Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার , ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ০১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

ভয়াবহ বন্যার কবলে ইংল্যান্ড

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ নভেম্বর, ২০১৯, ২:৪৪ পিএম

ভারী বর্ষণে সৃষ্ট বন্যার কবলে ইংল্যান্ড। দেশটির শতাধিক এলাকায় জরুরি সতর্কত জারি করা হয়েছে। ডুবে গেছে রাস্তাঘাট। বন্ধ হয়ে আছে যান চলাচল। বৃহস্পতিবার রাতভর মুষুলধারে বৃষ্টি হয়েছে একাধিক শহরে। এর মধ্যে শেফিল্ড শহরে বৃষ্টির প্রকোপ এতটাই বেশি ছিল যে, বাড়ি যেতে পারেননি শতাধিক মানুষ। শপিংমলে, গাড়ির ভেতরে রাত কাটিয়েছেন তারা। রটারহ্যাম শহরে নৌকা দিয়ে আটকা পড়া ব্যক্তিদের উদ্ধার করেছে দমকলকর্মীরা।
উত্তর ইংল্যান্ডের বন্যা কবলিত এলাকা থেকে প্রায় শতাধিক মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। হাজার হাজার পরিবার রয়েছেন বিদ্যুৎহীন অবস্থায়। ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড এবং ওয়েলসে প্রায় ৪শ আগাম বন্যার সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। তবে এর মধ্যে ল্যাঙ্কাশায়ার, ইয়র্কশায়ার ও ম্যানচেস্টার এলাকায় ২২টি বিপজ্জনক সতর্ক সংকেত জারি করেছে মেট অফিস। লিডস ও ম্যানচেষ্টার সিটি সেন্টারেও বন্যা পানি উঠেছে। এসব এলাকার মানুষের জীবন ঝঁকিপুর্ন বলে সতর্ক করেছে মেট অফিস।
অব্যাহত ভারী বৃষ্টির কারণে সৃষ্ট বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে উত্তর ইংল্যান্ডের বিভিন্ন শহর, গ্রামের রাস্তা ঘাট, ঘরবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। ল্যাঙ্কাশায়ার এলাকার রিবচেষ্টারের একটি হোটেলটি ক্রিসমাসডেতে ব্যবসা করতে পারলেও বক্সিংডেতে তলিয়ে যায় বন্যার পানিতে।
বন্যা কবলিত এলাকায় ক্রিসমাসডে থেকে অস্থায়ী বাধ নির্মাণ করে বন্যার পানি আটকানোর চেষ্টা করছেন সেনা সদস্যরা। কিন্তু অনবরত বৃষ্টির কারণে পানি বাড়তে থাকায় এসব চেষ্টা ব্যর্থ হচ্ছে ল্যাঙ্কাশায়ার ও ইয়র্কশায়ার এলাকায়। এসব এলাকায় বালির বস্তা দিয়ে ঘরে বন্যার পানি প্রবেশ টেকানোর প্রস্তুুতি নিয়ে রাখা হয়েছে। রিবচেষ্টারের পাশ্ববর্তী হোয়ালী এলাকায় বন্যা কবলিতদের নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিতে ব্যস্ত রয়েছেন ফায়ার সার্বিসের সদস্যরা।
এদিকে গ্রেটার ম্যানচেস্টার এলাকায় ছিল ভারী বৃষ্টির সঙ্গে শক্তিশালি ঝড়ের তান্ডব। ঝড়ের কবলে পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সামারসিট এলাকার ২শ বছরের পুরনো একটি বিল্ডিংটি। বিল্ডিংয়ের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বন্যার পানির স্রোত। এদিকে বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে রচডেলের প্রধান সড়ক ও বিপুল সংখ্যক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাড়িঘর। পুরো এলাকা রয়েছে বিদ্যুৎহীন অবস্থায়। ওয়েস্ট ইয়র্কশায়ারের সৌরবি ব্রিজসহ বিভিন্ন এলাকা রয়েছে পানির নীচে।
স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, আবহাওয়ার অবনতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বিঘিœত হচ্ছে রেল ও সড়ক যোগাযোগ সেবা।
দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার নটিংহামশায়ারের ম্যান্সফিল্ডে ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে। সেখান থেকে খালি করা হয়েছে ৩৫টি বাড়ি। সেখানে রাইটন নদী ফুলে ওঠার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সরিয়ে নেয়া হয়েছে বহু মানুষকে। শেফিল্ডে মিডোহল সেন্টারে রাত কাটাতে বাধ্য হয়েছেন কয়েকশ’ মানুষ। রটারহ্যাম বোরো কাউন্সিল বাসিন্দাদের ঘরের ভেতর থাকতে আহ্বান জানিয়েছে। অত্যধিক প্রয়োজনীয় কাজ ছাড়া ঘর ছেড়ে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। এছাড়া, দক্ষিণ ইয়র্কশায়ার পুলিশ জানিয়েছে, ডনকাস্টার, বেন্টলি, টল বার ও স্কাওথোর্পের অবস্থাও বেগতিক।
সরকারি সংস্থা এনভায়রনমেন্ট এজেন্সির বন্যাকালীন সময়ের ব্যবস্থাপক ক্রিস ওয়াইল্ডিং দেশবাসীকে ফুলে ওঠা নদী থেকে দূরে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। এছাড়া, বন্যার পানিতে গাড়ি চালাতে নিষেধ করেছেন। বলেছেন, কেবল ৩০ সেন্টিমিটার বহমান পানির স্রোতই যেকোনো গাড়ির গতিপথ পাল্টে দিতে সক্ষম। বন্যার ঝুঁকি কমাতে আমরা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কাজ করছি। আমাদের মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা কাজে নামার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।
এদিকে, প্রতিকূল আবহাওয়া বিবেচনায় নিয়ে বাতিল করা হয়েছে একাধিক রেল সেবা। বন্যার পানিতে ডুবে গেছে বহু রেললাইন। একাধিক রেল সংস্থা যাত্রীদের রেলে ভ্রমণ না করতে আহ্বান জানিয়েছে।
এসব এলাকায় কারগুলো রাতে শুকনো কার পার্কে পার্কিং করা ছিল। সকালে উঠে দেখা যায় কারের ছাদের উপর দিয়ে বন্যার পানি গড়াচ্ছে। প্লাবিত হয়েছে ম্যানচেষ্টার সিটি সেন্টার এলাকাও। স্থানীয় নদীর তীর উপচে বন্যার পানি বাড়ি ঘরে গিয়ে প্রবেশ করছে। এসব এলাকায় ক্রিসমাস ডে থেকে অব্যাহত বৃষ্টির কারণে পানি বেড়েই চলছে। বন্যা পানি বাড়ার আগে অনবরত বৃষ্টি দেখেই ভেঙ্গে পড়ছেন এসব এলাকার সাধারণ মানুষ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইংল্যান্ড
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ