Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার , ২২ নভেম্বর ২০১৯, ০৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

৭ মাসে স্পেনে দ্বিতীয়বার নির্বাচন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৯ নভেম্বর, ২০১৯, ৩:৩৩ পিএম

গত এপ্রিলেই স্পেনে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সাঞ্চেজ নেতৃত্বাধীন স্প্যানিশ সোশ্যালিস্ট ওয়ার্কার্স পার্টি (পিএসওই)। সে নির্বাচনের সাত মাস না পেরোতেই রোববার পুনরায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে দেশটিতে। এ নিয়ে চার বছরের মধ্যে স্পেনের চতুর্থতম জাতীয় নির্বাচন এটি। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।

খবরে বলা হয়, এপ্রিলের নির্বাচনে জয়ী হলেও পার্লামেন্টে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই সাঞ্চেজের দলের। সরকার গঠনে অন্যান্য দলের সহায়তা প্রয়োজন তাদের। তবে বহু আলোচনা শেষেও অন্যকোনো দলের সঙ্গে জোট গঠনে ব্যর্থ হয়েছে সাঞ্চেজের দল। বামপন্থী পোদেমস পার্টির সঙ্গে এক আলোচনা বিফলে গেছে।
নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কোনো সরকার গঠন করতে পারেনি সোশ্যালিস্টরা। যার ফলে ফের নির্বাচনে ভোট দেবেন স্প্যানিশরা।
অল্প সময়ে এত নির্বাচন কেন?

তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে স্প্যানের বেশিরভাগ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ ছিল সোশ্যালিস্ট ও কনজারভেটিভদের মধ্যে। কিন্তু ২০১৫ সালে তাদের প্রভাবে ভাগ বসায় নতুন দুটি দল: বামপন্থী পোদেমস ও ডানপন্থি সিউদাদানোস। এছাড়া জনপ্রিয়তা পেয়েছে উগ্র ডানপন্থি ভক্স পার্টিও। ফলে দেশটির মধ্যে এখন প্রধান দলের সংখ্যা পাঁচটি। ভোটও ভাগ হচ্ছে পাঁচ দিকে। ফলে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাচ্ছে না কোনো পক্ষই। আর নিজেদের মধ্যে মতভেদ থাকার কারণে জোট সরকার গঠনও সম্ভব হচ্ছে না। দেশটিতে সর্বশেষ ২০১১ সালে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল কনজারভেটিভ পপুলার পার্টি (পিপি)।
এই নির্বাচনে কোনো পরিবর্তন আসবে?

বর্তমানে ৩৫০ আসনের পার্লামেন্টে সাঞ্চেজ নেতৃত্বাধীন সোশ্যালিস্টদের দলের দখলে রয়েছে ১২৩টি আসন। জরিপ বলছে, এবারের নির্বাচনেও বাকিদের থেকে এগিয়ে থাকবে সাঞ্চেজের দল। তবে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে ব্যর্থ হবে। গত এপ্রিলের নির্বাচন শেষে বামপন্থীদের সঙ্গে জোট বেঁধে সরকার গঠনের চেষ্টা করেছিলেন সাঞ্চেজ। তবে তাতে ব্যর্থ হয়েছেন। জরিপ অনুসারে, এবারও অনেকটা সেদিকেই ঘুরবে পরিস্থিতি। তবে নতুন পোদেমস পার্টির সাবেক উপ-প্রধান ইনিগো এরেজন নেতৃত্বাধীন নতুন একটি দল পরিস্থিতি পাল্টে দিতে পারার অল্প আশঙ্কা রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা অবশ্য বলছেন, এরেজন খুব একটা বিস্তর পার্থক্য তৈরি করতে পারবেন না। তার দলটি গুটি কয়েক অঞ্চলে লড়াই করবে।

কিন্তু এরেজন বলেছেন, তিনি চান একটি বামপন্থী সরকার গঠন করতে। তাই বামপন্থী ভোট যেন অন্যদিকে ধাবিত না হয় সেজন্যই নতুন দল নিয়ে হাজির হয়েছেন। তিনি বলেন, আমাদের সবকিছু নিয়ে একমত হতে হবে না।
কাতালোনিয়ার ভূমিকা

নির্বাচনটি এমন সময়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে যখন কাতালোনিয়া স্বাধীনতার দাবিতে উত্তাল। স্পেনের সুপ্রিম কোর্ট অঞ্চলটির স্বাধীনতাপন্থি নেতাদের স্বাধীনতা গণভোট আয়োজনের দায়ে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলায় কারাদ- দিয়েছে। এতে অঞ্চলটিজুড়ে তীব্র সহিংসতা বিরাজ করছে। টানা বিক্ষোভ করছে তাদের সমর্থকরা। ডানপন্থি দলগুলো জানিয়েছে, জয়ী হলে কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার দাবি কঠোর হস্তে দমন করা হবে। বর্তমানে অঞ্চলটির নিরাপত্তাবাহিনী যে স্বায়ত্ত্বশাসন উপভোগ করে তা কেড়ে নেয়া হবে। জারি করা হবে কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ। এমনকী জরুরি অবস্থাও জারি করা হতে পারে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: স্পেন

১৭ মার্চ, ২০১৯
৭ ডিসেম্বর, ২০১৮

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ