের আল্টিমেটাম

বেনাপোল অফিস : | প্রকাশের সময় : ১০ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর সাবেক ডিডি আহসান আলীকে আবারো গ্রেফতার’র দাবি করেছে বেনাপেল বন্দর ব্যবহারকারী ৭ সংগঠন। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে তাকে গ্রেফতার করার আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে সংগঠনের পক্ষে। নির্ধারিত সময়ে আহসান আলী গ্রেফতার না হলে সারা দেশে ব্যবসায়ী সংগঠন গুলো কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করবে। ফলে জাতীয় রাজস্ব আহরণ কর্মকান্ডে বড় ধরনের প্রভাব পড়ার আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা।
বেনাপোল কাস্টমস হাউসের শুল্ক ও ভ্যাট এসোসিয়েশনের আহবায়ক রাজস্ব কার্মকর্তা বিল্লাল হোসেন জানান, হুমকি ও চাপে কমিশনারকে কাবু করতে না পেরে ডিসেম্বর ২০১৮ এ কমিশনারের বিরুদ্ধে জনৈক এডভোকেট শাহাদাত হোসেন নাম দিয়ে (যার অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি) ৪ পাতার একটি মনগড়া ও সাজানো দু’ডজন অভিযোগ সম্বলিত বেনামী লিখে দুদকে জমা দেন এবং তা শতাধিক দপ্তর ও মিডিয়ায় বিতরণ করেন। পত্রটি দুদক আমলে নিয়ে এনবিআরসহ চার জায়গা থেকে অনুসন্ধানের নির্দেশ দেয়। দুদকের অনুরোধে সম্পাদিু জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের তদন্তে একটি অভিযোগও প্রমাণিত হয়নি।

আহসান আলী কেবল হয়রানি, শত্রুতা ও প্রতিহিংসা চরিতার্থের জন্যে দুদকের মতো জাতীয় প্রতিষ্ঠানের নাম, পদবী ও ক্ষমতা এবং প্রশাসনসহ দুদককে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে সক্ষম হন বলে বেনাপোলের ব্যবসায়ী সংগঠন মনে করেন।

দুদক সূত্রে জানা যায়, নানা দুর্নীতি এবং বিভিন্নজনের বিরুদ্ধে বেনামি অভিযোগ দিয়ে প্রায়ই হয়রানি করতেন দুদকের সাবেক উপপরিচালক আহসান আলী। এসব অভিযোগের কারণে ২০১৫ সালে তাকে উপপরিচালক হিসেবে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়। এরপর থেকে তিনি আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠেন। কখনও তিনি ‘দুদকের হবু ডিজি, কখনও দুদকের চেয়ারম্যানের কাছের লোক, কখনও দুদক পরিচালক’ পরিচয় দিয়ে মানুষজনের সঙ্গে প্রতারণা করছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দুদকের একজন পরিচালক জানান, আহসান আলীকে নিয়ে দুদক বিব্রত। প্রতিষ্ঠনের গ্রহণযোগ্য ও সুনাম প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। বেনাপোল কাস্টমস হাউস এর পক্ষ থেকে গতমাসের শেষ দিকে আহসান আলীর বিরুদ্ধে বেনাপোল পোর্ট থানায় মামলা করা হয় ।

জাতিসংঘের এসডিজি এজেন্ডার ১৭.২ অনুযায়ী ‘রাজস্ব’ যেকোন দেশের অগ্রাধিকার। এভাবে সাজানো বেনামী দিয়ে অহেতুক হয়রানিতে রাজস্ব আদায়ের জরুরীকাজ মারাত্মকভাবে বিঘিœত হয়। বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের সিনিয়র সহ সভাপতি আলহাজ্ব নুরুজ্জামান জানান, রাজস্ব আদায়ে সংশ্লিষ্ট জাতীয় রাজস্ব বোর্ডেও কর্মকর্তা কর্মচারী, আমদানিকারক ও সিএন্ডএফ এজেন্টদের হয়রানি বন্ধে আহসান আলীকে অনতিবলম্বে গ্রেফতারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া একান্ত জরুরি বলে ব্যবসায়ী মহল মনে করছেন। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে যদি আহসান আলীকে গ্রেফতার করা না হয় তাহলে সারাদেশে প্রতিটি কাস্টমস হাউসে কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে।

বেনাপোল কাস্টমস’র সহকারী কমিশনার উওম চাকমা জানান, দুর্নীতিবাজ, তদবিরবাজ, ভায়াগ্রা চোরাচালানের গডফাদার সাবেক ডিডি আহসান আলী নিজের বিনিয়োগকৃত ও তদ্বিরকৃত প্রতিষ্ঠান রিতু ইন্টারন্যাশনাল ও জেড. এইচ কর্পোরেশনের ৩১ টি চালানে ২ কোটি ২ লাখ ৩৫ হাজার টাকার শুল্কফাঁকি ধরা পড়ে। পরিকল্পিত শুল্কফাঁকি ও গত জুলাই ২০১৯ তারিখে ২.৫ মে.টন ভায়াগ্রা খালাসে ব্যর্থ হয়ে কমিশনারের বিরুদ্ধে প্রতিশোধমূলক কর্মকান্ডে লিপ্ত হন আহসান আলী।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন