Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

দিল্লির ধোঁয়া ও ধুলাকে দুর্ভাগ্য বলছেন ডমিঙ্গো

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

আমাদের দলের প্রত্যেক খেলোয়াড়কে নিয়ে আমরা আত্মবিশ্বাসী। হ্যাঁ, দুজন (সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল) সেরা খেলোয়াড় আমাদের দলে নেই। তবে এটা তরুণদের সুযোগ করে দিয়েছে। আমাদের ভালো কিছু খেলোয়াড় আছে যারা বড় খেলোয়াড়দের জায়গা পূরণ করতে পারে।

ভারত সফরের আগে বহু নাটকীয়তা মাঝ দিয়ে গেছে বাংলাদেশের ক্রিকেট। এখন ভারতে পৌঁছেও নিস্তার নেই। ক্রিকেট ম্যাচের জন্য যে ধরনের কন্ডিশন তথা পরিবেশ-পরিস্থিতি প্রয়োজন, দিল্লিতে এখন মোটেও তা নেই। দূষণের কারণে বছরের এই সময়টায় দিল্লিতে স্বাভাবিক জীবনযাপনও ব্যাহত হয়। দীপাবলি উৎসবের কারণে বায়ু দূষণ আরও বেড়ে গেছে। তাই পুরো দিল্লিই ছেয়ে আছে ঘন ধোঁয়া ও ধুলায়, যার ছবি দেখলে মনে হবে কুয়াশা বোধহয়। এমন অস্বাভাবিক পরিবেশেই অনুশীলন করতে হচ্ছে সফরকারী ‘অতিথি’ বাংলাদেশ দলকে, এই মাঠেই খেলতে হবে প্রথম টি-টোয়েন্টি। ব্যাপারটিকে টাইগারদের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো আখ্যা দিচ্ছেন ‘দুর্ভাগ্য’ হিসেবে।

বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত বাতাসের নগরীর সমালোচনা করে সংবাদমাধ্যমকে ডমিঙ্গো বলেন, ‘এটা কোনো আদর্শ পরিবেশ নয়। এটা মোটেও এমন কিছু নয় যা আপনি চান। তবে পরিবেশ যেমনই থাকুক আমরা সেটাকে মোকাবেলা করছি। এমন পরিবেশে ৬-৭ ঘণ্টা থাকা যেত না। সৌভাগ্য যে আমাদের প্রতিদিন মাত্র ৩ ঘণ্টা অনুশীলন করতে হচ্ছে, আর ম্যাচটাও ৩ ঘণ্টার। আমরা পরিস্থিতি মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছি।’

দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিতব্য ম্যাচটি সরানোর কথাও উঠেছিল। কিন্তু বিসিসিআই ও দিল্লি ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন এমন দাবিতে কর্ণপাত করেনি। ব্যাপারটি তাই মেনে নিয়েই সামনে এগোতে চান বাংলাদেশের কোচ, ‘আমি বলেছি- এখানকার পরিবেশ আদর্শ নয় কিন্তু আমাদের এটা মেনে নিয়েই কাজ করতে হবে। এটা সত্যি দুর্ভাগ্য। ম্যাচের ২-১ দিন আগে ভেন্যু পরিবর্তন করে ফেলাটাও বোধহয় খুব কঠিন ব্যাপার।’

বাংলাদেশ দল এখন পর্যন্ত দুইদিন অনুশীলন করেছে, তবে দিনের আলোতে। ৩ নভেম্বর সন্ধ্যায় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ মাঠে গড়াবে ফ্লাডলাইটের আলোয়। ধোঁয়া ও কৃত্রিম আলোর কারণে পরিবেশ কেমন হবে, অনুমানও করতে পারছেন না ডমিঙ্গো, ‘ফ্লাডলাইটের আলোয় পরিবেশ কেমন হবে সেটাও আমি জানি না। আমরা কোনো অভিযোগও জানাচ্ছি না। আমাদের যত ভালো সম্ভব প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে।’

সফরের জন্য দল দেশ ছাড়ার এক দিন আগে জানা যায় সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞার কথা। অগত্যা সাকিবকে রেখেই টাইগাররা পাড়ি জমায় ভারতে। গুরুত্বপূর্ণ সফরের আগমুহূর্তে সাকিবের শাস্তির কথা জেনে বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের উপর প্রভাব পড়েছে- এমনই দাবি প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর। তিনি বলেন, সাকিবকে যে কেউই মিস করবে। সে দুর্দান্ত একজন ক্রিকেটার এবং বিশ্ব ক্রিকেটের শীর্ষ অলরাউন্ডার। খেলোয়াড়রা তাকে দলে চায়। তাই তার না থাকা বিশাল ক্ষতি, এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।

সাকিব ছাড়াও এই সিরিজে নেই ওপেনার তামিম ইকবাল, যিনি সন্তানসম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকতে ছুটি নিয়েছেন। তবে দলের সেরা দুই তারকার অভাব তরুণ ও নতুনরা পুষিয়ে দিবেন বলে বিশ্বাস কোচের, ‘আমাদের দলের প্রত্যেক খেলোয়াড়কে নিয়ে আমরা আত্মবিশ্বাসী। হ্যাঁ, দুজন সেরা খেলোয়াড় আমাদের দলে নেই। তবে এটা তরুণদের সুযোগ করে দিয়েছে। আমাদের ভালো কিছু খেলোয়াড় আছে যারা বড় খেলোয়াড়দের জায়গা পূরণ করতে পারে।’

সাকিবের দুঃখ ভুলে ডমিঙ্গো এখন তাই ভালো সূচনার অপেক্ষায়। তবে সব ভুলে কোচের লক্ষ্য সিরিজে ভালো করা এবং ২০২০ বিশ্বকাপের জন্য দলকে প্রস্তুত করা, ‘সাকিবের নিষেধাজ্ঞা কিছু খেলোয়াড়ের উপর প্রভাব ফেলেছে। সে ভুল করেছে, সেটার মাশুল গুনছে। এটা দলেও প্রভাব ফেলে। তবে আমাদের পূর্ণ মনোযোগ এখন সিরিজে। আমরা ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্যও প্রস্তুতি নিচ্ছি। আমাদের নিকট অতীত একটু কঠিন ছিল। তবে এখানে আসার পর থেকে খেলোয়াড়রা ভালো করছে। একটি ইতিবাচক শুরুর জন্য আমি মুখিয়ে আছি।’

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ