Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার , ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

তুর্কিদের মোকাবিলায় ইসরায়েলের দ্বারস্থ কুর্দিরা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ অক্টোবর, ২০১৯, ৪:১৬ পিএম

মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে তুরস্কের ব্যাপক সেনা অভিযানের পর এখন যুদ্ধবিরতি চলছে। যদিও এরই মধ্যে অঞ্চলটি থেকে তুর্কি সেনাদের বিরুদ্ধে সামরিক ব্যবস্থা নিতে অঞ্চলটির ইহুদিবাদী রাষ্ট্র ইসরায়েলের শরণাপন্ন হয়েছে সিরিয়ান কুর্দি বিদ্রোহীরা। আজ সোমবার সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সেসের (এসডিএফ) এক মুখপাত্রের বরাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ইসরায়েলের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যম ‘দ্য টাইমস অব ইসরায়েল’।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সিরিয়ার সশস্ত্র বিদ্রোহী সংগঠন কুর্দিদের এখন ভরসা ইসরায়েল। তাই ইহুদিরা তাদের কোনোমতে অবহেলা করবে না। গোষ্ঠীটির দাবি, তুরস্কের চলমান সামরিক অভিযানে নারী ও শিশুদের ব্যাপক প্রাণহানি ঘটেছে। যা আন্তর্জাতিক আইনের পরিপন্থি। গণমাধ্যমটির দাবি, মার্কিন প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে অস্ত্রবিরতির ঘোষণার পরও সীমান্তে কুর্দিদের সঙ্গে তুরস্ক লড়াই অব্যাহত রেখেছে। মার্কিন সমর্থিত সংগঠন এসডিএফ অঞ্চলটির সশস্ত্র জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে লড়াইয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পাশে ছিল। যদিও তুরস্ক এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) বর্তমানে তাদের জঙ্গি ও সন্ত্রাসী সংগঠন বলে মনে করছে। সিরিয়ার কুর্দি গেরিলাদের সংগঠন এসডিএফের এক মুখপাত্র ইসরায়েলি গণমাধ্যমটিকে বলেন, ‘আমার বিশ্বাস ইহুদি জনগণ কুর্দিদের ভালোর জন্য বর্তমান বিপজ্জনক পরিস্থিতিতে এগিয়ে আসবে। আশা করছি, তুর্কিদের হাত থেকে আমাদের রক্ষায় তারা কোনো ধরনের অবহেলা করবেন না।’

এদিকে গত ১০ অক্টোবর কুর্দি বিদ্রোহীদের ওপর সামরিক অভিযান চালানোয় তুরস্কের বিরুদ্ধে নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। যেখানে তিনি সিরিয়ায় চলমান অভিযানে ‘মানবিক’ কারণে কুর্দিদের সব ধরনের সহযোগিতার করার আশ্বাস দেন। নেতানিয়াহুর ভাষায়, ‘সিরীয় ভূখণ্ডে কুর্দিদের জাতিগত নিধনে তুরস্ক ও তাদের সহযোগীদের চলমান আক্রমণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে ইসরায়েল। সুযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই যথাযথ জবাব দেওয়া হবে।’ তিনি বলেন, ‘সম্পূর্ণ মানবিক কারণে সহযোগিতার জন্য সাহসী কুর্দি জনগণের পাশে রয়েছে ইসরায়েল।’

এর আগে শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে ‘অপারেশন পিস স্প্রিং’ নামে চলমান তুর্কি সেনাদের অভিযান বন্ধে টানা পাঁচদিনের এক অস্ত্রবিরতির মার্কিন প্রস্তাবে সম্মত হয় তুরস্ক। যদিও এর মধ্যেও মার্কিন সমর্থিত কুর্দি বাহিনীর সঙ্গে তুর্কি সেনাদের বেশ কয়েকবার বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। অপর দিকে রোববার (২০ অক্টোবর) থেকে অঞ্চলটিতে অবস্থানরত প্রায় হাজার খানেক মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত অনেক আগেই হয়েছিল। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তখন সেসব সেনাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার আশ্বাসও দিয়েছিলেন। যদিও মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো নতুন এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সেনারা এখন আর যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছে না; বরং তাদের ইরাক মিশনে পাঠানো হচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তুর্কি

৩ মার্চ, ২০১৮

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ