Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার , ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

শেখ কামাল ক্লাব কাপের ফাইনাল আজ

সাকিব ব্যাথায় কাতর ফুটবলও

রুমু, চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৩১ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

১৪টি ম্যাচ শেষে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল আজ। সন্ধ্যা ৬টায় এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে শিরোপা লড়াইয়ের মঞ্চে মুখোমুখি আয়োজক চট্টগ্রাম আবাহনী ও মালয়েশিয়ার তেরেঙ্গানু ফুটবল ক্লাব। যাতে স্বাগতিকদের লক্ষ্য শিরোপা পুনরুদ্ধার আর তেরেঙ্গানুও চায় শিরোপা নিয়েই দেশে ফেরা।
তাদের নিজস্ব মাঠ এবং গ্যালরি ভর্তি দর্শকদের অনুপ্রেরণায় উজ্জ্বিবীত থাকবে প্রথম আসরের চ্যাম্পিয়ন আবাহনীর। গত আসরে সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে পড়ায় এবার সেই শিরোপা ফেরাতে সেরা শক্তি-কৌশল প্রয়োগ করেই খেলবে দলটি। দলে কোন ইনজুরি সমস্যা নেই। সব খেলোয়াড়ই ফিট। অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া শেষ ম্যাচে পায়ের আঙ্গুলে কিছুটা ব্যথা পেলেও এরইমধ্যে সেরে উঠেছেন। তবুও স্বস্তিতে নেই স্বাগতিকরা। এই আতঙ্কের নাম লি টাক। দুটি হাটট্রিকসহ এখন পর্যন্ত আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা লি টাক। গতকাল সংবাদ সম্মেলনেও তাই ঘুরে ফিরেই এলো এই গোলমেশিনের প্রসঙ্গ। আবাহনী কোচ মারুফুল হকও কৌশলী উত্তর দিলেন তার, ‘সে একজন ভালো মানের খেলোয়াড়। তাই তাকে রাখা হবে কড়া মার্কিংয়ে। আবার এই মার্কিং করতে গিয়ে যেন ফাউল না হয় সেদিকেও সতর্ক থাকতে হবে। কেননা তার ফ্রি কিকগুলো সবসময়ই ভীতির কারণ। তার সঙ্গে স্ট্রাইকার ব্রুনো সুজুকিকেও আমাদের সামলাতে হবে। সেই সঙ্গে ব্রুনোতো আছেই। এই কম্বিনেশন ভাঙতে হবে। একই সঙ্গে আমার দলের যারা মূল খেলোয়াড় তাদের গোলও করতে হবে। সবকিছু সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হলেই জেতা সম্ভব।’
স্বস্তি নেই তেরেঙ্গানু শিবিরেও। চোট জর্জর মালয়েশিয়ান ক্লাবটির তিনজন খেলোয়াড়ই ভুগছেন ইনজুরিতে। তাদের খেলার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তাই স্বাগতিকদের শক্ত প্রতিপক্ষ বলেই মানছেন অতিথি কোচ নাফুজি জেইন, ‘নিজেদের মাঠে খেলা। সেই হিসেবে আবাহনী এগিয়ে থাকবে। তাদের আক্রমণভাগ শক্তিশালী। মাঝমাঠ এবং রক্ষণভাগও ভালো। তাই তাদের আটকানো সহজ হবে না। এরপরও আমরা ম্যাচ জেতার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী।’
এই ফাইনালের আগে হাহাকার উঠলো আইসিসির নিষেধাজ্ঞা পাওয়া ক্রিকেটের সাকিব আল হাসানের জন্য। ফুটবলার হলেও নিয়মিত খবর রাখেন দেশের ক্রিকেটের। তাই দু:সময়ে সাকিবের পাশে দাঁড়িয়েছেন চট্টগ্রাম আবাহনী ও বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়াও। নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে সাকিবের একটি ছবি আপলোড করেছেন তিনি। তাতে ক্যাপশন দিয়েছেন, ‘ক্রিকেট থেকে বিশ্বের এক নম্বর অলরাউন্ডারের নিষেধাজ্ঞার খবর শোনা খুবই কঠিন। শক্ত থাকো সাকিব আল হাসান।’ আর গতকাল সংবাদ সম্মেলনেও বললেন, ‘সাকিবের জন্য আমার খারাপ লাগছে। সে ক্রিকেটের গ্রেট লিডার। তাকে হারানো অনেক বেদনার। সবাই তাকে মিস করবে। যেহেতু সে নিয়ম মেনে চলেনি তাই তাকে শাস্তি পেতে হচ্ছে। আমি আশাবাদী সে খুব দ্রুতই ক্রিকেটে ফিরবে।’ একই ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে সাকিবের পাশে দাঁড়িয়েছেন দেশের কিংবদন্তি ফুটবলার ও বাফুফে সবাপতি কাজী সালাউদ্দিনও, ‘খবরটা শুনে আমি প্রথমে বিশ্বাসই করতে পারিনি। পরে যখন দেখালাম তাতে আমি সত্যিই শকড্। সাকিব শুধু ক্রিকেটেরই নয় আমাদের দেশের ক্রীড়াঙ্গণেরই গর্ব। তার এই বিপদে সকলকে পাশে থাকার এবং ধৈর্য্য ধারণ করার অনুরোধ জানাচ্ছি।'

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল

১১ ডিসেম্বর, ২০১৯
২৪ নভেম্বর, ২০১৯
২৩ নভেম্বর, ২০১৯
২২ নভেম্বর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ