Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১১ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

বোয়ালমারী ও আলফাডাঙ্গা যুবলীগের নতুন কমিটিতে স্থান পেলো ছাত্রদল ও যুবদলের নেতারা

যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসের কমিটি বাণিজ্যের শেষ বলি

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১২ অক্টোবর, ২০১৯, ২:৫৩ পিএম

কেন্দ্রীয় যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমানের কমিটি বাণিজ্যে দ্বিধা বিভক্ত হয়ে পড়েছে ফরিদপুরের বোয়ালমারী ও আলফাডাঙ্গা উপজেলার সুসংগঠিত আওয়ামী যুবলীগ।

উপজেলা দুটিতে শক্তিশালী দুটি কমিটি বিদ্যমান থাকতে মোটা অংকের অর্থ বাণিজ্য করে নতুন আহবায়ক কমিটি ঘোষনা করেন ওই কেন্দ্রীয় নেতা। যার ফলে স্থানীয় ভাবে দুইটি শিবিরে বিভক্ত হয়ে গেছে আ’ লীগের সহযোগী সংগঠনের মুজিব সৈনিকেরা। নতুন কমিটিতে স্থান পেয়েছে জামায়াত বিএনপির নেতা কর্মীরা।

জানা যায় ২০১৭ সালের ১৩ মার্চ চতুল ইউপি চেয়ারম্যান শরীফ সেলিমুজ্জামান লিটুকে আহবায়ক করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট বোয়ালমারী উপজেলা যুবলীগের একটি আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় যুবলীগ।

কমিটিটির আহবায়ক শরীফ সেলিমুজ্জামান লিটু ও যুগ্ম আহবায়ক মো. দাউদুজ্জামান শনিবার (১২.১০.১৯) সকালে পৌর শহরের সোনালী ব্যাংকের নিচতলায় তাদের ব্যক্তিগত কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ের সময় জানান, সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে সম্মেলন করে পরীক্ষিত মুজিব সৈনিকদের দিয়ে প্রতিটি ইউনিটে কমিটি গঠন করে উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটি। এবং কেন্দ্রে নির্দিষ্ট সময়ে উপজেলা সম্মেলন করার নির্দেশনা চাইলেও কেন্দ্র থেকে জাতীয় ও উপজেলা নির্বাচনের কারণে বারবার সম্মেলনের সময় পিছাতে থাকে।

সর্বশেষ চলতি বছরের ৩১ জুলাই সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়। সম্মেলনের সকল প্রস্তুতি যখন সম্পন্ন তখন ৩০জুলাই কোন কারণ না দেখিয়েই ফোনে সম্মেলনটি স্থগিত করে দেয় কেন্দ্রীয় যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমান। পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করার পরেও সম্মেলনের তারিখ না দিয়ে গত ১৫ সেপ্টেম্বর গঠনতন্ত্র ও জেলা কমিটিকে পাশ কাটিয়ে ফরিদপুর-১ আসনের এমপি মো. মুনজুর হোসেন বুলবুল যুবলীগের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিচুর রহমানকে ম্যানেজ করে ছাত্রদল থেকে আ’লীগে অনুপ্রবেশকারী মো. রফিকুল ইসলামকে আহবায়ক করে ২৫ সদস্য বিশিষ্ট নতুন একটি কমিটি অনুমোদন করান। নতুন এই কমিটির ১৯ নম্বর সদস্য শেখর ইউনিয়ন যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মনিয়ার, ২২ নম্বর সদস্য ঘোষপুর ইউনিয়ন বিএনপির সহসভাপতি মো. ওবায়দুর রহমান, ১৬ নম্বর সদস্য মো. সাগর উপজেলা ছাত্রদলের ৫৫নম্বর সদস্য ও ১৩ নম্বর সদস্য মো. নাজমুল উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক কমিটির ১৫ নম্বর সদস্য এ ছাড়াও নতুন কমিটিতে জামায়াত বিএনপির একাধিক কর্মী রয়েছেন। যে কারণে নতুন কমিটিকে প্রত্যাখান করেছে উপজেলার সর্বস্তরের যুবলীগের নেতা-কর্মীরা।

অপরদিকে আলফাডাঙ্গা পৌরমেয়র ও যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. সাইফার রহমান সাইফুর জানান, বর্তমান জাতীয় সংসদ সদস্য মো. মুনজুর হোসেন নিজের খেয়াল খুশি মত জামায়াত বিএনপির নেতাকর্মীদের প্রাধান্য দিয়ে উপজেলার শক্তিশালী যুবলীগ কমিটিকে বাদ দিয়ে নতুন একটি কমিটির অনুমোদন এনেছেন। যে কমিটির ১ নং সদস্য জামায়াত নেতা ও সাংসদের ব্যক্তিগত সহকারী সাইফুল্লাহসহ একাধিক জামায়াত বিএনপির নেতা-কর্মী।

ফরিদপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মো. মুনজুর হোসেন বুলবুলের ব্যক্তিগত মুঠোফোনটি বন্ধ থাকায় এ বিষয়ে তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

 


 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফরিদপুর


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ