Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার , ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

নারায়ণগঞ্জে রেলওয়ের উচ্ছেদ অভিযান থেমে গেলো আওয়ামী লীগ নেতার অনুরোধে

সময় পেলো অপর আওয়ামী লীগ নেতার অবৈধ স্থাপনা, আড়াই হাজার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

নারায়ণগঞ্জ থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ অক্টোবর, ২০১৯, ৭:১৫ পিএম

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের অনুরোধে ৩দিন সময় পেয়েছে নগরের ২নম্বর রেলগেট এলাকার মনির হোটেল ও তৎসংলগ্ন ১০টি দোকান। মনির হোটেলের মালিক মনির হোসেন মহানগর আওয়ামী লীগের নেতা।
রেলওয়ের জায়গায় গড়ে উঠা এসব দোকান ও মনির হোটেল এর একাংশ না ভাঙতে আনোয়ার হোসেন অনুরোধ করলে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ তাদের তিন দিনের মধ্যে স্থাপনা সরিয়ে নিতে সময় বেঁধে দেন। এদিকে সময় পেয়েই তারা উচ্ছেদ ঠেকাতে আদালতের স্মরণাপন্ন হতে চলেছেন বলে স্থানীয় একটি সূত্রে জানা গেছে। তবে রেলকর্তৃপক্ষ বলছে, এমনটি করলে বেঁধে দেওয়া সময়ের আগেই রেলের জায়গা অবমুক্ত করা হবে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার নগরের ২নম্বর রেলগেট এলাকায় ২য় দিনের মত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু করে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। উচ্ছেদ কার্যক্রমের শুরুতেই ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেনের মালিকানাধীন মনির হোটেলের একাংশ ভাঙতে যায় রেল কর্তৃপক্ষ। ওই সময় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে সেখানে উপস্থিত হন। তিনি রেল কর্তৃপক্ষকে আপাতত হোটেল ও হোটেল ঘেঁষে গড়ে উঠা ১০টি দোকান না ভাঙার জন্য অনুরোধ করেন।
স্থানীয়রা জানান, দোকানগুলো মনির হোসেনের ভাই ও আত্মীয়রা পরিচালনা করে আসছেন। উচ্ছেদ অভিযানের নেতৃত্বে থাকা রেলওয়ের বিভাগীয় স্টেট অফিসার নজরুল ইসলাম প্রথমে এমন অনুরোধ রাখতে না চাইলেও পরবর্তীতে তিনি ৩দিনের সময় দেন স্থাপনা সরিয়ে নিতে।
অপরদিকে শহরের দুই নম্বর রেলগেইট এলাকার রেলওয়ের জমি অবৈধ ভাবে দখল করে গড়ে উঠা প্রায় আড়াই হাজার দোকান ঘর গুঁড়িয়ে দিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।
বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে বিকেল অভিযান চালানো হয়। দুটি ভেকুসহ অর্ধশত শ্রমিকের সহায়তায় এ উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। এসময় বিপুল সংখ্যক রেলওয়ে পুলিশ, আনসার ও জেলা পুলিশ মোতায়ন ছিলো। অভিযানের সময় নিরাপত্তার জন্য নগরের একাংশের বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়। দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন থাকায় নগরের ওই অংশের মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েন।
রেলের স্টেট অফিসার মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম জানান, নারায়ণগঞ্জ শহরের দুই নং রেলগেইট এলাকায় রেলওয়ের জমি অবৈধ ভাবে দখল করে গড়ে উঠা একটি টিনসেড আধপাকা মার্কেট, রেডিমেট জামাকাপড়ের দোকান ও বসত ঘরসহ প্রায় আড়াই হাজার ছোট বড় স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়া হয়। এসময় রেলওয়ের জায়াগা দখল করে গড়ে উঠা কয়েকটি স্থাপনার আংশিক থাকায় তাদের সময় দেয়া নিজ উদ্যোগে ভেঙ্গে নেয়ার জন্য।
তিনি জানান, নারায়ণগঞ্জে রেলওয়ের আরো প্রায় সাত একর জমি অবৈধ দখলদাররা দখল করে মার্কেট, দোকানসহ বিভিন্ন স্থাপনা গড়ে তুলেছে। এসব স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান অব্যাহত থাকবে। উচ্ছেদকৃত জমি যাতে পুণরায় দখল হয়ে না যায় সেজন্য মনিটরিং করা
হবে। কারণ নারায়ণগঞ্জ রেলস্টেশন প্রায় ১শ’ বছরের পুরনো স্টেশন। এটি ডাবল লাইন করার জন্য প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। ওই প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের জন্যই অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: উচ্ছেদ অভিযান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ