Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার , ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৬ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

ভোগান্তিতে যাত্রীরা

পুরনো রূপে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক

মুন্সী কামাল আতাতুর্ক মিসেল | প্রকাশের সময় : ২১ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

টানা পাঁচ মাস ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক যানজট মুক্ত থাকার পর গতকাল রোববার থেকে আবারও তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে।
তবে সেতু প্রকল্প কর্মকর্তারা বলছেন, গত ঈদ মৌসুমকে কেন্দ্রে করে সেতুগুলো খুলে দেওয়া হয়েছিল। বর্তমানে আবারও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেঘনা ও গোমতী নবনির্মিত দ্বিতীয় সেতুর স্থায়ী মেরামতের কাজ শুরু হওয়ায় এক লেনে ধীরগতিতে যানবাহন চলাচলের কারণে গতকাল ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার গৌরীপুর থেকে মেঘনা ব্রিজের পশ্চিম পাড় পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এসময় দীর্ঘ যানজটে পড়ে চরম ভোগান্তিতে পড়েন যাত্রীরা। যানজটে আটকা পড়া নারী, শিশু ও বৃদ্ধ যাত্রীরা গরমে আরও বেশি ভোগান্তিতে পড়েন। বিশেষ করে রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্সগুলো ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকায় রোগীরা ভোগ করেন সীমাহীন দুর্ভোগ। তবে ধীরগতিতে চলাচল করার কারণেই মূলত মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা এক জায়গায় বসে থাকতে দেখা যায়।

জানা যায়, মেঘনা ব্রিজের পূর্ব পাড়ের রাস্তায় স্থায়ীভাবে মেরামত কাজ করার কারণে এ অবস্থা তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ট্রাফিক কর্মকর্তারা। গত শনিবার দুপুর থেকে এ যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষসহ যানবাহনে যাতায়াতকারীরা।
দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মেঘনা ব্রিজের একপাশ বন্ধ করে কাজ করা হচ্ছে। তাই শুধু একলেন দিয়ে যান চলাচল করছে। এক লেন দিয়ে যান চলাচলের কারণে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। শনিবার সন্ধ্যা থেকে মেঘনা সেতুর উভয় পাশে এই যানজট ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়া বাস, ট্রাক চালকরা কার আগে কে যাবে প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হওয়ায় যানজট আরও তীব্র হয়।

ঢাকামুখী প্রাইভেটকারের যাত্রী ড. শাহীন আলম দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, তিনি শনিবার সন্ধ্যা ৭ টায় কুমিল্লা থেকে ঢাকায় রওনা হয়ে মেঘনা ব্রিজে গিয়ে আটকা পড়েন। রাত দেড়টায় তিনি ঢাকা পৌঁছেন। ঢাকা থেকে কুমিল্লাগামী রয়েল পরিবহন বাসের চালক জসীম উদ্দিন ইনকিলাবকে বলেন, মেঘনা ও দাউদকান্দি দ্বিতীয় নতুন সেতু চালু হওয়ার পর ঢাকা থেকে কুমিল্লায় দেড় থেকে দুই ঘণ্টায় যাতায়াত করতাম। কিন্তু গতকাল হঠাৎ যানজটের কারণে ঢাকা থেকে কুমিল্লা আসতে ছয়-সাত ঘণ্টা সময় লেগেছে।
দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার ওসি সরকার মো. আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, মেঘনা সেতুর এক পাশ বন্ধ করে সংস্কারকাজ করার কারণে যানবাহন ধীর গতিতে চলছিল। এতে মেঘনা সেতুর দুই পাশে যানজট সৃষ্টি হয়। হাইওয়ে পুলিশ যানজট নিরসনে কাজ করে যাচ্ছেন।

রোববার সন্ধ্যায় এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত ভুক্তভোগীরা সীমাহীন দুর্ভোগে আটকিয়ে থাকতে দেখা যায়। এদিকে সেতু কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মাত্র একটি লেন দিয়ে যানবাহন পারাপার হচ্ছে। বিশেষ করে ট্রাক পারাপারে সময় বেশি নষ্ট হচ্ছে। এতে যানজটে যানবাহন আটকে থাকছে, কখনো সেগুলো থেমে থেমে এগোচ্ছে।
এ বিষয়ে কাঁচপুর এলাকার দায়িত্বরত হাইওয়ে পুলিশের ওসি মো. মোজাফফর বলেন, যানজট মূলত মেঘনা টোলপ্লাজা সেতুর পূর্ব পাড়ে লেগেছে। সেটি ওই এলাকায় জামালদি হয়ে ভবেরচর পর্যন্ত ঠেকেছে। সেতুর পাড়ের রাস্তা মেরামতের কাজ চলছে। এই কাজ শেষহতে ১৫ দিন লাগবে বলে জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ।
এ বিষয়ে সেতু প্রকল্প পরিচালক আবু সালেহ মো. নুরুজ্জামান দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, সেতুগুলো ২০২০ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত কাজের মেয়াদকাল শেষ হবার কথা থাকলেও গত ঈদ মৌসুমকে কেন্দ্রে করে আমরা মানুষ দুর্ভোগ লাঘবের কথা চিন্তা করেই সেতুগুলো নিদিষ্ট সময়ের আগেই তিনটি সেতু খুলে দিয়েছি। তবে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে আমরা সেতুর টুকিটাকী কাজ যেমন সেতু তিনটির লাইটিং ও বৈদ্যুতিক লাইন স্থাপনসহ সেতুতে ওঠার সড়কগুলো স্থায়ীভাবে মেরামত কাজ কাজ করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মহাসড়ক

২ ডিসেম্বর, ২০১৯
৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
২৯ আগস্ট, ২০১৯
২৮ আগস্ট, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ