Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার , ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৫ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

তাদের জ্বলে ওঠার দিন

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১২ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০০ এএম

জাতীয় লিগের গতকালের দিনটাই যেন ছিল নিভে যাওয়া তারার জ্বলে ওঠার। জাতীয় দলের হয়ে ভারত সফরে সুযোগ না পাওয়া পেসার রুবেল হোসেন বলহাতে জ্বলে উঠেছেন। খুলনার এই পেসার রাজশাহীর বিপক্ষে একাই ৭ উইকেট (৫১/৭) তুলে নিয়ে হয়ে উঠেছিলেন প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানদের জমদূত। দীর্ঘদিন ধরে দলে জায়গা হারানো নাসির হোসেন টানা দুই ইনিংসে সেঞ্চুরির আশা জাগিয়েও পারেননি। সে হতাশা কাটিয়ে অবশেষে পেয়েছেন তিন অঙ্কের দেখা। প্রথম ইনিংসের মত এবারও রংপুরের ইনিংসের মূল কারিগর এই মিডল অর্ডার। দিন শেষে নাসির অপরাজিত ১০৪ রানে। আরেক ম্যাচে প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ৯ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন অলক কাপালি। মাইলফলক ছুঁতে তার প্রয়োজন ছিল ১৩ রান। রাজশাহীতে দলের প্রথম ইনিংসে অলক করেছেন ৩২ রান। বাকি তিন ম্যাচ প্রভাবমুক্ত থাকলেও ঠিকই সাইক্লোন বুলবুলে আক্রান্ত বরিশাল বনাম চট্টগ্রাম ম্যাচ। বরিশাল বিভাগীয় স্টেডিয়ামে প্রথম দুই দিনের মতো গতকালও মাঠে গড়ায়নি একটিও বল।

রঙিন পোশাকে বল হাতে যতটা উজ্জ্বল, সাদা পোশাকে ততটাই বিবর্ণ রুবেল হোসেন। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট বা টেস্ট ম্যাচ, রেকর্ড ভালো নয় কোথাও। সেই রুবেল জ্বলে উঠলেন সাদা পোশাক আর লাল বলে। সাদা পোশাকে রুবেলের এই সাফল্য বিরল। বাংলাদেশের উইকেট ও কন্ডিশনে পেসারদের কাজ যদিও কঠিন, সেসব বিবেচনায়ও নিয়েও তার রেকর্ড ভীষণ সাদামাটা। ৫৭তম প্রথম শ্রেণির ম্যাচ চলছে তার,এই ৭ উইকেটের পর এখনও উইকেট মোটে ৯৩টি। ৫ উইকেটের স্বাদ পেলেন মাত্র ৪ বার।

বগুড়ার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে গতকাল জাতীয় লিগের প্রথম স্তরের ম্যাচে তৃতীয় দিন শেষে রংপুরের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ২০০ রান। ৫ উইকেট হাতে নিয়ে তারা ২১২ রানে এগিয়ে। নাসির ১০৪ ও নাঈম ইসলাম ২৬ রানে অপরাজিত আছেন।

ব্যাট হাতে এবারের জাতীয় লিগ মোটেও ভালো কাটছে না অলক কাপালীর। বড় স্কোরের দেখা পাচ্ছেন না। তবে এর মধ্যেও দেখা পেলেন বড় এক মাইলফলকের। স্পর্শ করলেন প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে ৯ হাজার রানের মাইলফলক। জাতীয় লিগে সিলেট বিভাগের হয়ে ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে গত রোববার এই কীর্তি হয়েছে অলকের। ৯ হাজার ছুঁতে এই ম্যাচে প্রয়োজন ছিল তার ১৩ রান। রাজশাহীতে দলের প্রথম ইনিংসে অলক করেছেন ৩২ রান। বাংলাদেশের মাত্র দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে এই মাইফলকের দেখা পেলেন ৩৫ বছর বয়সী অলক। তার ওপরে আছেন কেবল তুষার ইমরান। খুলনার হয়ে জাতীয় লিগের এই রাউন্ডের ম্যাচটি তুষার শুরু করেছেন ১১ হাজার ৫২৫ রান নিয়ে। তুষার ৯ হাজার পূর্ণ করেছিলেন ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে। মাইলফলক ছুঁয়েছিলেন ১৪৪ ম্যাচ আর ২৪৭ ইনিংস খেলে। অলকের লাগল ১৬৬ ম্যাচ, ২৭৪ ইনিংস। তুষারের সেঞ্চুরি তখন ছিল ২২টি, অলকের এখন ২০টি।

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৮ হাজার রান ছুঁয়েছেন বাংলাদেশের আর কেবল চারজন- ফরহাদ হোসেন, নাঈম ইসলাম, মোহাম্মদ আশরাফুল ও অবসরে যাওয়া রাজিন সালেহ। অলকের আগে এই ম্যাচে একটি মাইলফলক পেরিয়েছেন ইমতিয়াজ হোসেন। ৩৩ রানের ইনিংসের পথে সিলেটের ওপেনার স্পর্শ করেছেন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৭ হাজার রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
খুলনা-রাজশাহী, মিরপুর
রাজশাহী ১ম ইনিংস : ৫০.৪ ওভারে ১৫১ (মিজানুর ৪৩, জুনায়েদ ২৩, সাব্বির ১, সানজামুল ৪৮; রুবেল ৭/৫১, রাজ্জাক ২/৬০, জিয়াউর ১/২১)। খুলনা ১ম ইনিংস : ৫৪ ওভারে ১৫৪/৪ (এনামুল ৭, অমিত ৫৯, তুষার ৫৮, সোহান ৬*; মোহর ২/৩২, মুক্তার ২/২৬)।

রংপুর-ঢাকা, বগুড়া
রংপুর : ২৩৪ ও ২য় ইনিংস : ৮১ ওভারে ২০০/৫ (মারুফ ১৭, নাসির ১০৪*, আরিফুল ৩০, নাঈম ২৬*; অপু ১/৫৮, সানি জুনিয়র ২/৩৬ তাইবুর ২/২৭)। ঢাকা ১ম ইনিংস : ৬৪.১ ওভারে ২২২ (আগের দিন ১৯৫/৫) (মজিদ ৫২, রকিবুল ৬৭, তাইবুর ৩৪, নাদিফ ২৯; আলাউদ্দিন ২/৪৪, আরিফুল ১/৩৫, মুকিদুল ৫/৩৭, রিশাদ ১/৬৬)।

ঢাকা মেট্রো-সিলেট, রাজশাহী
ঢাকা মেট্রো : ৩১১/৮ ডিক্লে. ও ২য় ইনিংস : ৭৫ ওভারে ২৪৫/৪ (আজমির ৮০, শামসুর ৩৭, মার্শাল ৭৩*, জাবিদ ১৯*; রেজাউর ১/৩০, এনামুল জুনিয়র ২/৮০, অলক ১/৪৬)। সিলেট ১ম ইনিংস : (আগের দিন ৩২২/৬) ১০১.৩ ওভারে ৩৫১ (ইমতিয়াজ ৩৩, অমিত ১২৫, কাপালি ৩২, গালিব ৫৯, রাহাতুল ৩৯, এনামুল জুনি. ২০; তাসকিন ২/৫৪, শহিদুল ৩/৬৩, শরিফুল্লাহ ৩/৮৩, আল আমিন ১/২৭)।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন