Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫, ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

দেশের চাহিদা মিটিয়ে ফল রফতানি সম্ভব -বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশের সময় : ১৭ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, বিদেশে বাংলাদেশের উৎপাদিত ফলের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। দেশে এখন প্রায় ৮০ প্রজাতির ফল উৎপাদিত হচ্ছে। দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা মিটিয়ে অনেক ফল বিদেশে রপ্তানি করা সম্ভব। এ জন্য ফল প্রক্রিয়াকরণ করতে হবে। সরকার ৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা মোতাবেক রপ্তানি পণ্য সংখ্যা বৃদ্ধি ও রপ্তানি বাজার সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। প্রচলিত রপ্তানি পণ্যের পাশাপাশি অপ্রচলিত পণ্য রপ্তানি বৃদ্ধি করতে সরকার উৎসাহ প্রদান করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে সরকার কৃষিপণ্য রপ্তানিতে শতকরা বিশ ভাগ নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে। অপ্রচলিত পণ্য হিসেবে বাংলাদেশে ফল রপ্তানি লাভজনক হবে। গতকাল ঢাকায় কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ অডিটোরিয়ামে কৃষি মন্ত্রণালয় আয়োজিত তিন দিনব্যাপি জাতীয় ফলদ বৃক্ষরোপণ পক্ষ ২০১৬ ও জাতীয় ফল প্রদর্শনীর উদ্বোধন করে ‘অর্থ পুষ্টি স্বাস্থ্য চান দেশি ফল বেশি খান’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী এ সব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পন্ন। দেশের চাহিদা মিটিয়ে বাংলাদেশ এখন চাল রপ্তানি করছে। যুদ্ধবিধ্বস্ত স্বাধীন বাংলাদেশের হাল ধরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সুজলা-সুফলা একটি সুন্দর দেশ গড়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। আজ তারই যোগ্য কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদূরপ্রসারি পরিকল্পনা ও দক্ষ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্নের বাস্তবায়ন হয়েছে। একসময় দেশের সাড়ে সাত কোটি মানুষের খাদ্যের অভাব ছিল। আজ দেশের ১৬ কোটি মানুষের খাদ্যের অভাব নেই। এখন ৩০ থেকে ৪০ লাখ মে. টন চাল রপ্তানি করতে পারবে বাংলাদেশ। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিক নির্দেশনায় বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ফলেও বাংলাদেশ স্বয়ংসম্পন্ন হতে যাচ্ছে। আগের চেয়ে এখন অনেক বেশি ফল বাংলাদেশে উৎপাদিত হচ্ছে। বিজ্ঞানীদের আন্তর্জাতিক চাহিদা মোতাবেক ফলের জাত উদ্ভাবন করতে হবে। ফল প্রক্রিয়াকরণ আধুনিক করতে হবে। বাংলাদেশের ফল রপ্তানি যোগ্য করে তুলতে হবে। দেশের মানুষের পুষ্টির চাহিদা পূরণের জন্য ফলের উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হবে। ফল রপ্তানি করে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব।
কৃষি সচিব মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অপর বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদে কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. মকবুল হোসেন এমপি, সম্মানিত অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. আবুল কালাম আযাদ। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসি ড. মো. মাহববুর রহমান।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ