Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৬ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

জনপ্রিয় বিরোধী নেতার অভাবেই মোদী জয়ী হয়েছেন : নোবেলজয়ী অভিজিৎ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ অক্টোবর, ২০১৯, ৫:০০ পিএম

ভারতের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) কেন্দ্রীয় ও রাজ্য নেতাদের ক্রমাগত আক্রমণের মুখে পড়তে হচ্ছে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তবে তাতে নিজের মনের কথা প্রকাশ করতে দ্বিধাবোধ করছেন না অভিজিৎ। এবার দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিয়ে মুখ খুললেন এই নোবেলজয়ী।
মোদির দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসা নিয়ে অর্থনীতিতে সদ্য নোবেলজয়ী অভিজিৎ বলেন, আমার মনে হয়, যে কোনো সরকার ১০০টা জিনিস করে, আর মানুষকে তার প্রেক্ষিতেই ভোট দিতে হয়। মানুষ নরেন্দ্র মোদিকে ভোট দিয়েছেন, কারণ আর কোনো জনপ্রিয় নেতা ভোটারদের কাছে ছিলেন না। মানুষের কাছে আর কোনো নেতা ভোটের যোগ্য ছিলেন না।
দেশটির একটি বেসরকারি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় বুঝিয়ে দেন, সরকারী নীতির ফলে নির্বাচনী জয় হয়, এমন তত্ত¡ মানতে নারাজ তিনি। তবে নরেন্দ্র মোদির জনপ্রিয়তার কৃতিত্ব যে তাকে দিতেই হবে, তাও নিঃসঙ্কোচে বলেছেন নোবেলজয়ী। সেইসঙ্গে জানিয়েছেন, মোদির জয় মানেই এটা ঠিক নয় যে, তার নেয়া সব সিদ্ধান্তই সঠিক।
গত লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের প্রস্তাবিত ‘ন্যায়’ প্রকল্পের অন্যতম রূপকার ছিলেন অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। সে প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ন্যায় মূলত একটি ভাবধারা। ন্যায়তে শুধুমাত্র স্কিম ডিজাইন আমি করেছি। দেশটির প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের সমালোচনা করতেও পিছপা হননি অভিজিৎ।
তিনি বলেন, দেশে বিরোধী দল হিসাবে কংগ্রেস অনেকটাই ক্ষীণ। তবে মূল আশঙ্কার বিষয়টা এখানেই তা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন নোবেলজয়ী। অভিজিৎ বলেন, জোরাল বিরোধী শক্তি এই মুহূর্তে দেশে প্রয়োজন। না হলে গণতন্ত্রের জন্য তা ভালো হবে না।
অমর্ত্য সেনের পর নোবেলজয়ী বাঙালি অর্থনীতিবিদ অভিজিত বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে নোংরা খেলায় মেতেছে বিজেপি। অভিজিৎ বাঙালি না মারাঠি, সেই বিষয়ে অকারণ প্রশ্ন তুলেছেন ত্রিপুরার রাজ্যপাল তথাগত রায়। অন্যদিকে অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বুদ্ধি নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন কেন্দ্রীয় রেল ও বাণিজ্যমন্ত্রী পীযুশ গয়াল।
তথাগত রায় টুইট করে অভিজিতের জন্ম কলকাতায় না মহারাষ্ট্রে সেই প্রশ্ন করেন। পাশাপাশি অভিজিত্ কেন নামের মাঝে বিনায়ক ব্যবহার করেন, সেই প্রশ্নও করেন তিনি। নোবেলজয়ী এই অর্থনীতিবিদকে নিয়ে প্রশ্ন তোলায় অনেক ব্যাঙ্গের মুখে পড়তে হয় তাকে।
দেশটির কেন্দ্রীয় বাণিজ্য ও রেলমন্ত্রী পীযুশ গয়াল আরও একধাপ এগিয়ে সোজা অভিজিতের বুদ্ধি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন, অভিজিৎ কংগ্রেসের ন্যায় প্রকল্পের অনেক গুণগান করেছিলেন। কিন্তু দেশবাসী সেই ন্যায় প্রকল্পকে ছুড়ে ফেলে দিয়েছে। এর থেকে বোঝা যায় অভিজিতের বোধবুদ্ধি কোন স্তরের।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নোবেলজয়ী অভিজিৎ
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ