Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

প্রকাশের সময় : ২১ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : মন্ত্রিসভা রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (আরডিএ) আইন-২০১৬’ এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন করেছে। একটি মহাপরিকল্পনার অধীনে নগরীর ভূমির যথাযথ ব্যবহার এবং উন্নয়ন নিশ্চিত করাই এই আইনের লক্ষ্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল সোমবার জাতীয় সংসদে মন্ত্রিসভা কক্ষে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার সাপ্তাহিক বৈঠকে এই অনুমোদন দেয়া হয়।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব এম শফিকুল আলম বাংলাদেশ সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ বিষয়ে ব্রিফিংকালে বলেন, রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া কোন প্রতিষ্ঠান অথবা ব্যক্তি কোন নির্মাণ কাজ করতে পারবে না। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান। বর্তমান রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (আরডিএ) ১৯৭৬ সালের ‘রাজশাহী টাউন ডেভেলপমেন্ট অর্ডিনেন্স’ অনুযায়ী চলছিল জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সামরিক শাসনামলে জারিকৃত অধ্যাদেশ উচ্চ আদালত বাতিল করায় সেটি এখন আইনে পরিণত করা হয়েছে।
নতুন আইনে ৯টি অধ্যায় ও ৭টি ধারা রয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, কর্তৃপক্ষ গঠনের প্রস্তাব রয়েছে। এখানে একজন চেয়ারম্যান ও চারজন সার্বক্ষণিক সদস্য থাকবেন। এছাড়াও পদাধিকারবলে বাইরের কিছু সদস্য থাকবেন।রাজশাহী জেলা প্রশাসক, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের উপসচিব পর্যায়ের একজন কর্মকর্তা, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় মনোনীত জাতীয় গৃহায়ন অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও পরিকল্পনা বিভাগের প্রধান, স্থাপত্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধিসহ মোট ১৫ জন সদস্য থাকবেন কমিটিতে।
শফিউল আলম বলেন, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বা চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের আদলে রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ হবে। ভূমির যৌক্তিক ব্যবহার নিশ্চিত করা, শহরের জন্য মহাপরিকল্পনা গ্রহণ ও সে অনুযায়ী কাজ করা হলো এর মূল দায়িত্ব। অর্থাৎ একটা পরিকল্পিত নগর তৈরির দায়িত্ব রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে দেওয়া হয়েছে। আইনে কিছু বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে যা ভঙ্গ করলে শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমোদন ছাড়া কেউ কোনো ইমারত নির্মাণ বা পুকুর খনন করতে পারবে না। সিটি করপোরেশন, পৌরসভা বা ইউনিয়ন পরিষদ, যে কোন স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে কোন নির্মাণ বা পুকুর খননের জন্য কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে, অনুমতি ছাড়া করা নির্মাণ করা যাবে না। কেউ নিচু জমি বা জলাশয় ভরাট করতে পারবে না, কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে।
আইনের লঙ্ঘন করলে অনধিক ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা এক বছর কারাদ- বা উভয় দ-ে দ-িত হওয়ার বিধান রাখা হয়েছে। আগের অধ্যাদেশে শুধু ৫ হাজার টাকা জরিমানা ছিল বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।



 

Show all comments
  • Tofiz ২১ জুন, ২০১৬, ২:১০ পিএম says : 0
    Very fine.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ