Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার , ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

ভারতে বাবা-দাদা মিলে শিশুকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ নভেম্বর, ২০১৯, ১:১৮ পিএম

এ যেন আইয়্যামে জাহেলিয়াত! জীবন্ত কন্যাশিশুকে পুড়িয়ে মারতে চেয়েছিলেন তারই বাবা আর দাদা। কিন্তু ঘটনাটি এক সিএনজি চালকের নজরে পড়ায় বেঁচে গেছে শিশুকন্যাটি। এ ঘটনায় ওই দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল এ ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের তেলেঙ্গানা রাজ্যে।
স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানায়, বৃহস্পতিবার নবজাতক শিশুটিকে একটা কাপড়ের পুটলিতে মুড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন শিশুটির বাবা ও দাদা মিলে। তাদের উদ্দেশ্য ছিলো অসহায় শিশুটিকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারা। এ সময় জুবিলি বাস স্ট্যান্ডের সিএনজি চালক কুমার তাদের দেখে ফেলেন। ওই দুজনের আচরণ সন্দেহজনক মনে হওয়ায় তিনি তাদের পিছু নেন। এসময় দেখেন তারা পুটলিটা নিয়ে ঝোপের দিকে যাচ্ছেন।
সেখানে পৌঁছে তারা গর্ত খুঁড়তে শুরু করেন। এই ঘটনা দেখার পরেই পুলিশে খবর দেন অটোচালক। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে হাজির হয় পুলিশ।
সিএনজি চালক কুমার বলেন, দেখলাম বুড়ো লোকটা কাপড়ের পুটলিটা নিয়ে ঝোপের পাশে দাঁড়িয়ে আছে। তার সাথের লোকটা গর্ত খুঁড়ছে। আমি তাদের চিৎকার করে থামতে বললাম। কিন্তু তারা আমাকে পাত্তা দিল না। বিষয়টি আমার কাছে সন্দেহজনক মনে হওয়ায় সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে ফোন করলাম।
পুলিশকে দেখেই ভয় পেয়ে করিমনগর জেলার দুই বাসিন্দা জানায়, ওই শিশুকন্যা তাদের নাতনি। তারা আরো দাবি করেন, জন্মের সময় শিশুটি মারা গেছে। তাই শিশুটিকে দাহ করার জন্য তারা এখানে নিয়ে এসেছে। গর্ত খুঁড়ে শিশুটিকে পুড়িয়ে চাপা দেওয়াই ছিল উদ্দেশ্য।
এসময় হঠাৎ শিশুটি কেঁদে উঠে। তখন পুলিশ পুটলি খুলে দেখে শিশুকন্যাটি এখনও জীবিত। তখন শিশুটিকে উদ্ধার করে স্থানীয় গান্ধী হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। গ্রেপ্তার করা হয়েছে মেয়েটির বাবা আর দাদাকেও। এ ঘটনায় তদন্ত করছে পুলিশ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ