Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, ২১ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

নিষিদ্ধ ইলিশ আহরণে ধরা পড়ছে পুলিশ সদস্যরাও

এবার নিষিদ্ধকালে আইন অমান্যের প্রবণতা বেশি

নাছিম উল আলম | প্রকাশের সময় : ২৪ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

মূল প্রজনন মৌশুমের ২২ দিনের ইলিশ আহরণ, পরিবহন ও বিপনন নিষেধাজ্ঞার সময়ে দক্ষিণাঞ্চল জুড়ে এবার আইন ভাঙার প্রবণতা অধিকমাত্রায় দেখা যাচ্ছে। এমনকি নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে (৯ থেকে ৩০ অক্টোবর) এবার একদিকে যেমনি প্রশাসনের সাথে নৌবাহিনী, পুলিশ ও কোস্টগার্ডসহ বিভিন্ন বাহিনী তৎপর রয়েছে, তেমনি আইন-শৃংখলা বাহিনীর একাধিক সদস্য আইন অমান্যের প্রতিযোগিতায়ও যথেষ্ট তৎপর। ভারতীয় ট্রলারেরও বঙ্গোপসাগরে আমাদের সীমান্ত অতিক্রম করে মাছ লুটের প্রবণতা বেশি বলে জানা গেছে।
ইতোমধ্যে ইলিশ আহরণে জেলেদের আটক করে অর্থের বিনিময়ে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগে বরিশালের মুলাদী থানার এক এএসআইসহ দুজনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। কিন্তু সেখানেই অনৈতিক কর্মকান্ড থেমে নেই, বরিশাল মহানগর পুলিশের বন্দর থানার সাব-ইন্সপেক্টর ও এএসআই আরো এক ধাপ এগিয়ে নিজেরাই জেলেদের নিয়ে মহানগরী ও জেলার সীমানা পেরিয়ে পটুয়াখালীর বাউফলের ধুলিয়ার তেঁতুলিয়া নদীতে ইলিশ আহরণ করতে গিয়ে ধরা পড়েছে। ইতোমধ্যে এ ঘটনায় বন্দর থানার সাব-ইন্সপেক্টর আনিসুর রহমান, কনস্টেবল মোহম্মদ আলী ও জুলফিকার আলীকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। একই সাথে ঐ থানা থেকে মহানগর পুলিশ লাইন্সে ক্লোজ করা হয়েছে এএসআই তরিকুল ইসলাম, ইরফান হোসেন, সোহেল রানা এবং কনস্টেবল জাকির ও ইবরাহিমকে। এ ঘটনায় বিএমপি’র কমিশনার একজন এডিসি’র নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করেছেন। তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান হয়েছে।
রাজবাড়ীতেও অবৈধভাবে ইলিশ ধরায় সহায়তার অভিযোগ দুই পুলিশ কর্মীকে আটক করা হয়েছে। পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার চেয়ারম্যানসহ আরো কয়েকজন আটক হয়েছে বেআইনিভাবে ইলিশ ধরাকালে। প্রতিদিনই দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় ইলিশ আহরণ প্রতিরোধ অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আর এসব অভিযানকালে ইলিশ ছাড়াও বেআইনি কারেন্ট জাল ও বেড়জালসহ বিভিন্ন ধরনের নিষিদ্ধ মৎস্য আহরণ উপকরণ আটক করা হচ্ছে। মৎস্য অধিদপ্তরসহ প্রশাসনের দায়িত্বশীল মহলের মতে, এবার ইলিশের মূল প্রজনন মৌসুমের আহরণ নিষিদ্ধকালীন সময়ে আইন ভঙ্গের প্রবণতা অতীতের যেকোন সময়ের তুলনায় যথেষ্ট বেশি।
গত ৯ অক্টোবর রাতের প্রথম প্রহর থেকে ২২ দিনের জন্য ইলিশ আহরণ, পরিবহন ও বিপননে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর থেকে বিগত ১৫ দিনে দক্ষিণাঞ্চলের ৬টি জেলার অভ্যন্তরীণ ও উপকলীয় নদনদীতে দেড় সহস্রাধিক অভিযান পরিচালিত হয়েছে। এসময় সোয়া ৭শ’র বেশি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে অন্তত ৮শ’ জেলে ও মৎসজীবীকে করাদন্ডাদেশ দেয়া ছাড়াও প্রায় ৯শ’ মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসময় প্রায় ২০ লাখ টাকা জরিমানাও আদায় করা হয়েছে। অভিযানকালে প্রায় পৌনে ৪ লাখ মিটার জাল আটক করে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। যার মধ্যে নিষিদ্ধ ঘোষিত কারেন্ট জালও রয়েছে বিপুল পরিমাণে। বাজেয়াপ্তকৃত ঐসব জালের মূল্য প্রায় ১ কোটি টাকা বলে বরিশাল বিভাগীয় মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে বলা হয়েছে। গত ১৫ দিনে পুলিশ-প্রশাসনের সহায়তা নিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্নস্থানের দুই সহস্রাধিক মাছ ঘাট, প্রায় সাড়ে ৪ হাজার আড়ৎ ও সাড়ে ৩ হাজারের মত বাজার পরিদর্শন করেছে মনিটরিং টিম।
প্রজনন মৌসুমে ইলিশ আহরণে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করার বিষয়টি মনিটরিং করছে মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত সচিব ওয়াসি উদ্দিন-এর নেতৃত্বে একটি উচ্চ পর্যায়ের টিম। ইতোমধ্যে ঐ টিম দক্ষিণাঞ্চলের ৬টি জেলা সরেজমিনে ঘুরে গেছে। এছাড়াও মৎস্য অধিদপ্তরের উপ-পরিচালকের নেতৃত্বে অপর একটি টিম বর্তমানে দক্ষিণাঞ্চলে কাজ করছে বলে জানা গেছে।
মৎস্য অধিদপ্তরের মতে, বর্তমা‡ন সারা বি‡শ্ব আহরিত ইলি‡শর প্রায় ৬০% বাংলাদেশে উৎপাদিত ও আহরিত হচ্ছে। আর গতবছর দেশে যে প্রায় সোয়া ৫ লাখ টন ইলিশ আহরিত হয়েছে তার ৬০%ই পাওয়া গেছে দক্ষিণাঞ্চলের অভ্যন্তরীণ ও উপক‚লীয় এলাকা থেকে। গত দুই দশকে বরিশাল বিভাগে ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে ১৫০%-এরও বেশি।
‘হিলসা ফিসারিজ ম্যা‡নজ‡ম›ট অ্যাকশন প্ল্যান’এর আওতায় ২০০৫ সা‡লই সর্বপ্রথম প্রধান প্রজনন †মŠসু‡ম ১০ দিন ইলি‡শর আহরণ, পরিবহন ও বিপনন বন্ধ রাখা হয় । ২০১১ সা‡ল তা ১১ দিন এবং ২০১৫ সা‡ল ১৫ দি‡ন এবং ২০১৭ সাল †থ‡ক তা ২২ দি‡ন উনœীত করা হয়। মৎস্য বিজ্ঞানী‡দর ম‡ত, সারাবি‡শ্ব উৎপাদন হ্রাস †প‡লও বাংলা‡দ‡শ গত †দড় দশ‡ক ইলি‡শর উৎপাদন প্রায় তিনগুন ব„দ্ধি †প‡য়‡ছ।
মৎস্য বিজ্ঞানী‡দর ম‡ত, বাংলা‡দ‡শর ইকাসি‡স্ট‡ম সারা বছরই ৩০% ইলিশ ডিম বহন ক‡র। এসব ইলিশ পরিপক্ক হ‡য় ডিম ছা‡ড়। †য ডিমগু‡লা পুরুষ ইলিশ দ্বারা নিষিক্ত হ‡য় থা‡ক তা এ মা‡ছর নতুন প্রজন্ম গঠন ক‡র। আর আশ্বি‡নর পূর্ণিমার আ‡গ-পরের এ সম‡য় †দ‡শর চট্টগ্রাম উপক‚‡লর মায়ানী প‡য়›টÑমীরসরাই, †ভালার পশ্চিম আউলিয়া প‡য়›টÑতজুমদ্দিন, কক্সবাজা‡রর কুতুবদিয়া প‡য়›ট এবং পটুয়াখালীর কলাপাড়ার লতা চাপলি প‡য়›ট-এর ধলচর দ্বীপ, মনপুরা দ্বীপ, †মŠলভীরচর দ্বীপ ও কালিরচর দ্বীপ এলাকায় মা ইলি‡শর অত্যধিক প্রাচুর্য লক্ষ্য করা যায়। এসব বিবেচনাতেই ঐসব এলকার ৭ হাজার বর্গ কি‡লামিটা‡র অশি^‡নর পূর্ণিমার আ‡গ-প‡ড়র ২২ দিন সবধরনের মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধ করা হ‡য়‡ছ।
উপক‚‡লর ৭ হাজার বর্গ কি‡লামিটা‡রর মূল প্রজনন †ক্ষ‡ত্র মুক্তভা‡ব ভাসমান ডিম †থ‡ক ফু‡ট †বর হবার প‡র ইলি‡শর লার্ভা, স্বাদু পানি ও †নানা পানির নার্সারী †ক্ষত্রসমূহে বিচরণ করে। এরা খাবার গ্রহণ করে বড় হ‡ত থা‡ক। নার্সারী †ক্ষত্রসমূ‡হ ৭Ñ১০ সপ্তাহ †ভ‡স †বড়াবার প‡র জাটকা হি‡সব সমু‡দ্র চ‡ল যায় পরিপক্কতা অর্জ‡ন। ব‡ঙ্গাপসাগ‡রর বিভিনœ এলাকায় ১২Ñ১৮ মাস অব¯’া‡নর প‡র পরিপক্ক ইলিশ প্রজননক্ষম হ‡য় ও‡ঠ। এর প‡র তারা আবার স্বাদু পানির নার্সারী †ক্ষ‡ত্র ফি‡র আ‡স ডিম ছাড়ার ল‡ক্ষ্য।
†দ‡শ ইলি‡শর উৎপাদন ক্রমাš^‡য় ব„দ্ধি †প‡য় ২০১৭-১৮ সা‡ল ৫ লাখ ১৭ হাজার টন এবং সদ্য সমাপ্ত অর্থ বছ‡র তা †সায়া ৫ লাখ ট‡নরও †বশি ব„দ্ধি †প‡য়‡ছ ব‡ল মৎস্য অধিদপ্তর জানি‡য়‡ছ। গত বছর আশ্বি‡নর পূর্ণিমার আ‡গ প‡রর ২২ দিন ইলিশ আহরণ নিষদ্ধকালীন সম‡য় ৪৮% মা ইলিশ ডিম ছাড়ার সু‡যাগ †প‡য়‡ছ ব‡ল জানি‡য়‡ছ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট-বিএফআরআই। ইনস্টিটিউট-এর ম‡ত প্রজননক্ষম মা ইলি‡শর হার ২০১৭ সা‡ল ৭৩% †থ‡ক ’১৮ সা‡ল ৯৩%-এ ব„দ্ধি †প‡য়‡ছ। পাশাপাশি প্রজনন সাফ‡ল্যর হারও ৮০%-এ উনœীত হ‡য়‡ছ। গত বছর ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধকালীন সম‡য় †দ‡শর উপক‚লভা‡গর প্রজনন এলাকায় ৭ লাখ ৬ হাজার †কজি ডিম উৎপাদিত হয়। যার ৫০% ডিম পরিস্ফুটিত হ‡য়ছে, তার ১০% †বঁ‡চ থাক‡লও †দ‡শ গত বছর শুধু মূল প্রজনন †মŠশু‡ম ৩ হাজার †কাটি জাটকা মূল ইলিশ পরিবারে যুক্ত হ‡য়‡ছ ব‡ল জানি‡য়‡ছন বিএফআরআই-এর বি‡শষজ্ঞগণ।
এমনকি গতবছর মূল প্রজনকালীন সম‡য় প্রজনন †ক্ষত্রসমূহে নমুনা পরীক্ষা ক‡র ৮৩% ইলি‡শ রেনু †পানা পাওয়া যায়। আমা‡দর অর্থনীতি‡ত জাতীয় মাছ ইলি‡শর একক অবদান এখন ১%-এরও †বশি। আর মৎস্য খা‡ত এ মা‡ছর অবদান প্রায় ১২-১৩%।



 

Show all comments
  • দীনমজুর কহে ২৪ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩২ পিএম says : 0
    কিন্তু ধরা পড়ে নাই দালাল বাটপাররা । যারা শখ্খতা করে জেলেদে মাছ ধরতে সাহায্য করে টু পাইচ কামিয়েছে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইলিশ

১২ আগস্ট, ২০২০
৭ মার্চ, ২০২০
২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ