Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার , ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

ঈশ্বরগঞ্জে স্কুল ছাত্র খুন, হত্যা মামলা নিয়ে ধুম্রজাল!

‘পরিবারের দাবি- এখনো এজাহার দায়ের হয়নি, পুলিশ বলছে মামলা দায়ের হয়েছে’

ময়মনসিংহ ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৭ অক্টোবর, ২০১৯, ৬:১৪ পিএম

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় স্কুল ছাত্র জাহিদুল ইসলাম (১৬) খুনের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলা নিয়ে ধু¤্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। এ নিয়ে নিহতের পরিবার ও স্বজনদের মাঝে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, খুনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় একটি রাজনৈতিক পক্ষ প্রভাব বিস্তার করে প্রতিপক্ষ ঘায়েলে ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করছে। ফলে বিষয়টি নিয়ে সাধারন মানুষের মাঝে ধু¤্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।
নিহত স্কুল ছাত্রের মা নূরেজা পারভীন জানান, আমার পুত্র খুন হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো আমি থানায় এজাহার দায়ের করিনি। তবে আজ (১৭ অক্টোবর) রাতের মধ্যে থানা পুলিশের কাছে খুনিদের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করব।
নিহতের পিতা মো: রফিকুল ইসলাম এখন পর্যন্ত (১৭ অক্টোবর, বিকেল ৫টা পর্যন্ত) থানায় এজহার দায়ের না করার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি দাবি করেন, আমি এখনো থানায় এজাহার দায়ের করিনি। তবে কে বা কারা থানায় এজাহার দায়ের করেছে তাও জানি না। বিষয়টি থানা পুলিশ ভালো বলতে পারবেন। এবিষয়ে ওসির সাথে আমার কোন কথাও হয়নি। তবে অডিশনাল এসপির সাথে কথা হয়েছে। মামলার বিষয়টি আমি উনাকে জানিয়েছি।
সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ জানায়, এ ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা মশিউর রহমান কাঞ্চনকে প্রধান আসামী করে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ২৫ জনের নামে মামলা দায়ের হয়। ওই মামলার বাদি নিহতের মা নূরজাহান।
তবে নিহতের মা নূরেজা পারভীন দাবি করেন, ছেলে খুনের ঘটনায় এখনো তিনি থানায় কোন এজাহার দায়ের করেননি। এবং মামলার এজাহারে ‘নূরজাহান নামে যে স্বাক্ষর করা হয়েছে সেটিও তাঁর না। তবে কে বা কারা থানায় এ এজাহার দায়ের করেছেন সে বিষয়েও তিনি অবগত নন।
তবে ভিন্ন তথ্য দিয়েছেন ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি আহম্মেদ কবীর হোসেন। তিনি দাবি করেন, ছুরিকাঘাতের পর থানায় এজাহার দায়ের হয়েছিল। কিন্তু ভিকটিম মারা যাবার পর মামলাটিতে অন্য রকম পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তবে নিহতের জবাববন্দি নিয়েই এ হত্যাকান্ডের ঘটনার মূল হোতা ঈশ্বরগঞ্জ সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মশিউর রহমান কাঞ্চনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
এবিষয়ে ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস.এম নিয়াজী বলেন, ঘটনার পর মামলা দায়ের হয়েছে। মূল হোতা গ্রেফতার হয়েছে। এতে কোন অপরাধ হয়নি। তবে নিহতের পরিবারের কাছে আরো কোন তথ্য থাকলে মামলায় তা সংযুক্ত করা হবে।
থানা পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্র জানায়, গত ১৫ অক্টোবর সকালে টেস্ট পরীক্ষা দিতে স্কুলে যাওয়ার পথে জাহিদুলকে ছুরিকাঘাত করে খুনিরা। পরে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নেয়ার পর অবস্থায় আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে তাকে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জাহিদুলের মৃত্যু হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হত্যা মামলা


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ