Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার , ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১ পৌষ ১৪২৬, ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

উত্তর রাজশাহী সেচ প্রকল্প বাস্তবায়নের দাবি

রাজশাহী ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ১৩ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরতা কমাতে উত্তর রাজশাহী সেচ প্রকল্প বাস্তবায়নের দাবিতে গতকাল সকালে বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে সামাজিক সংগঠন ‘রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদ। কর্মসূচি থেকে ঘোষণা দেয়া হয়, অবিলম্বে উত্তর রাজশাহী সেচ প্রকল্প বাস্তবায়ন না হলে দেশের আমলাদের জন্য রাজশাহীর প্রবেশপথ বন্ধ করা হবে। সড়কপথ, রেলপথ এবং আকাশপথে তাদের রাজশাহীতে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না।

এই কর্মসূচি থেকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ রাজশাহীর বাঘা-চারঘাট থেকে পশ্চিমে রাজশাহী শহর রক্ষা বাঁধ ও মহানগরীর টি-গ্রোয়েন, পুলিশ লাইন্স হয়ে গোদাগাড়ী পর্যন্ত ১৭ কিলোমিটার নদীর তীর সংরক্ষণের কাজ স্থায়ীভাবে করার দাবি জানানো হয়। এছাড়া এসব এলাকাকে খরাপ্রবণ হিসেবে ঘোষণা করারও দাবি জানানো হয়।

সকালে নগরীর শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান চত্বর থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের করা হয়। নগরীর বিভিন্ন প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মিছিলটি। পরে নগরীর সপুরা এলাকায় রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়। এ সময় পাউবো কার্যালয় ঘেরাও করে দুপুর পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হয়।

কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি মো. লিয়াকত আলী। তিনি বলেন, উত্তর রাজশাহী সেচ প্রকল্প নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরেই আন্দোলন করা হচ্ছে। কিন্তু বাস্তবায়ন হচ্ছে না। অথচ প্রকল্পটি কৃষি এবং কৃষকের জন্য জরুরি। এ কথা প্রধানমন্ত্রীও বিভিন্ন সময় বলেছেন। কিন্তু প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়নি। তাই আমরা এই প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানাই। সমাবেশে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. জামাত খান বলেন, উত্তর রাজশাহী সেচ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে বরেন্দ্র এলাকাসহ তিন জেলায় ভূ-উপরস্থ পানি দিয়েই সেচ ব্যবস্থার উন্নয়ন, পদ্মা নদীর প্রাপ্ত মাটির যথাযথ ব্যবহার, ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরতা কমানো, শষ্যের নিবিড়তা বৃদ্ধি করে ফসলের উৎপাদন বাড়ানো এবং আর্থ-সামাজিক ও পরিবেশগত অবস্থার উন্নয়ন সম্ভব। কিন্তু প্রকল্পটি বাস্তবায়নে অবহেলা করা হচ্ছে। দ্রুত এটির বাস্তবায়ন না হলে আরও কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন- রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ডা. আবদুল মান্নান, সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা অধ্যাপক লুৎফর রহমান, অ্যাডভোকেট এন্তাজুল হক বাবু, সাংষ্কৃতিক কর্মী মিনহাজ উদ্দিন মিন্টু, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবু তাহের খোকন, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) জেলার সহ-সভাপতি ডা. সেলিনা বেগম, প্রকৌশলী খাজা তারেক, প্রমুখ।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ